সারা বাংলা

সাভারে তিন গার্মেন্টে অসন্তোষ একটিতে সংঘর্ষে আহত ৩০

প্রতিনিধি, সাভার: সাভারে তিনটি তৈরি পোশাক কারখানায় বিভিন্ন দাবিতে সংঘর্ষ, বিক্ষোভ ও কর্মবিরতি পালনের ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় একটি কারখানা অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করেছে কর্তৃপক্ষ।
গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে আশুলিয়ার টেঙ্গুরী এলাকায় স্প্রিং ট্রেডার্স লিমিটেড নামে একটি কারখানায় ১১ দফা দাবিতে শ্রমিক ও স্টাফদের মধ্যে সংঘর্ষে প্রায় ৩০ জন আহত হন। এর আগে মঙ্গলবার সকালে আশুলিয়ার শিমুলতলা এলাকায় মদিনা সোয়েটার্স নামে একটি কারখানার ৪৯ জন শ্রমিক ছাঁটাইসহ নানা দাবিতে কারখানার সামনে বিক্ষোভ করেন শ্রমিকরা। এছাড়া সকালেই সাভারের কলমা এলাকায় তিন মাসের বকেয়া বেতনের দাবিতে সেঞ্চুরি গার্মেন্ট নামে অপর একটি পোশাক কারখানায় কর্মবিরতি পালন করেন কয়েকশ’ শ্রমিক।
কারখানটির শ্রমিকরা জানান, প্রতি মাসের বেতন নির্ধারিত ৭ তারিখের মধ্যে পরিশোধ না করে কারখানা কর্তৃপক্ষ ১০-১২ তারিখ পর্যন্ত বিলম্ব করে। এছাড়া পুরো ঈদ বোনাস, অবৈধ শ্রমিক ছাঁটাই ও ন্যায্য ওভারটাইমসহ ১১ দফা দাবি আদায়ে দীর্ঘদিন ধরেই প্রতিবাদ করে আসছিল তারা। কিন্তু কারখানা কর্তৃপক্ষ গত সপ্তাহে শ্রমিকদের সঙ্গে এ বিষয়ে আলোচনার কথা জানালেও এখন পর্যন্ত তালবাহানা করে আসছেন। এ ঘটনায় শ্রমিকরা গত সোমবার কারখানায় আবারও প্রতিবাদ করলে উল্টো তাদের বিরুদ্ধে থানায় মিথ্যা অভিযোগ করে মালিকপক্ষ। পরে রাতে পুলিশ বেশকিছু শ্রমিকের বাড়িতে গিয়ে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে। এরই জেরে বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা গতকাল সকালে কারখানায় এসে প্রশাসনিক কর্মকর্তা ইব্রাহিম করিম সোহেলের কাছে থানায় অভিযোগের কারণ জানতে চান। এ নিয়ে শ্রমিক ও স্টাফদের মাঝে বাকবিতণ্ডার এক পর্যায়ে সংঘর্ষ শুরু হয়। এতে উভয় পক্ষের অন্তত ৩০ জন আহত হলে তাদের নিকটস্থ হাসপাতালে চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
মো. বাদল নামে কারখানাটির চাকরিচ্যুত এক নিটিং অপারেটর অভিযোগ করেন, তাদের কারখানায় ১০ দিনের নিচে কোনো শ্রমিক অনুপস্থিত হলে তাকে চাকরিচ্যুত করা বেআইনি। কিন্তু তিনি কয়েক মাস আগে পারিবারিক সমস্যার কারণে কারখানায় অনুপস্থিত হলে তাকে অন্যায়ভাবে চাকরিচ্যুত করে কর্তৃপক্ষ।
আশুলিয়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) বিজন কুমার দাস জানান, শ্রমিকদের সঙ্গে কারখানার স্টাফদের সংঘর্ষের ঘটনায় তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এ ঘটনায় কারখানা কর্তৃপক্ষ অনির্দিষ্টকালের জন্য কারখানা বন্ধ ঘোষণা করেছে।
এদিকে আশুলিয়ার শিমুলতলা এলাকার মদিনা সোয়েটার্স কারখানার বিক্ষোভরত শ্রমিকরা অভিযোগ করেন, শ্রমিক ছাঁটাইয়ের জন্য কারখানা কর্তৃপক্ষ বিগত কয়েক মাস ধরেই কৌশলে তাদের অর্ডারের কাজ অন্য কারখানায় করাচ্ছে। গত সোমবার হঠাৎ করে তাদের কারখানায় লিংকিং সেকশনের ৪৯ জন শ্রমিকের চলতি মাসের বকেয়া বেতন পরিশোধ না করে অবৈধভাবে ছাঁটাই করে মালিকপক্ষ। একই সঙ্গে পুরো সেকশনটি অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়। এ ঘটনার পর গতকাল সকালে ছাঁটাই শ্রমিকদের চাকরিতে পুনর্বহালের দাবিতে বিক্ষোভ করেন তারা। এমনকি তাদের দাবি মেনে নেওয়া না হলে আরও বৃহত্তর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে বলেও হুশিয়ারি দেন শ্রমিকরা।
এ ব্যাপারে কারখানার ব্যবস্থাপক (প্রশাসন) এসএম খোকনের সঙ্গে কথা বলতে চাইলে তিনি বিষয়টি এড়িয়ে যান।
অপরদিকে সাভারের কলমা এলাকায় তিন মাসের বকেয়া বেতনের দাবিতে সেঞ্চুরি গামের্ন্ট নামক একটি পোশাক কারখানার কয়েকশ’ শ্রমিক কর্মবিরতি পালন করেছেন।
শ্রমিকরা জানান, কারখানায় মালিকপক্ষ তিন মাসের বেতন বকেয়া পরিশোধ নিয়ে গড়িমসি করছে। কয়েক বার বেতন দেওয়ার তারিখ নির্ধারিত করলেও মালিকপক্ষ তা পরিশোধ করতে পারেনি। পরে গতকাল মঙ্গলবার বেতন পরিশোধের নির্ধারিত দিনেও মালিকপক্ষ অজুহাত দেখিয়ে শ্রমিকদের কাজে যোগ দিতে বলে। এ সময় শ্রমিকরা কাজে যোগ না দিয়ে কর্মবিরতি পালন করে অবিলম্বে বেতন পরিশোধের দাবি জানান।
সাভারে তিন কারখানায় শ্রমিক অসন্তোষের ব্যাপারে আশুলিয়া শিল্প পুলিশ-১ এর পুলিশ সুপার সানা সামিনুর রহমান জানান, বিভিন্ন দাবিতে সাভার ও আশুলিয়ায় তিনটি কারখানায় শ্রমিক অসন্তোষের ঘটনায় পুলিশ সজাগ রয়েছে। যে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে কারখানাগুলোর সামনে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

ট্যাগ »

সর্বশেষ..