সাহেবেরঘাট-মুহুরী প্রজেক্ট: সড়কের সরকারি গাছ চুরি

 

শেয়ার বিজ ডেস্ক: ফেনীর সোনাগাজীতে সড়কের পাশের বিভিন্ন প্রজাতির সরকারি গাছ চুরি হয়ে গেছে। সড়ক ও জনপথ বিভাগ (সওজ) ও বন বিভাগের উদাসীনতা এবং কতিপয় অসাধু কর্মকর্তার যোগসাজশে এই চুরির ঘটনা ঘটেছে বলে স্থানীয়দের অভিযোগ। এতে একদিকে সরকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত, অন্যদিকে উপকারভোগীরা আর্থিক সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। খবর পরিবর্তন ডটকম।

বন বিভাগ, এলাকাবাসী এবং সওজ সূত্রে জানা গেছে, নোয়াখালীর সোনাপুর থেকে সোনাগাজী হয়ে চট্টগ্রামের জোরারগঞ্জ পর্যন্ত সড়কটির উন্নয়ন ২০১৫-১৬ অর্থবছরে কাজ শুরু হয়। ২০১৮ সালের জুন মাসের মধ্যে পরিপূর্ণ কাজ সম্পাদনের কথা রয়েছে। ফেনী অংশের সাহেবেরঘাট থেকে মুহুরী প্রজেক্ট পর্যন্ত প্রায় ১৮ কিলোমিটার দৈর্ঘ্য সড়কটির দু’পাশে প্রায় দুই কোটি টাকা মূল্যের বিভিন্ন প্রজাতির হাজার হাজার গাছ ছিল। সড়কটির দু’পাশ বর্ধিত করায় গাছগুলো কাটতে হবে মর্মে সোনাগাজী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মিনহাজুর রহমান সড়ক ও জনপথ বিভাগকে বিধি মোতাবেক দরপত্র আহ্বান করার জন্য চিঠি পাঠান। এছাড়া প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বন বিভাগকেও চিঠি পাঠানো হয়।

বন বিভাগের দাবি, ১৯৯৭-৯৮ সালের দিকে সড়কের দু’পাশে গাছগুলো লাগিয়েছে অধুনালুপ্ত এনজিও সেবা ও আশা। সড়ক ও জনপথ বিভাগ কোনো কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ না করায় গাছগুলো হরিলুট হয়ে গেছে।

বন বিভাগের উপজেলা রেঞ্জ কর্মকর্তা বাবুল চন্দ্র ভৌমিক জানান, গাছগুলো লাগিয়েছে অধুনালুপ্ত দুটি এনজিও। দরপত্র আহ্বান করার কথা ছিল সড়ক ও জনপথ বিভাগের। কিন্তু বন বিভাগের সংশ্লিষ্টতা না থাকায় লিখিতভাবে সোনাগাজী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে জানানো হয়েছে।

সওজ ফেনীর নির্বাহী প্রকোশলী মাসুদুল করিম জানান, গাছগুলোর মালিক ছিল এনজিও, তাই আমরা নিলাম দিতে পারিনি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মিনহাজুর রহমান সওজ কর্মকর্তাদের উদাসীনতাকে দায়ী করে বলেন, আমি গাছগুলো নিলাম করতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে লিখিত চিঠি দিয়েছি; কিন্তু তারা কোনো কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি।