বিশ্ব বাণিজ্য

সাড়ে তিন মাসের মধ্য সর্বনিন্মে এশিয়ার পুঁজিবাজার সূচক

শেয়ার বিজ ডেস্ক: পাল্টাপাল্টি শুল্কারোপে যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে চলমান বাণিজ্যযুদ্ধ সম্প্রতি তীব্র হওয়ায় প্রভাব পড়েছে বিশ্ব পুঁজিবাজারে। গতকাল মঙ্গলবার এশিয়ার সূচকগুলো সাড়ে তিন মাসের মধ্যে সর্বনিন্মে নেমে আসে। এছাড়া গত সোমবার মার্কিন পুঁজিবাজার সূচকে বড় পতন হয়েছে। খবর: রয়টার্স।
গতকাল লেনদেনের শেষে জাপান বাদে এশিয়ার সার্বিক সূচক এমএসসিআই কমেছে এক দশমিক এক শতাংশ। লেনদেনের এক পর্যায়ে তা কমে এক দশমিক ২৫ শতাংশ কমে গত ৩০ জানুয়ারির পর সর্বনিন্মে পৌঁছায়। এছাড়া জাপানের প্রধান সূচক নিক্কেই ২২৫ কমেছে দশমিক ৫৯ শতাংশ। চীনের পুঁজিবাজার সূচক সাংহাই কমেছে দশমিক ৬৯ শতাংশ এবং হংকংয়ের হ্যাংসেং সূচক কমেছে এক দশমিক ৫০। অন্যদিকে এশিয়া ডাও সূচক কমেছে এক দশমিক এক শতাংশ এবং সিঙ্গাপুর সূচক কমেছে দশমিক ৩৩ শতাংশ।
মার্কিন পুঁজিবাজার সূকের মধ্যে নাসডাক সূচক কমেছে প্রায় সাড়ে চার শতাংশ। এছাড়া এসঅ্যান্ডপি ৫০০ সূচক কমেছে দুই দশমিক ৪১ শতাংশ এবং ডাও জোনস সূচক কমেছে দুই দশমিক ৩৮ শতাংশ।
দীর্ঘদিনের বাণিজ্যযুদ্ধ নিরসনে চলমান আলোচনার মধেই গত শুক্রবার ২০ হাজার কোটি ডলার মূল্যের চীনা পণ্যে শুল্ক দ্বিগুণেরও বেশি বাড়ানো এবং নতুন করে আরও পণ্যে শুল্কারোপের ঘোষণা দিয়ে উত্তেজনা বাড়িয়েছে মার্কিন প্রশাসন। চীনা পণ্যে শুল্ক বাড়ানোর পর চীনকে এর পাল্টা জবাব না দেওয়ার জন্য হুশিয়ার করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। চীন একটি বাণিজ্য চুক্তিতে রাজি না হলে তাদের অবস্থা আরও বেগতিক হবে বলেও জানিয়ে দিয়েছেন তিনি। কিন্তু চীন পাল্টা হিসেবে ছয় হাজার কোটি ডলারের মার্কিন পণ্যে শুল্কারোপ করবে, যা আগামী ১ জুন থেকে কার্যকর হবে। এতে বিদ্যমান পরিস্থিতি আরও খারাপ হয়।
চীন ও যুক্তরাষ্ট্র তাদের কয়েক মাসব্যাপী চলা বাণিজ্য মতবিরোধ নিয়ে কোনো চুক্তিতে উপনীত হতে ব্যর্থ হওয়ার পর পরিস্থিতি আরও কঠিন হয়। আলোচনার সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সূত্রগুলো জানিয়েছে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প চীনকে এক মাসের আলটিমেটাম দিয়ে বলেছেন, এ সময়ের মধ্যে বাণিজ্য চুক্তি না হলে চীন থেকে যুক্তরাষ্ট্রে রফতানি করা প্রতিটি পণ্যের ওপর শুল্কারোপ করবে ওয়াশিংটন।
বহুদিন ধরেই বৈরী সম্পর্কের মধ্যে গত বছর যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে বাণিজ্যযুদ্ধ শুরু হয়। একে অন্যের ওপর কয়েক বিলিয়ন ডলার শুল্কারোপ করে বাণিজ্যযুদ্ধের দিকে এগিয়ে গেছে তারা। উভয় দেশের অর্থনীতিতে এর প্রভাব বুঝতে পেরে এ বাণিজ্যযুদ্ধ অবসানে আলোচনা শুরু করে দু’দেশ। কিন্তু আলোচনা চলামান থাকা অবস্থায় ট্রাম্প শুল্ক বাড়িয়ে বাণিজ্যযুদ্ধ উসকে দিয়েছেন। কোনো ধরনের চুক্তি ছাড়াই বেইজিংয়ে অনুষ্ঠিত যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের দুদিনব্যাপী বাণিজ্য আলোচনা শেষ হয়েছে। তবে ভবিষ্যতে এ আলোচনা অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছে দু’দেশ।

সর্বশেষ..