সা ত কা হ ন: জান্নাতুল ফেরদৌস

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় প্রাথমিক শিক্ষার উন্নয়নে নিরলস কাজ করে চলেছেন সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার জান্নাতুল ফেরদৌস। ইতোমধ্যে স্বীকৃতিও পেয়েছেন চট্টগ্রাম বিভাগের শ্রেষ্ঠ উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসেবে। ‘জাতীয় শিক্ষা পদক ২০১৭’ অর্জন করেছেন তিনি। তৃতীয় লিঙ্গ জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়নে বিভিন্ন প্রশিক্ষণ ও আয়ের স্থায়ী ব্যবস্থাকরণের জন্য ‘জনপ্রশাসন পদক ২০১৭’ লাভ করেন। এর আগে ‘উদ্ভাবনী উৎসাহীকরণ সম্মাননা ২০১৬’ লাভ করেন।

সদর উপজেলা শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, জান্নাতুল ফেরদৌস ২০১৬ সালের ৩ জানুয়ারি ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসেবে যোগ দেন। এরপর তিনি প্রাথমিক শিক্ষার মান উন্নয়নের জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছেন। এর আগে তিনি রাঙামাটি পার্বত্য জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে সিনিয়র সহকারী কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ২৭তম বিসিএস (প্রশাসন) ক্যাডারের একজন কর্মকর্তা।

সদর উপজেলার ১৩০টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মিড ডে মিল চালু করেন। সব বিদ্যালয়ে সঠিক মাপ ও রঙের জাতীয় পতাকা প্রদান করেন। ঝরে পড়া রোধে মা সমাবেশ, অভিভাবক সমাবেশ, হোম ভিজিট, ই-মনিটরিং, কাউন্সেলিং, উঠানবৈঠক প্রভৃতি কর্মসূচি হাতে নেন। শুদ্ধ স্বরে জাতীয় সংগীত প্রশিক্ষণ ও বিভিন্ন বিদ্যালয়ের গরিব শিক্ষার্থীদের মধ্যে স্কুল ড্রেস, জুতা ও মোজা বিতরণ করেন। শিক্ষার্থীদের সুবিধার জন্য উপজেলার তিনটি বিদ্যালয়ে নৌকা বিতরণ করেন। সব বিদ্যালয়ে হ্যান্ড ওয়াশ, ব্রাশ ও পেস্ট বিতরণসহ নিরাপদ পানির ব্যবস্থা ও স্বাস্থ্য কার্ড প্রণয়ন করেন। একই সঙ্গে ফাস্ট এইড বক্স ও নেইল কাটার বিতরণ করেন। দুটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মেয়ে শিক্ষার্থীদের মধ্যে সাইকেল দান করেন। মেয়ে শিক্ষার্থীদের জন্য স্যানিটারি ন্যাপকিন সরবরাহ করেছেন। শিক্ষার্থীদের সুবিধার জন্য কয়েকটি সাঁকো নির্মাণ করেন। বিদ্যালয়ে কাব কার্যাবলি পরিচালনা করছেন তিনি। বিভিন্ন বিদ্যালয়ে বেঞ্চ, সিলিং ফ্যান ও অগ্নিনির্বাপক যন্ত্র দান করেছেন। কয়েকটি বিদ্যালয়ে ফুলের বাগান তৈরি করেছেন। কয়েকটি বিদ্যালয়ে সততা স্টোর চালু ও বিভিন্ন বিদ্যালয়ে বাউন্ডারি দেয়াল নির্মাণ করেছেন। বিদ্যালয়গুলোয় বিভিন্ন সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার আয়োজনসহ খেলাধুলার ব্যবস্থা করেছেন। তিনি শিক্ষার মান উন্নয়নে স্থানীয় ও জাতীয় দৈনিকগুলোয় নিয়মিত শিক্ষাসংক্রান্ত ফিচার লেখেন। জেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. মনির হোসেন বলেন, শিক্ষার উন্নয়নে জান্নাতুল ফেরদৌসের বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের ফলে বিদ্যালয়গুলোয় শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি বৃদ্ধিসহ পরীক্ষায় ভালো ফলের জন্য প্রতিযোগিতা বেড়েছে। প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোয় শিক্ষার মান বৃদ্ধি পেয়েছে। সদর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি মো. দেওয়ান হাফিজ বলেন, শিক্ষার গুণগত মানোন্নয়নে ইউএনও ও তিনি কার্যকর ভূমিকা রাখেছেন। সদর উপজেলা শিক্ষা অফিসার আবদুস সামাদ আকন্দ বলেন, তার কর্মকাণ্ডে অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে

উৎসাহ-উদ্দীপনা সৃষ্টি হয়েছে। অভিভাবকদের তদারকি বেড়েছে। শিক্ষকদের মধ্যেও প্রাণচাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ২০০৪ সালে এনিম্যাল হাজবেন্ড্রিতে স্নাতক ও ২০০৬ সালে এনিম্যাল ব্রিডিং ও জেনেটিক্সে স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করেন জান্নাতুল ফেরদৌস। ২০১৪ সালে তিনি অস্ট্রেলিয়ার ইউনিভার্সিটি অব মেলবোর্ন থেকে মাস্টার্স ইন পাবলিক পলিসি অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট ডিগ্রি অর্জন করেন।

জান্নাতুল ফেরদৌস বলেন, সব শিশুকে শিক্ষিত করে গড়ে তোলার জন্য কাজ করছি। এজন্য তিনি সমাজের সব শ্রেণির সহযোগিতা কামনা করেছেন।

 

মো. আরিফুল ইসলাম মোল্লা

ব্রাহ্মণবাড়িয়া