প্রাধান্য দিতে হবে দেশের স্বার্থকে

রুবাইয়াত রিক্তা : পুঁজিবাজার ধীরে ধীরে গতিশীল হচ্ছে। গত দুদিন ধরে সূচকের সঙ্গে সঙ্গে লেনদেনও সন্তোষজনকহারে বাড়ছে। ফলে বিনিয়োগকারীরাও সক্রিয় হচ্ছেন লেনদেনে। সামনের দিনগুলোতে বাজার ভালো অবস্থানে থাকার কথা। কারণ ব্যাংক ও আর্থিক খাতের কোম্পানিগুলো লভ্যাংশ ঘোষণা শুরু করছে। এদিকে গত কয়েক দিন ধরে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) কৌশলগত বিনিয়োগকারী কে হতে যাচ্ছেÑএ নিয়ে পুঁজিবাজারে জোর আলোচনা চলছে। সর্বোচ্চ দর হাঁকানো এবং বিনামূল্যে আকর্ষণীয় কারিগরি সহায়তার প্রস্তাবের কারণে শেনঝেন-সাংহাই স্টক এক্সচেঞ্জের কনসোর্টিয়ামকে কৌশলগত বিনিয়োগকারী করার পক্ষে ডিএসই। আর এ সিদ্ধান্ত বিনিয়োগকারীদের ব্যাপক আশাবাদী করে তোলে। এর প্রমাণ ১১ ফেব্রুয়ারি খবরটি জানার পর একদিনেই সূচক বেড়েছিল ১২৮ পয়েন্টের বেশি। কিন্তু হঠাৎ করে সর্বনি¤œ দরপ্রস্তাবকারী ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জ অব ইন্ডিয়া (এনএসই) কনসোর্টিয়ামকে কোন বিবেচনায় বেছে নেওয়ার চাপ আসছে, তা নিয়ে বিনিয়োগকারীদের মনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। যেখানে আর্থিক, কারিগরি ও কৌশলগত সবদিক বিবেচেনায় শেনঝেন-সাংহাইর তুলনায় পিছিয়ে রয়েছে এনএসই কনসোর্টিয়াম। তাই পুঁজিবাজার-সংক্রান্ত কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে অবশ্যই দেশের তথা পুঁজিবাজারের উন্নয়ন ও বিনিয়োগকারীদের স্বার্থের বিষয়টিকে প্রাধান্য দেওয়া দরকার।

গতকাল ডিএসইতে লেনদেন বেড়েছে ১১৭ কোটি টাকার বেশি। ব্যাংক খাতে লেনদেন হয় মোট লেনদেনের ১৫ শতাংশ বা ৮৭ কোটি টাকার বেশি। তবে এ খাতের মাত্র ২৬ শতাংশ শেয়ার দর বেড়েছে। লেনদেন বেড়েছে ১৯ কোটি টাকা। এ খাতে বিক্রির চাপ বেশি ছিল। গতকাল বস্ত্র খাতে লেনদেন বেড়েছে প্রায় ১৬ কোটি টাকা। এ খাতের ৭৫ শতাংশ শেয়ারদর বেড়েছে। প্রকৌশল খাতে লেনদেন বেড়েছে দুই কোটি টাকা। এ খাতে ৫৮ শতাংশ শেয়ারদর ইতিবাচক ছিল। খাদ্য ও আনুষঙ্গিক খাতে ৫০ শতাংশ শেয়ারদর বেড়েছে, লেনদেন বেড়েছে ১৫ কোটি টাকা। এ খাতের ফাইন ফুডস, ফু-ওয়াং ফুড, আরডি ফুড, এপেক্স ফুডÑএ চার কোম্পানি দরবৃদ্ধির শীর্ষ দশে অবস্থান করে। এর মধ্যে ফাইন ফুডস কোম্পানিটির সর্বশেষ প্রকাশিত দ্বিতীয় প্রান্তিকে (অক্টোবর-ডিসেম্বর, ১৭) শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে ২৩ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে শেয়ারপ্রতি আয় লাভে ছিল ২২ পয়সা। অথচ গতকাল কোম্পানিটির শেয়ারদর বেড়েছে ৯ দশমিক ৭৬ শতাংশ। বিনিয়োগকারীদের সতর্কতার জন্য গতকাল ডিএসই তাদের ওয়েবসাইটে পুনরায় এই প্রতিবেদন প্রকাশ করে।

গতকাল লেনদেনের শীর্ষে থাকা লংকাবাংলা ফাইন্যান্সের প্রায় ৩০ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। তবে শেয়ারটির দর কমে ৭০ পয়সা। সর্বশেষ ২০১৭ সালের জন্য মাত্র ১৫ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা করায় তা বিনিয়োগকারীদের সন্তুষ্ট করতে না পারায় অনেকে গতকাল শেয়ারটি বিক্রি করে দেয়। এছাড়া ইউনিক হোটেল অ্যান্ড রিসোর্টের সাড়ে ১৭ কোটি টাকা, ব্র্যাক ব্যাংক ও বেক্সিমকো ফার্মার ১৬ কোটি টাকা, ফু-ওয়াং ফুডের ১৫ কোটি, মুন্নু সিরামিক ও কেয়া কসমেটিকসের প্রায় ১৩ কোটি, মার্কেন্টাইল ব্যাংক ও স্কয়ার ফার্মার প্রায় ১২ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।