হা ট ক থা

হাটকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠা প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে চতরা ডিগ্রি কলেজ অন্যতম। কলেজে বাংলা ও ইতিহাস বিষয়ে অনার্স কোর্স চালু রয়েছে। হাটের সুনাম ছড়িয়ে পড়ছে চারদিকে

জাকির হোসেন

সহকারী অধ্যাপক

চতরা ডিগ্রি কলেজ

 

 

এ হাটে ব্যবসা করতে এসে কেউ প্রতারিত কিংবা কোনো রকম সমস্যায় পড়েন না। কখনও কেউ কোনো সমস্যায় পড়লে হাট কমিটি তৎক্ষণাৎ তা সমাধানের চেষ্টা করে। তাই পাইকারসহ ক্রেতা-বিক্রেতা থাকেন নির্ভার

মিজানুর রহমান রাজু

চতরা ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান ও চাতাল ব্যবসায়ী

 

 

এ হাটের শাকসবজি, মাছ প্রভৃতি টাটকা ও ফরমালিনমুক্ত। দামও তুলনামূলক কম। তাই দূরদূরান্ত থেকে পাইকাররাও আসেন

 

আবদুর রউফ মিয়া

ক্রেতা

 

বাপ-দাদার মুখে শুনে এসেছি এ হাটের কথা। ২০০০ সালে এখানে প্রথমে পল্লি ফোনের দোকান দিই। পরের ১৭ বছরে চতরা হাটে যে আরও কত দোকান হয়েছে, কত উন্নতি হয়েছে তা কল্পনার বাইরে

রণজিত রায়

স্বত্বাধিকারী, সেঞ্চুরি টেলিকম