হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টাল উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক : চার বছর পর ‘ইন্টারকন্টিনেন্টাল’ নামে চালু হচ্ছে ঢাকার সাবেক ‘রূপসী বাংলা’ হোটেল। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সঙ্গে স্মৃতি জড়িয়ে থাকা পাঁচতারকা হোটেলটি সংস্কারের পর গতকাল উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। উদ্বোধনের পর তিনি হোটেলের বিভিন্ন অংশ ঘুরে দেখেন।
১৯৬৬ সালে শাহবাগসংলগ্ন মিন্টো রোডে চালু হওয়া হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টাল মুক্তিযুদ্ধসহ নানা ঐতিহাসিক ঘটনার সাক্ষী। মুক্তিযুদ্ধের সময়ে ঢাকায় ইন্টারকন্টিনেন্টালেই প্রথম গেরিলা আক্রমণ হয়। ওই হোটেলে থেকেই বিদেশি সাংবাদিকরা মুক্তিযুদ্ধের সংবাদ সংগ্রহ করেছিলেন। হোটেলটি ‘রেডক্রস জোন’ হিসেবে স্বীকৃত ছিল।
তথ্যমতে, ইন্টারকন্টিনেন্টাল গ্রুপ ১৯৬৬ থেকে ১৯৮৩ সাল পর্যন্ত ওই হোটেলের ব্যবস্থাপনায় ছিল। এরপর ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে এসেছিল আন্তর্জাতিক হোটেল সেবাদানকারী আরেক প্রতিষ্ঠান শেরাটন। প্রায় ২৮ বছর পর ২০১১ সালের এপ্রিলে শেরাটন চলে গেলে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানি বাংলাদেশ সার্ভিসেস লিমিটেড নিজেই হোটেলটির ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব নেয়। তখন ‘রূপসী বাংলা’ নামে চালু হয় হোটেলটি।
২০১২ সালে ইন্টারকন্টিনেন্টাল গ্রুপ আবার ওই হোটেল ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে ফিরতে চাইলে ২০১২ সালে তাদের সঙ্গে চুক্তি হয়। তার দুই বছর পর ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বরে সংস্কারকাজ শুরু হয়। ইন্টারকন্টিনেন্টালকে সাজানোর ক্ষেত্রে বাংলাদেশের সংস্কৃতি, ঐতিহ্য ও মুঘল স্থাপত্যশৈলীকে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে।
রূপসী বাংলা হোটেলে ২৭২টি কক্ষ থাকলেও সংস্কারের পর ইন্টারকন্টিনেন্টালে কক্ষের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২২৬টি। এর মধ্যে রয়েছে ৪০ বর্গমিটার আয়তনের ২০১টি ডিলাক্স, প্রিমিয়াম ও এক্সিকিউটিভ কক্ষ, ৬০ বর্গমিটার আয়তনের পাঁচটি সুপিরিয়র স্যুইট, একই আয়তনের ১০টি ডিলাক্স স্যুইট, ৭৫ বর্গমিটার আয়তনের পাঁচটি ডিপ্লোমেটিক স্যুইট এবং ১৫০ বর্গমিটার আয়তনের পাঁচটি প্রেসিডেন্সিয়াল স্যুইট। আর দুটি বলরুম ও সাতটি সভাকক্ষ ২১ হাজার বর্গফুটের। এর মধ্যে প্রধান বলরুমটির নাম রাখা হয়েছে ‘রূপসী বাংলা’।
সুইমিং পুল ও ডাইনিং হলের জায়গা পরিবর্তন করা হয়েছে। হোটেলের মূল ফটকও সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। সেইসঙ্গে আধুনিক তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রিত সুইমিং পুল ছাড়াও জিমনেসিয়াম ও স্পাসহ নানা সুবিধা থাকছে ইন্টারকন্টিনেন্টালে।
উদ্বোধনের সময় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন পর্যটনমন্ত্রী একেএম শাহজাহান কামাল, পর্যটন মন্ত্রণালয়-সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি ফারুক খান। আগামী মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলের বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরু হবে। সংস্কারকাজে প্রায় ৬২০ কোটি টাকা ব্যয় হয়েছে।