দুরে কোথাও

হা ও য়া ব দ ল: বান্দরবান

 

বান্দরবানের পাহাড়, নদী, ঝরনা, জঙ্গল যখন যেখানে মন চায়, সেখানেই ঘাঁটি গাড়তে পারেন। বান্দরবান সুন্দর জেলা। সেখানে থাকা-খাওয়ার খরচও বেশি নয়। হাওয়া বদল করতে তাই রওনা দিতে পারেন বান্দরবানের উদ্দেশে।

 

যা দেখবেন

নীলাচল, নীলগিরি, তাজিনডং, কেওক্যারাডং, মিরিঞ্চা, বগা লেক, প্রান্তিক লেক, উপবন লেক, চিম্বুক পাহাড়, জীবননগর পাহাড়, কানাপাড়া পাহাড়, সাঙ্গু নদী, শৈলপ্রপাত, স্বর্ণমন্দির, মেঘলা, ক্যামলং জলাশয়, নাফাখুম ও রিঝুক ঝরনা আরও কত কী রয়েছে বান্দরবানে!

 

যেভাবে যাবেন

বান্দরবানে সারা বছর পর্যটকের ভিড় লেগে থাকে। এ কারণে থাকার কটেজ বুকিং আগে সেরে রাখলে ভালো। এছাড়া পর্যটন করপোরেশনের হোটেলও রয়েছে সেখানে। বান্দরবানের বাসস্টপেজের পাশে রয়েছে হোটেল থ্রিস্টার। বান্দরবান বাজারে আছে হোটেল ফোরস্টার। বাজারের কাছাকাছি পেয়ে যাবেন হোটেল প্লাজা বান্দরবান। এছাড়া হিলটপ রেস্টহাউজ, বান্দরবান গেস্টহাউজ, হলিডে ইন, গ্রিনল্যান্ড, হিল কুইন, হিলসাইট রিসোর্ট, পূরবী, প্রু আবাসিক, পর্যটন মোটেল, হিলবার্ড, গ্রিন হিল, জামাল বোর্ডিং, অতিথি, বিলকিস, লোহাগড়া, রাজু, হাবিব, পর্বত, পূর্বাণী, রয়েল হোটেল, পাহাড়িকা গেস্টহাউজ, মাস্টার গেস্টহাউজ, সরওয়ার বোর্ডিং, হিরো বোর্ডিং, কামাল বোর্ডিং, শাওন বোর্ডিং, আল-আমিন বোর্ডিং প্রভৃতিতে থাকার ব্যবস্থা বেশ ভালো।

 

যেভাবে যাবেন

বাস, ট্রেন ও প্লেন তিন রুটই বেছে নিতে পারেন বান্দরবানে যেতে। তবে প্রথমে যেতে হবে চট্টগ্রামে। সড়কপথে এস আলম, ডলফিন, সৌদিয়া, ইউনিক, শ্যামলী প্রভৃতি চেয়ারকোচ ছেড়ে যায় রাজধানীর সায়েদাবাদ, ফকিরাপুল, কমলাপুর, কলাবাগান, নতুনবাজার, মালিবাগ থেকে। দিনের প্রথম বাস ছেড়ে যায় সকাল ৮টায়, শেষেরটি রাত ১১টায়। এর কোনো কোনোটি সরাসরি বান্দরবান যায়। ভাড়া ৩৩০ টাকা থেকে ৪০০ টাকা। আর চট্টগ্রাম নেমে বহদ্দারহাট টার্মিনাল থেকে পূরবী ও পূর্বাণী পরিবহনের এসি বাসে চড়তে হবে। প্রতিদিন ভোর ৬টা থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত এক ঘণ্টা পরপর বাসগুলো চট্টগ্রাম-বান্দরবান-চট্টগ্রাম রুটে চলাচল করে।

সরাসরি ট্রেনে চড়ে বান্দরবানে যাওয়া সম্ভব নয়। মহানগর প্রভাতী, মহানগর গোধূলী এক্সপ্রেস, সুবর্ণ এক্সপ্রেস ও তূর্ণা নিশীথা ট্রেনে চড়ে প্রথমে চট্টগ্রামে যেতে হবে। এরপর পূরবী বা পূর্বাণী পরিবহনে বান্দরবান।

বিমানের বেলায়ও প্রথমে চট্টগ্রাম। সেখান থেকে পূরবী বা পূর্বাণীর যে কোনো একটি পরিবহন সার্ভিস বেছে নিতে হবে। প্রায় প্রতিদিনই বিমানে যাওয়া যায় চট্টগ্রাম। বাংলাদেশ বিমান, রিজেন্ট এয়ারওয়েজ, নভোএয়ার প্রভৃতিতে চড়ে প্রতিদিনই চট্টগ্রামে যাওয়া যায়। সময় লাগে মাত্র ৪৫ থেকে ৫০ মিনিট। জনপ্রতি ৩০০০ থেকে ৮২০০ টাকার মধ্যে ভাড়া ওঠানামা করে।

 

যা খাবেন

থাকার স্থানেই আছে খাওয়ার ব্যবস্থা। খাওয়ার হোটেলের কমতি নেই বান্দরবানে। এছাড়া পাহাড়ি ফল খুঁজে নিতে পারেন। এর মধ্যে পাহাড়ি কলা, পাকা পেঁপে, লাল আখ উল্লেখযোগ্য।

 

সর্বশেষ..