বিশ্ব বাণিজ্য

২০২০ সালের যাত্রী বৃদ্ধির পূর্বাভাস কমাল রায়ানএয়ার

বোয়িং ৭৩৭ ম্যাক্স সরবরাহ স্থগিত

শেয়ার বিজ ডেস্ক: ২০২০ সালে যাত্রী বৃদ্ধির যে পূর্বাভাস দিয়েছিল, তা কমিয়ে এনেছে আয়ারল্যান্ডভিত্তিক উড়োজাহাজ সংস্থা রায়ানএয়ার। বোয়িংয়ের ৭৩৭ ম্যাক্স সরবরাহে দেরি হওয়াকেই এ জন্য দায়ী করছে প্রতিষ্ঠানটি। এর ফলে এ বছরের শীতকালীন ও ২০২০ সালের গ্রীষ্মকালীন ফ্লাইট সময়সূচিতেও পরিবর্তন আনা হচ্ছে। এর প্রভাবে প্রতিষ্ঠানটির কিছু কর্মীর চাকরি হারানোর শঙ্কাও রয়েছে বলে জানিয়েছে রায়ানএয়ার। খবর: রয়টার্স।
উড়োজাহাজ সংস্থাটি এখন মনে করছে আগামী গ্রীষ্মকালে যাত্রীসংখ্যা বাড়বে আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় তিন শতাংশ। আগের পূর্বাভাসে বলা হয়েছিল যাত্রী বাড়বে সাত শতাংশ। ২০২১ সালের মার্চে শেষ হওয়া অর্থবছরে সম্ভাব্য যাত্রীসংখ্যা ধরা হয়েছিল ১৬২ মিলিয়ন, যা কমিয়ে ১৬৭ মিলিয়ন করা হয়েছে।
রায়ানএয়ার প্রত্যাশা করছে, গ্রাউন্ড করে রাখা ৭৩৭ ম্যাক্স উড়োজাহাজগুলো চলতি বছরের শেষের দিকে ফেরত দেবে বোয়িং। এছাড়া ক্রয়াদেশ দেওয়া উড়োজাহাজগুলো ২০২০ সালের জানুয়ারি বা ফেব্রুয়ারিতে সরবরাহ করবে তারা। কিন্তু এটি নিশ্চিত না হওয়ায় ফ্লাইট সময়সূচিতে পরিবর্তন আনা হয়েছে।
ইন্দোনেশিয়া ও ইথিওপিয়ায় দুটি উড়োজাহাজ দুর্ঘটনায় ৩৪৬ আরোহীর প্রাণহানিতে বিশ্বজুড়ে গ্রাউন্ডেড রয়েছে ম্যাক্স ৭৩৭ উড়োজাহাজ। বোয়িং এখনও নীতিনির্ধারকদের আশ্বস্ত করতে পারেনি যে, তাদের সফটওয়্যার সংস্কার উড়োজাহাজটির নিরাপত্তায় যথেষ্ট। রায়ানএয়ার ১৩৫টি ৭৩৭ ম্যাক্স উড়োজাহাজের ক্রয়াদেশ দিয়েছে। নীতিনির্ধারকরা নিরাপত্তা ইস্যুতে সন্তোষ প্রকাশ করলে আগামী শরতেই রায়ানএয়ারকে পাঁচটি উড়োজাহাজ সরবরাহ করবে বলে জানিয়েছে বোয়িং।
এদিকে সূত্র বলছে, আর্থিক ক্ষতি কমাতে এখন ৭৩৭ ম্যাক্স নাম পাল্টিয়ে উড়োজাহাজ সরবরাহ করছে বিশ্বের শীর্ষ উড়োজাহাজ নির্মাতা কোম্পানিটি। রায়ানএয়ারের কাছে সরবরাহ করতে যাওয়া ৭৩৭ ম্যাক্স মডেলের নাম পরিবর্তন করেছে বোয়িং। রায়ানএয়ারকে ‘ম্যাক্স’ অংশটি বাদ দিয়ে উড়োজাহাজ সরবরাহ করার স্পষ্ট ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে।

 

 

সর্বশেষ..



/* ]]> */