বিশ্ব বাণিজ্য

২০ মাসের মধ্যে সর্বনিম্নেও ভারতের শিল্প প্রবৃদ্ধি

শেয়ার বিজ ডেস্ক: চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে ভারতের শিল্পোৎপাদন ২০ মাসের মধ্যে সর্বনিম্নে পৌঁছেছে। আর সে জন্য দায়ী মূলত কারখানায় উৎপাদন সরাসরি কমা, যা কর্মসংস্থান তৈরির অন্যতম উৎস। এদিকে মার্চে খুচরা মূল্যস্ফীতি বেড়ে চার মাসের মধ্যে সর্বোচ্চে পৌঁছেছে। এ নিয়ে টানা দুই মাস দেশটির মূল্যস্ফীতি বাড়ল। অর্থনীতি ও কর্মসংস্থানের বেহাল দশা নিয়ে যে অভিযোগ নরেন্দ্র মোদি সরকারকে অস্বস্তিতে ফেলেছে, গত শুক্রবার প্রকাশিত এ উপাত্ত তা ফের উসকে দিল। খবর: টাইমস অব ইন্ডিয়া।
প্রকাশিত পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, ফেব্রুয়ারিতে ভারতের শিল্পোৎপাদন হয়েছে দশমিক এক শতাংশ। গত ২০ মাসের মধ্যে এ প্রবৃদ্ধি সবচেয়ে কম। আগের বছরের একই সময়ে প্রবৃদ্ধি হয়েছিল ছয় দশমিক ৯ শতাংশ। এমনি গত জানুয়ারিতেও প্রবৃদ্ধি ছিল এক দশমিক চার শতাংশ। শিল্প প্রবৃদ্ধিতে সবচেয়ে বড় অবদান রাখে ম্যানুফ্যাকচারিং খাত। এ খাতে ফেব্রুয়ারিতে প্রবৃদ্ধি হয়েছে দশমিক তিন শতাংশ। আগের বছরের একই সময়ে প্রবৃদ্ধি হয়েছিল আট দশমিক চার শতাংশ। মূলধনি পণ্য খাতে প্রবৃদ্ধি কমেছে আট দশমিক আট শতাংশ। আগের বছর একই সময় এ খাতে প্রবৃদ্ধি হয়েছিল ১৬ দশমিক ছয় শতাংশ।
গত কয়েক মাস ধরেই প্রধান নির্দেশকগুলোতে শ্লথগতি চলে। বাণিজ্যজিক যান, গাড়ি ও মোটরসাইকেল বিক্রি কমতে থাকে। সব মিলিয়ে শিল্প খাতে উদ্বেগ দেখা দেয়। বিশ্লেষকরা বলছেন, চাঙা অর্থনীতির প্রতিশ্রুতি দিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি কি পাঁচ বছরে কথা রাখতে পারলেন না। তাদের প্রশ্ন, শিল্পের এ হাল কেন। কেনই বা কমে গেল কল-কারখানার উৎপাদন। তা হলে কি চাহিদা একেবারেই তলানিতে ঠেকেছে!
এদিকে পৃথক এক প্রতিবেদনে দেখা গেছে, গত মার্চে ভারতে খুচরা মূল্যস্ফীতি বেড়েছে দুই দশমিক ৯ শতাংশ। গত ফেব্রুয়ারির দুই দশমিক ৫৭ শতাংশের চেয়ে যা বেশি। মার্চের হার চার মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ ছিল।
পরিসংখ্যানে বলা হয়েছে, জ্বালানি ও খাদ্যপণ্যের দাম বাড়ায় খুচরা মূল্যবৃদ্ধি মাথা তুলেছে। বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা, বিশ্ববাজারে যেভাবে তেলের দাম বাড়ছে, তাতে আগামী দিনে জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধি আরও বাড়বে। বিশ্লেষকদের একাংশের মতে, অর্থনীতি যে কেন্দ্রের চিন্তার বড় কারণ, তা ফের প্রমাণ হলো।

সর্বশেষ..