প্রচ্ছদ প্রথম পাতা

৩০ মে বোনাস ও ২ জুন বেতন পরিশোধ করতে হবে

গার্মেন্টগুলোকে বিজিএমইএর নির্দেশনা

হামিদুর রহমান: আসন্ন ঈদুল ফিতরের আগেই সব পোশাক কারখানার শ্রমিকদের বেতন ও বোনাস পরিশোধ করতে বলেছে বাংলাদেশ গার্মেন্ট ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিজিএমইএ)। আগামী ৩০ মে’র মধ্যে বোনাস ও ২ জুনের মধ্যে বেতন পরিশোধের জন্য গার্মেন্টগুলোকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।
জানতে চাইলে বিজিএমইএ’র সভাপতি রুবানা হক শেয়ার বিজকে বলেন, ‘ঈদের আগে শ্রমিকদের বেতন-বোনাস প্রদানে আমরা এরই মধ্যে গার্মেন্টগুলোকে নির্দেশনা দিয়েছি। শ্রমিকদের বিশৃঙ্খলা রোধে আগামী ৩০ মে’র মধ্যে বোনাস ও ২ জুনের মধ্যে বেতন পরিশোধের জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। আশা করছি নির্ধারিত সময়ের মধ্যে আমরা বেতন-বোনাস পরিশোধে সমর্থ হব।’
উল্লেখ্য, সম্প্রতি ঈদুল ফিতরের ছুটির আগেই গার্মেন্ট শ্রমিকসহ সব খাতের শ্রমিকদের বেতন-বোনাস প্রদানের জন্য মালিকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান।
মন্ত্রণালয়ের সম্মেলনকক্ষে ক্রাইসেস ম্যানেজমেন্টবিষয়ক কোর কমিটির ৪১তম সভা শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে শ্রম প্রতিমন্ত্রী বলেন, ঈদুল ফিতর আমাদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব। সরকার চায় সবাই যাতে পরিবার-পরিজন নিয়ে স্বচ্ছন্দে ঈদ উদ্যাপন করতে পারে। শ্রমজীবী মানুষগুলোর স্বচ্ছন্দে ঈদ উদ্যাপনের জন্য মূল ভূমিকা রাখতে হবে মালিকদের। একসঙ্গে লাখ লাখ লোক ঢাকা ছাড়বে। এজন্য রাস্তায় যানজট এড়াতে পর্যায়ক্রমে ছুটির ব্যবস্থা করবেন। একই সঙ্গে খেয়াল রাখবেন, যাতে শতভাগ রফতানিমুখী শিল্পে উৎপাদনে যাতে প্রভাব না পড়ে।
জানতে চাইলে জাতীয় গার্মেন্ট শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক সাফিয়া পারভিন শেয়ার বিজকে বলেন, ‘আমরা আশা করব এ বছর গার্মেন্ট শ্রমিকদের বেতন-বোনাস নিয়ে সমস্যা হবে না। নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই বেতন-বোনাস হয়ে যাবে। যদি কোনো ধরনের সমস্যা হয়, তাহলে আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করব।’
জাতীয় গার্মেন্ট শ্রমিক ফেডারেশনের সাংগঠনিক সম্পাদক কবির হোসেন শেয়ার বিজকে বলেন, ‘অন্যান্য বছরের চেয়ে এ বছর বেতন-বোনাস পেতে শ্রমিকদের ঝামেলায় পড়তে হবে। আমরা আশা করব গার্মেন্ট মালিকরাও শ্রমিকদের বেতন-বোনাস প্রদানে নমনীয় হবেন। এরই মধ্যে বেশ কিছু গার্মেন্ট বোনাস প্রদান করেছে। আগামী ৩০ তারিখের মধ্যে গার্মেন্টগুলো বোনাস প্রদান করবে বলে জানতে পেরেছি। একইভাবে যেন গার্মেন্টগুলো শ্রমিকদের বেতন প্রদানেও ভূমিকা রাখে, আমরা সেই প্রত্যাশা করছি।’
এদিকে ঈদের আগে বেতন-বোনাসের দাবিতে গতকাল ময়মনসিংহের ভালুকায় ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরোধ করেন কয়েকটি গার্মেন্টের শ্রমিকরা।
ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার ভরাডোবা এলাকায় অবস্থিত এক্সপিরিয়েন্স মিলের শ্রমিকরা ঈদের আগে বেতন-বোনাস প্রদান, ইচ্ছামতো শ্রমিক ছাঁটাই বন্ধ করাসহ বিভিন্ন দাবিতে মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছেন। গতকাল দুপুরে অসন্তুষ্ট শ্রমিকরা কাজ ফেলে মিল থেকে বের হয়ে রাস্তায় এসে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক প্রায় দুই ঘণ্টা অবরোধ করে রাখেন। খবর পেয়ে শিল্প পুলিশ ও মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মালিকপক্ষের সঙ্গে কথা বলে দাবির বিষয়ে শ্রমিকদের আশ্বাস দিয়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করে।
বিক্ষোভরত শ্রমিকরা জানান, তারা ওই মিলের হ্যারি ফ্যাশনে দুই হাজার ৬০০ জনসহ বিভিন্ন সেকশনে প্রায় পাঁচ হাজার নারী-পুরুষ শ্রমিক কাজ করছেন। তাদের চাকরির বয়স এক বছর পূর্ণ হওয়ার এক দিন কম হলে বোনাস দেওয়া হচ্ছে না। চার নম্বর ফ্লোরের সুপারভাইজার শাহিন, ডিফ্লোরের আনোয়ার ও এক নম্বর ফ্লোরের পিএম তপন চন্দ্র বিভিন্ন সময় নারী শ্রমিকদের শারীরিক নির্যাতনও করে থাকেন।
শ্রমিকরা অভিযোগ করেন, বিকাল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত কাজ করার নিয়ম থাকলেও তাদের জোর করে কোনো টিফিন না দিয়ে রাত ১০টা পর্যন্ত কাজ করানো হয়। ডিউটি শেষে বাসায় যাওয়ার জন্য গাড়ি দেওয়া হয় না। বিনা নোটিসে ছাঁটাই করা হয়ে থাকে। ঈদের আগে বোনাস দিতে হবে বলে বিনা নোটিসে গত দেড় মাসে অন্তত ৫০০ শ্রমিক ছাঁটাই করা হয়েছে। হাজিরা বোনাস ৫০০ টাকা দেওয়ার নিয়ম থাকলেও ১০০ টাকা দেওয়া হয়ে থাকে।
সর্বনিন্ম বেতন ৯ হাজার ৮৪৫ টাকা দেওয়ার নিয়ম থাকলেও অনেককেই ৬ হাজার টাকায় চাকরি করতে হচ্ছে। আবার আট বছর চাকরি করে অনেকেই ৯ হাজার ৮৪৫ টাকাই পাচ্ছেন। বেতন থেকে গাড়িভাড়া ২০০ টাকা কেটে নেওয়া হয়ে থাকে।
হ্যারি ফ্যাশনের সদ্য ছাঁটাইকৃত শ্রমিক রিয়াজ উদ্দিন জানান, বিনা কারণে জোর করে চাকরি ছেড়ে দেওয়ার কাগজে স্বাক্ষর নিয়ে তাকে ছাঁটাই করা হয়েছে।
মিলের ম্যানেজার (অ্যাডমিন) রিপন জানান, সোমবার শ্রমিকদের বোনাসের টাকা পরিশোধ করা হবে এবং অন্যান্য দাবির বিষয়টি বিবেচনা করা হবে।

ট্যাগ »

সর্বশেষ..