৩৫ কোটি ডলারের সহায়তা দেবে এডিবি

নিজস্ব প্রতিবেদক: তিনটি মেগা প্রকল্পে বাংলাদেশকে আরও ৩৫০ মিলিয়ন ডলার বা ৩৫ কোটি ডলার ঋণ সহায়তায় দিচ্ছে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি)। নির্যাতনের মুখে মিয়ানমার থেকে এসে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের সহায়তায় ১০ কোটি ডলার, সেচ কাজে সোলার পাম্প স্থাপনে দুই কোটি ৫৪ লাখ ডলারের অনুদান এবং মাধ্যমিক শিক্ষার উন্নয়নে আরও ২২ কোটি ৫০ লাখ ডলারের ঋণসহ মোট ৩৫ কোটি ডলার দিচ্ছে সংস্থাটি।
এ বিষয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সরকারের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ (ইআরডি) এবং এডিবির মধ্যে তিনটি পৃথক চুক্তি সই হয়। রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে এনইসি সম্মেলন কক্ষে ইআরডি সচিব কাজী শফিকুল আযম ও ঢাকায় এডিবির আবাসিক প্রতিনিধি মনমোহন প্রকাশ এসব চুক্তিতে সই করেন।
অনুষ্ঠানে মনমোহন প্রকাশ বলেন, গত মে মাসে এডিবির বার্ষিক সভায় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সঙ্গে এ অনুদানের বিষয়ে এডিবি প্রেসিডেন্টের আলোচনা হয়। তিনি বলেন, বাস্তুচ্যুত মানুষের সহায়তায় এডিবির আলাদা কোনো তহবিল নেই। তারপরও সদস্য দেশগুলোর অনুকূল সাড়া দেওয়ায় এডিবি দ্রুত এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এডিবির এ অনুদান কক্সবাজারের উখিয়া এবং টেকনাফের রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পানি সরবরাহ, স্যানিটেশন, দুর্যোগ ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা, বিদ্যুৎ এবং সড়ক নির্মাণে ব্যয় করা হবে।
প্রসঙ্গত, এ প্রকল্প বাস্তবায়নে ব্যয় হবে মোট ১২ কোটি ডলার। এর মধ্যে এডিবি ১০ কোটি ডলার অনুদান দেবে। বাকি দুই কোটি ডলার সরকারের নিজস্ব তহবিল থেকে ব্যয় করা হবে।
অনুষ্ঠানে এডিবি প্রতিনিধি বলেন, চলতি বছর জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত বাংলাদেশকে ৯৩ কোটি ৭০ লাখ ডলার সহায়তা দেওয়ার চুক্তি হয়েছে। আর ছাড় হয়েছে প্রায় ৫৩ কোটি ১০ লাখ ডলার। এ পরিমাণ গত বছরের তুলনায় ১৪০ শতাংশ বেশি।
ইআরডি সচিব কাজী শফিকুল আযম বলেন, রোহিঙ্গাদের জন্য এডিবি মোট ২০ কোটি ডলার অনুদানের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। এর মধ্যে প্রথম পর্যায়ে ১০ কোটি ডলারের চুক্তি হলো। প্রকল্পটি বাস্তবায়নে সফলতার ওপর নির্ভর করে পরের ১০ কোটি ডলার পাওয়া যাবে।
কৃষি সেচে সৌরবিদ্যুৎ ব্যবহারে এডিবির অনুদানের দুই কোটি ৫৪ লাখ ডলার দিয়ে দেশের পল্লি এলাকায় দুই হাজার সৌরবিদ্যুৎ চালিত সেচপাম্প স্থাপন করা হবে। বিআরইবির অধীনে থাকা ১০টি পল্লি বিদ্যুৎ সমিতির মাধ্যমে এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে।
আর মাধ্যমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচির তৃতীয় পর্বের আওতায় এডিবি যে ২২ কোটি ৫০ লাখ ডলার ঋণ দেবে, তার মাধ্যমে মাধ্যমিক স্তরের পাঠ্যক্রমের উন্নয়ন, শিক্ষণ পদ্ধতি উন্নয়ন, সমতার ভিত্তিতে শিক্ষা গ্রহণে সুবিধা বৃদ্ধি, ঝরে পড়া রোধে ব্যবস্থা গ্রহণ এবং শিক্ষা ব্যবস্থাপনা ও পরিচালনা কার্যক্রম জোরদার করা হবে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ ২০১৪ থেকে ২০২৩ সাল পর্যন্ত ১০ বছরে ১৭ দশমিক ৩০ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে ‘মাধ্যমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচি’ বাস্তবায়ন করছে।
এডিবি তাদের মাল্টি-ট্রান্স ফাইন্যান্সিং ফ্যাসিলিটির আওতায় এ কর্মসূচি বাস্তবায়নে তিন কিস্তিতে মোট ৫০ কোটি ডলার ঋণ দিচ্ছে বলে অনুষ্ঠানে জানানো হয়।
এডিবি প্রতিনিধি বলেন, আমরা এসব উন্নয়ন প্রকল্পে অগ্রগতির জন্য বাংলাদেশ সরকার, উন্নয়ন অংশীদার ও অন্যান্য অংশীদারদের সঙ্গে গভীরভাবে কাজ করছি।
তিনি বলেন, এডিবি এ পর্যন্ত বাংলাদেশে দেড় বিলিয়ন ডলার (১৪৯৫ মিলিয়ন ডলার) সহায়তা ঘোষণা করেছে। যেখানে ৬০০ মিলিয়ন ডলার রোহিঙ্গাদের উন্নয়নে। এ বছরের শেষ নাগাদ এডিবির সহায়তা দুই বিলিয়ন ডলারে পৌঁছাবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।