৯ কোম্পানির প্রান্তিক প্রতিবেদন প্রকাশ

নিজস্ব প্রতিবেদক: চলতি হিসাববছরের প্রথম (জানুয়ারি-মার্চ) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে তালিকাভুক্ত ৯ কোম্পানি। এদের মধ্যে ইপিএস বেড়েছে তিনটির, কমেছে তিনটির, শেয়ারপ্রতি লোকসান কমেছে একটির ও শেয়ারপ্রতি লোকসান বেড়েছে বাকি দুই কোম্পানির। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
ন্যাশনাল ব্যাংক: প্রথম প্রান্তিকে শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১২ পয়সা, যা আগের বছর একই সময় ছিল ২২ পয়সা। অর্থাৎ ইপিএস ১০ পয়সা কমেছে। চলতি বছরের ৩১ মার্চ পর্যন্ত শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ১৭ টাকা ১৩ পয়সা, যা আগের বছরের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত ছিল ১৭ টাকা দুই পয়সা।
রিপাবলিক ইন্স্যুরেন্স: প্রথম প্রান্তিকে ইপিএস হয়েছে ৫১ পয়সা, যা আগের বছর ছিল ৪৯ পয়সা। অর্থাৎ ইপিএস বেড়েছে দুই পয়সা।
আইসিবি ইসলামিক ব্যাংক: প্রথম প্রান্তিকে শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে ১৩ পয়সা, যা আগের বছর ছিল ১২ পয়সা। অর্থাৎ শেয়ারপ্রতি লোকসান বেড়েছে এক পয়সা।
প্রাইম ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট: প্রথম প্রান্তিকে শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে ৫১ পয়সা, যা আগের বছর ছিল ৫৬ পয়সা। অর্থাৎ শেয়ারপ্রতি লোকসান কমেছে পাঁচ পয়সা। চলতি বছরের ৩১ মার্চ পর্যন্ত এনএভি দাঁড়িয়েছে আট টাকা এক পয়সা, যা আগের বছরের একই সময় পর্যন্ত ছিল ৯ টাকা ৫৬ পয়সা।
মার্কেন্টাইল ইন্স্যুরেন্স: প্রথম প্রান্তিকে ইপিএস হয়েছে ৬৯ পয়সা, যা আগের বছর ছিল ৬৭ পয়সা। অর্থাৎ এক বছরে ইপিএস দুই পয়সা বেড়েছে। চলতি বছরের ৩১ মার্চ পর্যন্ত এনএভি দাঁড়িয়েছে ১৮ টাকা ৬৬ পয়সা, যা আগের বছরের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত ছিল ১৮ টাকা তিন পয়সা।
বাংলাদেশ ইন্ডাস্ট্রিয়াল ফাইন্যান্স: প্রথম প্রান্তিকে শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে এক টাকা ৯২ পয়সা, যা আগের বছর ছিল এক টাকা ৭০ পয়সা। অর্থাৎ এক বছরে শেয়ারপ্রতি লোকসানবেড়েছে ২২ পয়সা। চলতি বছরের ৩১ মার্চ পর্যন্ত শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্যে দায় দাঁড়িয়েছে আট টাকা ১১ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময় এনএভি ছিল এক টাকা ৪৫ পয়সা।
ফার্স্ট ফাইন্যান্স: প্রথম প্রান্তিকে শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে এক টাকা ৭০ পয়সা, যা আগের বছর ছিল ৮৩ পয়সা। অর্থাৎ শেয়ারপ্রতি লোকসান বেড়েছে ৮৭ পয়সা। চলতি বছরের ৩১ মার্চ পর্যন্ত এনএভি দাঁড়িয়েছে ৯ টাকা ১৭ পয়সা, যা আগের বছরের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত ছিল ১০ টাকা ৮৮ পয়সা।
ইসলামী ইন্স্যুরেন্স বাংলাদেশ: প্রথম প্রান্তিকে ইপিএস হয়েছে ৪২ পয়সা, যা আগের বছর ছিল ৩৫ পয়সা। অর্থাৎ ইপিএস সাত পয়সা বেড়েছে।
সিটি ব্যাংক: প্রথম প্রান্তিকে ইপিএস হয়েছে ৪০ পয়সা, যা আগের বছর ছিল ৬৭ পয়সা। অর্থাৎ এক বছরে ইপিএস ২৭ পয়সা কমেছে।