মার্কেটওয়াচ

কোম্পানিগুলোকে নিয়ম রক্ষার জন্যই কারণ দর্শানো হয়

যখন কোনো কোম্পানির শেয়ারদর অস্বাভাবিক বাড়ে তখন কারণ দর্শানোর প্রেক্ষিতে কোম্পানি এক কথায় বলে দেয় কোনো সংবেদনশীল তথ্য নেই। কিন্তু যখন কোনো শেয়ারের দর অস্বাভাবিক হারে কমে তখন এ ব্যাপারে কোনো তথ্য প্রকাশিত হয় না। আসলে শুধু নিয়ম রক্ষার জন্য কোম্পানিগুলোকে কারণ দর্শানো হয়। গতকাল এনটিভির মার্কেট ওয়াচ অনুষ্ঠানের আলোচনায় বিষয়টি উঠে আসে। হাসিব হাসানের গ্রন্থনা ও সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন পুঁজিবাজার টেকনিক্যাল এনালিস্টের মো. রহমত উল্লাহ এবং আমার স্টক ডটকমের সিইও আলী জাহাঙ্গীর।
মো. রহমত উল্লাহ বলেন, ২০০৩ থেকে ২০১০ সালে পুঁজিবাজার নিম্নগতিতে ছিল। সেখান থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত সংশোধন হয়েছে। ২০১৩ সাল থেকে ২০১৭ সালের প্রথমদিকে বাজার একটু গতিশীল ছিল। আবার ২০১৭ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত বাজার নিম্নগতিতে চলে যায়। ২০১৯ সালের এপ্রিল পর্যন্ত সূচক ৮২২ পয়েন্ট পড়েছে। তবে আশা করি, এখান থেকে বাজার ভালোর দিকে যাবে। যখন কোনো কোম্পানির শেয়ারদর অস্বাভাবিক বাড়ে তখন এক কথায় বলে দেওয়া হয় কোনো সংবেদনশীল তথ্য নেই। কিন্তু যখন কোনো কোম্পানির শেয়ারদর অস্বাভাবিকভাবে কমে তখন এ ব্যাপারে কোনো তথ্য প্রকাশিত হয় না। আসলে এটি শুধু নিয়মরক্ষার জন্য কোম্পানিগুলোকে কারণ দর্শানো হয়।
তিনি আরও বলেন, ২০১৮ সাল থেকে স্বল্পমূলধনি কোম্পানি ভালো করছে। এখন পর্যন্ত স্বল্পমূলধনি কোম্পানি দিয়ে বাজার চলছে এবং এভাবেই চলতে থাকবে বাজার। আবার এখন কিছু মিউচুয়াল ফান্ডের গতি ভালো দেখা যাচ্ছে এবং বেশিরভাগ মিউচুয়াল ফান্ডের দর ফেসভ্যালুর নিচে রয়েছে। তবে এখান থেকে আরও দাম বাড়ার সুযোগ রয়েছে। কথা হচ্ছে, এ খাতে ইতোমধ্যে যারা বিনিয়োগ করেছে তাদের কোনো সমস্যা নেই কিন্তু যারা নতুন করে বিনিয়োগ করবে তারা যেন ভেবেচিন্তে বিনিয়োগ করে।
আলী জাহাঙ্গীর বলেন, গত একমাস ধরে দু-একদিন ছাড়া প্রতিদিন সূচক পড়েছে। আসলে বাজার ভালো হবে এর নির্দিষ্ট কোন কারণ কী আমাদের কাছে আছে? দেশের অর্থনীতি সব সূচকগুলো উন্নয়নের দিকে যাচ্ছে কিন্তু বাজারের কোনো উন্নতি হচ্ছে না। আমরা জানি, একটি দেশের অর্থনীতির উন্নয়নের ক্ষেত্রে ব্যাংক খাত শক্তিশালী থাকতে হয়, কিন্তু ব্যাংক খাতে তারল্য সংকটসহ বিভিন্ন ধরনের সমস্যা রয়েছে। ইতোমধ্যে একটি আর্থিক প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। সামনে হয়তো আরও কয়েকটি বন্ধ হবে। স্বাধীনতার পর এ প্রথম একটি আর্থিক প্রতিষ্ঠানের অবসায়ন হচ্ছে। বাজারের জন্য এটি নেতিবাচক হিসেবে কাজ করবে এবং বাকি আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোতেও চাপ পড়বে।
তিনি আরও বলেন, এখন পুঁজিবাজার এমন অবস্থানে রয়েছে, যতই প্রণোদনা দেওয়া হোক ভালো করা সম্ভব নয়। বাজারে আস্থা তৈরি করার জন্য সরকারকে চেষ্টা করতে পারে। গত পাঁচ বা ১০ বছরে বাজার আস্থা তৈরি করতে পারেনি। যদি আস্থা তৈরি করতে পারে সেক্ষেত্রে বাজার ভালো হতে পারে। প্রধানমন্ত্রী বললেন আর বাজার ভালো হয়ে যাবে এটা সম্ভব নয়। এটি একদিনের জন্য সম্ভব কিন্তু দীর্ঘ মেয়াদে নয়।

শ্রুতিলিখন: শিপন আহমেদ

 

সর্বশেষ..