হোম প্রচ্ছদ সংশোধন হলেও বাজার ইতিবাচক

সংশোধন হলেও বাজার ইতিবাচক


Warning: date() expects parameter 2 to be long, string given in /home/sharebiz/public_html/wp-content/themes/Newsmag/includes/wp_booster/td_module_single_base.php on line 290

রুবাইয়াত রিক্তা: পুঁজিবাজারে গতকাল সূচক ও লেনদেনের উত্থান হলেও মুনাফা তুলে নেওয়ার প্রবণতা বেশি ছিল, যার কারণে বেশিরভাগ শেয়ারের দর কমেছে। ঈদের ছুটির আগে থেকে সূচক ও লেনদেন ইতিবাচক অবস্থানে রয়েছে। ফলে অনেকের পোর্টফোলিও লাভজনক অবস্থানে চলে গেছে। তাই গতকাল শেয়ার বিক্রির চাপ বেশি ছিল। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) গতকাল প্রধান সূচক বেড়েছে ৫২ পয়েন্ট। আর সূচকের এই উত্থানে মূল ভূমিকা রেখেছে বড় মূলধনি দুই কোম্পানি গ্রামীণফোন ও লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট। যোগাযোগ খাতের কোম্পানি গ্রামীণফোনের দর বেড়েছে ২১ টাকা ৪০ পয়সা। আর লাফার্জ সুরমা সিমেন্টের দর বেড়েছে পাঁচ টাকা ৯০ পয়সা বা ৯ দশমিক ৯৮ শতাংশ। কোম্পানিটি দরবৃদ্ধির শীর্ষে অবস্থান করে। এছাড়া সূচক ইতিবাচক করতে স্কয়ার ফার্মা, এমআই সিমেন্ট ও লংকাবাংলা ফিন্যান্সেরও ভূমিকা রয়েছে। গতকাল শতভাগ ইতিবাচক ছিল সিমেন্ট খাত। এ খাতের সাতটি কোম্পানিরই দর বেড়েছে। লাফার্জ ছাড়াও মেঘনা ও আরামিট সিমেন্ট দরবৃদ্ধির শীর্ষ দশে অবস্থান করে নেয়।

এদিন ব্যাংক খাতে মোট লেনদেনের ৩০ শতাংশ হলেও এ খাত থেকে মুনাফা তুলে নেওয়া হয়, যার কারণে এ খাতের ১২ কোম্পানির দর কমেছে, বেড়েছে ১৪টির। তবে লেনদেন বেড়েছে প্রিমিয়ার, ন্যাশনাল, আল আরাফা, এক্সিম, ফার্স্ট সিকিউরিটি ও সিটি ব্যাংকের। পাঁচ দশমিক ৫৫ শতাংশ বেড়ে দরবৃদ্ধির শীর্ষ তালিকায় ছিল প্রিমিয়ার ব্যাংক। গতকাল বিনিয়োগকারীরা ব্যাংক খাত থেকে মুনাফা তুলে আর্থিক খাতে বিনিয়োগ করেন, যার কারণে এ খাতের ২১টি কোম্পানির শেয়ারদর বেড়েছে, কমেছে একটির এবং অপরিবর্তিত ছিল একটির। এ খাতে লেনদেন হয় প্রায় ১২৮ কোটি টাকা, যা মোট লেনদেনের ১১ শতাংশ। এছাড়া গতকাল ইতিবাচক ছিল বিমা খাত। মিশ্র অবস্থানে ছিল বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাত। বিমা খাতের ৩৫টি কোম্পানির দর বেড়েছে, কমেছে ১১টির, একটি অপরিবর্তিত ছিল। জ্বালানি খাতের ৯টি কোম্পানির দর বেড়েছে, কমেছে সাতটির। বাকি খাতগুলো দরপতনে ছিল।

গতকাল লেনদেনে নেতৃত্ব দেওয়া কোম্পানিগুলোর মধ্যে লংকাবাংলা ফিন্যান্সের প্রায় ৬২ কোটি টাকার শেয়ার, প্রিমিয়ার ব্যাংকের ৩৭ কোটি টাকার, স্কয়ার ফার্মার ৩৫ কোটি টাকার, এনবিএল ৩২ কোটি টাকার, লাফার্জ সুরমা ও জিপির ৩১ কোটি টাকার এবং সামিট পাওয়ারের প্রায় ৩০ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। বেশ কটি দুর্বল কোম্পানির দরবৃদ্ধির প্রেক্ষিতে গতকাল ডিএসই এসব কোম্পানিতে অনুসন্ধান করে। ফলে দুর্বল কোম্পানিগুলো গতকাল তেমন সুবিধা করতে পারেনি।