দিনের খবর প্রচ্ছদ প্রথম পাতা

অনলাইনে মোবাইলে দেওয়া যাবে ভ্রমণকর

নিজস্ব প্রতিবেদক: আকাশ, স্থল কিংবা জলপথে বিদেশে ভ্রমণের ক্ষেত্রে ভ্রমণকর পরিশোধ করতে হয়। ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে এ কর পরিশোধে ব্যয় হয় সময়। অনেক ক্ষেত্রে হতে হয় হয়রানির শিকার। তাই করসেবার মান বৃদ্ধির অংশ হিসেবে মোবাইল ব্যাংকিং ও অনলাইনে এ কর পরিশোধের পদ্ধতি চালু করেছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)।

সোনালী ব্যাংকের সহায়তায় অনলাইনে ভ্রমণকর পদ্ধতি চালু করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে জল ও স্থলপথে বিদেশে ভ্রমণকারীরা এ সুবিধা পাবেন। পর্যায়ক্রমে আকাশপথে অনলাইনে ভ্রমণ কর পরিশোধের পদ্ধতি চালু করা হবে। গতকাল রাজধানীর হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে অনলাইনে ভ্রমণ কর পরিশোধ পদ্ধতির উদ্বোধন করেন এনবিআর চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম।

অনুষ্ঠানে এনবিআর সদস্য (কর তথ্য ব্যবস্থাপনা ও সেবা) কানন কুমার রায় বলেন, আকাশ, স্থল ও জলপথে কোনো যাত্রীকে অন্য কোনো দেশে যেতে হলে ‘ভ্রমণকর আইন, ২০০৩’ অনুযায়ী ভ্রমণকর পরিশোধ করতে হয়। প্রতিদিন দেশ থেকে স্থলপথে প্রায় ২৫ হাজার মানুষ ভ্রমণে জন্য অন্য দেশে যায়, যাদের ৯৫ শতাংশকে ভ্রমণকর দিতে হয়। ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে এ কর পরিশোধ করতে গিয়ে ভ্রমণকারীরা অনেক ক্ষেত্রে বিড়ম্বনার শিকার হন। সেই বিড়ম্বনা দূর করতে সোনালী ব্যাংকের সহায়তায় অনলাইনে কর পরিশোধের পদ্ধতি চালু করা হয়েছে। ভ্রমণকারীরা ভিসা, মাস্টার কার্ড, আমেরিকান এক্সপ্রেস ও নেক্সাস ব্যবহার করে এ কর পরিশোধ করতে পারবেন। এছাড়া মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মধ্যে প্রাথমিকভাবে বিকাশ, রকেট ও ইউক্যাশের মাধ্যমে ভ্রমণকর পরিশোধ করতে পারবেন। শিউরক্যাশ ও নগদ ব্যবহার প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

তিনি বলেন, প্রাথমিকভাবে আজ থেকে যশোরের বেনাপোল কাস্টম হাউস, যশোর ভ্যাট কমিশনারেটের দর্শনা এবং খুলনা ভ্যাট কমিশনারেটের ভোমরা দিয়ে ভ্রমণকারীরা এ সুবিধা ভোগ করতে পারবেন। পর্যায়ক্রমে সব বন্দরে এ সুবিধা চালু করা হবে। আকাশপথে এ কর পরিশোধে কিছুটা জটিলতা থাকায় তা পরে চালু করা হবে। এনবিআরের ওয়েবসাইটে ট্রাভেল ট্যাক্স ফরমে ভ্রমণকারীদের পাসপোর্ট নম্বর, নাম, বয়স, বন্দরের নাম ও মোবাইল নম্বর দিতে হবে। অনলাইনে করলে একটি প্রিন্ট কপি আর মোবাইলে দিলে একটি নম্বর আসবে। ভ্রমণকারীরা বন্দর পার হওয়ার সময় কিউআর কোড স্ক্যান করলে সঙ্গে সঙ্গে কর পরিশোধের তথ্য চলে আসবে। ভ্রমণকারীরা এ কর অগ্রিম পরিশোধ করে রাখতে পারবেন। সোনালী ব্যাংকের যেকোনো শাখায় অনলাইনে এ কর পরিশোধ করা যাবে। সব জল, স্থল ও আকাশপথে অনলাইন পদ্ধতি চালুর আগ পর্যন্ত আগের মতোই সোনালী ও জনতা ব্যাংকে সনাতনী পদ্ধতিতে ভ্রমণ কর পরিশোধ করা যাবে।

এনবিআরের সিনিয়র সিস্টেম অ্যানালিস্ট কাজী মোহাম্মদ জিয়াউল হক জানান, আকাশপথে উত্তর আমেরিকা, দক্ষিণ আমেরিকা, ইউরোপ, আফ্রিকা, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ডসহ দূর প্রাচ্যের কোনো দেশে গমনের ক্ষেত্রে যাত্রীপ্রতি দুই হাজার ৫০০ টাকা এবং সার্কভুক্ত দেশে ৮০০ টাকা পরিশোধ করতে হয়। এছাড়া অন্যান্য দেশে এক হাজার ৮০০ টাকা ভ্রমণ কর দিতে হয়। স্থলপথে যেকোনো দেশে ভ্রমণে ৫০০ টাকা ও জলপথে ভ্রমণে ৮০০ টাকা দিতে হয়। পাঁচ বছরের অধিক কিন্তু ১২ বছরের অনধিক বয়সের যাত্রীদের ক্ষেত্রে দেশ অনুযায়ী করের অর্ধেক হারে পরিশোধ করতে হয়। পাঁচ বছর বা তার কম বয়সি যাত্রী, ক্যানসার আক্রান্ত রোগী, অন্ধ ব্যক্তি, বাংলাদেশি ও বিদেশি কূটনীতিক, তাদের পরিবার, বিমান ক্রু, হজ ও ওমরাহ যাত্রী এবং বিমানকর্মীদের ভ্রমণ কর দিতে হয় না। সোনালী ব্যাংক ও জনতা ব্যাংকে ভ্রমণ কর পরিশোধ করা যায়।

২০১৮-১৯ অর্থবছরে এক হাজার ১০৪ কোটি ৪০ লাখ টাকা ভ্রমণ কর আদায় হয়েছে। এর মধ্যে আকাশপথে প্রায় ৯৮৪ কোটি টাকা ও স্থলপথে ১২০ কোটি টাকা আদায় হয়েছে। ইমিগ্রেশনে অনলাইনে বা মোবাইলে ভ্রমণ কর পরিশোধ করতে ভ্রমণকারীদের এক থেকে দুই মিনিট লাগবে।

এনবিআর চেয়ারম্যান, সংশ্লিষ্ট সদস্য, প্রথম সচিব ও সংশ্লিষ্ট কমিশনার প্রতিদিন অনলাইনে ভ্রমণ কর পদ্ধতি মনিটরিং করতে পারবেন এবং প্রতিদিনের আপডেট তথ্য দেখতে পারবেন।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন ব্যাংকিং বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. আসাদুল ইসলাম, মহা হিসাবনিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক মুসলিম চৌধুরী এবং সোনালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আতাউর রহমান প্রধান উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে অনলাইন ও মোবাইলে ভ্রমণ কর পরিশোধ পদ্ধতির ডেমো তুলে ধরা হয়।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন
ট্যাগ »

সর্বশেষ..