বিশ্ব সংবাদ

অনলাইন কেনাকাটায় ৫১০ কোটি ডলারের রেকর্ড

থ্যাংকস গিভিং ডে

শেয়ার বিজ ডেস্ক : চলতি বছর থ্যাংকস গিভিং ডে-তে অন্য যে কোনো সময়ের তুলনায় অনলাইন কেনাকাটায় অনেক বেশি অর্থ ব্যয় করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকরা। এবারের উৎসবে ঘিরে তারা অনলাইন প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে ৫১০ কোটি ডলারের কেনাকাটা করেছেন। গত বছরের তুলনায় এটি ২১ দশমিক পাঁচ শতাংশ বেশি। সম্প্রতি অ্যাডোবি অ্যানালাইটিকসের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। খবর: এবিসি নিউজ। 

প্রতি বছর নভেম্বর মাসের চতুর্থ বৃহস্পতিবার যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রাজিলে এবং অক্টোবরের দ্বিতীয় সোমবার কানাডায় পালিত হয় থ্যাংকস গিভিং ডে। ঐতিহাসিকভাবে থ্যাংকস গিভিং ডে ধর্মীয় ও সাংস্কৃতিক একটা অনুষ্ঠান। থ্যাংকস গিভিং ডে’র মূল উদ্দেশ্য, পরিবার, প্রতিবেশী, বন্ধুবান্ধবসহ সবাই একত্র হয়ে সবার জীবনের প্রতিটি সাফল্যের জন্য দেশ ও জাতির সাফল্যের জন্য ঈশ্বরকে ধন্যবাদ জানান। খাবারের তালিকায় থাকে টার্কি রোস্ট, ক্র্যানবেরি সস, মিষ্টি আলুর ক্যান্ডি, স্টাফিং, ম্যাশড পটেটো এবং ঐতিহ্যবাহী পামকিন পাই। টার্কি ময়ূরের মতো বড় সাইজের বনমোরগ।

এ বছর করোনাভাইরাসের কারণে মানুষ এমনিতেই স্বশরীরে দোকানে যাওয়ার বদলে অনলাইনে কেনাকাটায় বেশি আগ্রহী। তার ওপর উৎসব উপলক্ষে বিভিন্ন ছাড় দেয়ায় বেচাকেনা বেড়েছে অনলাইন প্ল্যাটফর্মগুলোতে। যুক্তরাষ্ট্রে গত ২৬ নভেম্বর পালিত হয়েছে থ্যাংকস গিভিং ডে। অ্যাডোবি অ্যানালাইটিকস জানিয়েছে, এবারের উৎসবে মার্কিনিরা অনলাইনে ৫০ শতাংশ খরচই করেছেন স্মার্টফোন কেনায়। যেসব প্রতিষ্ঠান বা প্ল্যাটফর্মগুলোর কার্বসাইড পিকআপ সার্ভিস রয়েছে, ক্রেতারা তাদের দিকেই বেশি ঝুঁকেছেন। এ ধরনের সেবার ক্ষেত্রে সাধারণত ক্রেতারা অনলাইনে পণ্য কেনার পর সেটি হাতে পেতে কোনো নির্দিষ্ট স্থানে আসেন। তবে এর জন্য তাদের গাড়ি থেকে নামার দরকার হয় না, ফলে সামাজিক দূরত্ব বজায় থাকে।

তবে এ বছর অনলাইন বেচাকেনায় নতুন রেকর্ড হলেও তার পরিমাণ অ্যাডোবির পূর্বাভাসের চেয়ে বেশ কম। প্রতিষ্ঠানটির ধারণা ছিল, এবছর থ্যাংকস গিভিংয়ে অনলাইন কেনাকাটার পরিমাণ ৬০০ কোটি ডলার ছাড়িয়ে যাবে।

অ্যাডোবি অ্যানালাইটিকসের মতে, যুক্তরাষ্ট্রে থ্যাংকস গিভিংয়ের পরেরদিন ব্ল্যাক ফ্রাইডেতে অনলাইনে এক হাজার তিন কোটি এবং এরপর সাইবার মানডেতে এক হাজার ২৭০ কোটি ডলারের পণ্য বিক্রি হতে পারে।

করোনা সম্পর্কিত বিধিনিষেধের কারণে অনেক ক্রেতা দোকানে ঢুকতে না পেরে প্রয়োজনীয় পণ্য অনলাইনেই কিনবেন। এর কারণেই থ্যাংকস গিভিংয়ের পরেও অনলাইন কেনাকাটায় বাড়তি চাপ থাকতে পারে বলে জানিয়েছে অ্যাডোবি। এদিকে ঐতিহাসিক ‘থ্যাংকস গিভিং ডে’-তে বৃহস্পতিবার করোনায় যুক্তরাষ্ট্রে আক্রান্ত প্রায় ৯০ হাজার হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন, যা গত ১৬ দিনের মধ্যে সর্বোচ্চ। ‘থ্যাংকস গিভিং ডে’ এর আগের দিন বুধবার দেশটিতে করোনায় দুই হাজার ২৮৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। গত ৭ মে’র পর যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড এটি।

ইউএস সেন্টারস ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন (সিডিসি) ভবিষ্যদ্বাণী অনুসারে, আগামী চার সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রে করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা নতুন করে বেড়ে যেতে পারে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..