দিনের খবর প্রথম পাতা

অবণ্টিত লভ্যাংশের ২৬০ কোটি টাকা জমা

স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক: পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত নানা কোম্পানি তাদের অবণ্টিত লভ্যাংশের ২৬০ কোটি টাকা ক্যাপিটাল মার্কেট স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ডে (সিএমএসএফ) জমা দিয়েছে। গত ১৩ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এ অর্থ ফান্ডে জমা হয়েছে। তবে এ অর্থ ফান্ডে স্থানান্তরে নির্ধারিত সময় শেষ হয়ে গেলেও অনেক কোম্পানি থেকে এখনও জমা দেয়নি। নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) এ লভ্যাংশ জমা দেয়ার জন্য গত ৩০ আগস্ট পর্যন্ত সময় বেঁধে দিয়েছিল।

বিএসইসি সূত্রে জানা গেছে, কোম্পানিগুলো ২৬০ কোটি টাকা জমা দিলেও ৩৩৫ কোম্পানির আছে অবণ্টিত নগদ লভ্যাংশ ছিল প্রায় ৯৫৮ কোটি টাকা। তবে স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ডে জমা দেয়ার নির্দেশনার পরে অনেক কোম্পানি তাদের শেয়ারহোল্ডারদের মধ্যে তা বিতরণ করেছে। ফলে অবণ্টিত লভ্যাংশের পরিমাণ কমে এসেছে। তাই পুনরায় যাচাই করা ছাড়া বর্তমানে প্রকৃত অবণ্টিত লভ্যাংশের পরিমাণ বলা কঠিন। এ বিষয়ে পুনরায় যাচাই করা হবে।

এ বিষয়ে গত ১১ আগস্ট বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব পাবলিকলি লিস্টেড কোম্পানিজের (বিএপিএলসি) পক্ষ থেকে সময় বাড়ানোর আবেদন করা হয়েছিল। কিন্তু ২৫ আগস্ট বিএসইসির পক্ষ থেকে তা নাকচ করে দেয়া হয়।

বিএসইসির অনুসন্ধানে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত নানা কোম্পানিতে শেয়ারহোল্ডারদের অদাবিকৃত ২১ হাজার কোটি টাকার লভ্যাংশ পড়ে থাকার বিষয়টি ওঠে আসে। এ লভ্যাংশ পড়ে থাকার কারণ হিসেবে রয়েছেÑশেয়ারহোল্ডারদের ঠিকানা না পাওয়া, ওয়ারিশ নিয়ে জটিলতা প্রভৃতি। এ পরিস্থিতিতে ওই পড়ে থাকা লভ্যাংশকে পুঁজিবাজারের উন্নয়নে ব্যবহারের উদ্যোগ নেয় নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি।

এ ফান্ড পরিচালনা বা ব্যবহারের জন্য গত ২২ আগস্ট প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক মুখ্য সচিব ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান নজিবুর রহমানকে প্রধান করে ১০ সদস্যের পর্ষদ অনুমোদন দিয়েছে বিএসইসি।

অন্য সদস্যরা হলেনÑবিএসইসির নির্বাহী পরিচালক মো. সাইফুর রহমান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফাইন্যান্স বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক শেখ তানজিলা দ্বীপ্তি, ভোরের কাগজের সম্পাদক শ্যামল দত্ত, ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জর (ডিএসই) ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. তারিক আমিন ভূঁইয়া, চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) চেয়ারম্যান আসিফ ইব্রাহিম, সেন্ট্রাল ডিপোজিটরি বাংলাদেশ লিমিটেডের (সিডিবিএল) স্বতন্ত্র পরিচালক একেএম নুরুল ফজলে বাবুল, সেন্ট্রাল কাউন্টারপার্টি বাংলাদেশ লিমিটেডের (সিসিবিএল) পরিচালক ড. মোহাম্মদ তারেক, বিএপিএলসির সভাপতি আজম জে চৌধুরী, দি ইনস্টিটিউট অব কস্ট অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট অ্যাকাউন্টেন্টস অব বাংলাদেশের (আইসিএমএবি) সদস্য একেএম দেলোয়ার হোসেন। এ ফান্ড ব্যবস্থাপনার জন্য একজন চিফ অব অপারেশন (সিওও) পদে একজনকে মনোনয় দেবে বিএসইসি।

যেসব প্রতিষ্ঠানের কাছে শেয়ারহোল্ডারদের তিন বছরের বেশি সময় ধরে অর্থ-শেয়ার ও নন রিফান্ডেড পাবলিক সাবস্ক্রিপশনের অর্থ রয়েছে, সেগুলো স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ডে স্থানান্তর করার নির্দেশ দেয়া হয়। লভ্যাংশ ঘোষণা বা অনুমোদনের দিন বা রেকর্ড ডেট থেকে তিন বছর হিসাবে পড়ে থাকা অর্থ তহবিলে জমা দিতে হবে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..