বিশ্ব সংবাদ

অভিজিতের কৃতিত্বে ভারত গর্বিত: মোদি

অভিজিতের কৃতিত্বে ভারত গর্বিত: মোদি

শেয়ার বিজ ডেস্ক: ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে গতকাল মঙ্গলবার সাক্ষাৎ করেছেন অর্থনীতিতে নোবেলজয়ী ভারতের অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায়। সাক্ষাতের পর অভিজিতের প্রশংসা করে মোদি বলেন, ‘ভারত তার জন্য গর্বিত।’ এ সাক্ষাৎকে তিনি ‘দারুণ’ বলেও মন্তব্য করেন। খবর: এনডিটিভি।

অভিজিতের নোবেল জয়ে শুরুতে বিজেপি নেতারা সেভাবে সরব হননি। বরং অভিজিৎকে বামপন্থি তকমা দিয়ে তার নীতিনির্ধারণী বিষয়ে সমালোচনায় মেতেছিলেন পীযূষ গোয়েলের মতো কেন্দ্রীয় বিজেপি নেতারা। এমন সমালোচনা ও বিতর্কের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী মোদির সঙ্গে সাক্ষাৎ হয়েছে অভিজিতের।

অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায় তার স্ত্রী অর্থনীতিবিদ এস্থার দুফলো এবং আরেক অর্থনীতিবিদ মাইকেল ক্রেমারের সঙ্গে সম্মিলিতভাবে ‘বিশ্বজুড়ে দারিদ্র্য বিমোচনে পরীক্ষামূলক পদ্ধতির জন্য’ ২০১৯ সালে অর্থনীতিতে নোবেল পুরস্কার পান।

অভিজিৎ নোবেল পাওয়ার পর টুইটারে তাকে মোদি অভিনন্দন জানালেও অনেকের মতে তা ছিল সাদামাটা। ১৪ অক্টোবর টুইটারে অভিনন্দন জানিয়ে মোদি বলেছিলেন, ‘দারিদ্র্য দূরীকরণে তিনি (অভিজিৎ) উল্লেখযোগ্য অবদান রেখেছেন।’

তবে অভিজিতের সঙ্গে সাক্ষাতের পরে দেওয়া মোদির টুইটটি বেশ উচ্ছ্বাসপূর্ণ। অভিজিতের প্রশংসায় পঞ্চমুখ তিনি। অভিজিতের সঙ্গে বৈঠকের পর দুজনের একটি ছবি প্রকাশ করে নরেন্দ্র মোদি টুইটারে লেখেন, ‘নোবেলজয়ী অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে বৈঠকটি দারুণ হয়েছে। মানুষের ক্ষমতায়নে তার ভাবাবেগ স্পষ্ট। বিভিন্ন বিষয়ে আমাদের সতেজ ও বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। ভারত তার কাজের জন্য গর্বিত। তার ভবিষ্যৎ উদ্যোগের জন্য শুভেচ্ছা জানাই।’

এর আগে নোবেল জয়ের পর অভিজিতের বিষয়ে বিজেপি নেতারা বলেন, তার অর্থনীতির তত্ত্ব ভারতে খাটে না। মহাত্মা গান্ধীরনীতিই ভারতের অর্থনৈতিক উন্নয়নের সোপান।

সর্বশেষ..