প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে এডিবির ভাইস প্রেসিডেন্টের মতবিনিময়

নিজস্ব প্রতিবেদক: অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সঙ্গে গতকাল রাজধানীর হোটেল ওয়েস্টিনে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) ভাইস প্রেসিডেন্ট (অপারেশন-১) শিজিন চ্যানের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভার শুরুতে মন্ত্রী স্বাধীন বাংলাদেশের মহান স্থপতি ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করেন। জাতির পিতা সোনার বাংলা বিনির্মাণের যে স্বপ্ন দেখেছিলেন সে স্বপ্ন পূরণে তারই সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার দক্ষ ও যোগ্য নেতৃত্বের মাধ্যমে ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে একটি উন্নত ও সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে গড়ে তোলার জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে এবং বিশেষ করে কভিড মহামারির ক্ষতিকর প্রভাব উত্তরণে দ্রæততার সঙ্গে বাংলাদেশকে সহায়তা করার জন্য ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

তিনি কভিড-১৯ এর স্বাস্থ্য খাতে নেতিবাচক প্রভাব উত্তরণে প্রধানমন্ত্রীর ২২.০৮ বিলিয়ন ডলার যা জিডিপির ৬.২৩% প্রণোদনা প্যাকেজ বাস্তবায়নের বিষয়টি এডিবির ভাইস প্রেসিডেন্টকে অবহিত করেন। এডিবি বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান উন্নয়ন সহযোগী। এডিবি এ যাবৎ বাংলাদেশ সরকারকে ২৭ বিলিয়ন ডলারের সহায়তা দিয়েছে।

উল্লেখ্য, এডিবি কভিডের কারণে বাংলাদেশের সম্ভাব্য অর্থনৈতিক প্রভাব উত্তরণের লক্ষ্যে এক বিলিয়ন ডলার বাজেট সহায়তা,  স্বাস্থ্য খাতে ১০০ মিলিয়ন ডলার, কভিড ভ্যাক্সিন ক্রয়ের জন্য ৯৪০ মিলিয়ন ডলার ঋণ, ৯.৩৪ মিলিয়ন ডলার অনুদান এবং দ্রæত অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার, কর্মসৃজন, অভিবাসী শ্রমিকদের দক্ষতা উন্নয়নে ১৫০ মিলিয়ন ডলার সহায়তা প্রদানের জন্য অর্থমন্ত্রী এডিবিকে ধন্যবাদ জানান।

বিশেষ করে এলডিসি থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণ-পরবর্তী চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় এডিবিকে আরও উন্নয়ন সহযোগিতা প্রদানের অনুরোধ জানান। সামগ্রিকভাবে উন্নয়ন অভীষ্ট অর্জনে ভবিষ্যতে বাংলাদেশ ও এডিবির মধ্যে এ ধরনের সহযোগিতা অব্যাহত রাখার বিষয়ে গুরুত্বারোপ করেন।

এ মহামারি কাটিয়ে উঠতে বাংলাদেশের সামাজিক এবং অর্থনৈতিক নিরাপত্তা পুনরুদ্ধারে এডিবি শুরু থেকেই বাংলাদেশের পাশে থেকে সহযোগিতা করছে এবং ভবিষ্যতেও বাংলাদেশের পাশে সবসময় এডিবি থাকবে বলে ভাইস প্রেসিডেন্ট আশা ব্যক্ত করেন।

সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির, অর্থ বিভাগের সিনিয়র সচিব আব্দুর রউফ তালুকদার, অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব ফাতিমা ইয়াসমিন, এডিবির ডেপুটি ডিরেক্টর জেনারেল (সাউথ এশিয়ান ডিপার্টমেন্ট) মনমোহন পরকাশ এবং বাংলাদেশে এডিবির কান্ট্রি ডিরেক্টর এডিমন গিনটিং।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশে উন্নয়ন সহায়তার ক্ষেত্রে এডিবি প্রধানত বিদ্যুৎ, পানিসম্পদ, কৃষি, স্থানীয় সরকার, শিক্ষা, পরিবহন, জ্বালানি, সুশাসন, আর্থিক এবং বেসরকারি খাতকে প্রাধান্য দেয়।