প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

আইন না মানার অভিযোগ: ১৪ শেয়ার ব্যবসায়ীকে সতর্কতা দুই প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা

 

নিজস্ব প্রতিবেদক: পুঁজিবাজার-সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন আইন না মানার অভিযোগে দুটি প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা করেছে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। একই সঙ্গে আরও দুটি কোম্পানি, পাঁচ পরিচালক ও একজন কোম্পানি সচিবসহ আট শেয়ার ব্যবসায়ীকে সতর্ক করেছে সংস্থাটি।

গতকাল মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত কমিশনের ৫৯৯তম সভায় লিবরা ইনফিউশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ আট পরিচালককে ১৬ লাখ টাকা এবং মিরর ফাইন্যান্স ম্যানেজমেন্ট লিমিটেডকে দুই লাখ টাকা জরিমানা করার সিদ্ধান্ত নেয় বিএসইসি। সাফকো স্পিনিং এবং কোম্পানিটির নিরীক্ষক মালেক সিদ্দিকী ওয়ালি, ফ্যামিলিটেক্স বিডি ও কোম্পানিটির পাঁচ পরিচালক এবং কোম্পানি সচিবসহ আট শেয়ার ব্যবসায়ীকে চলতি বছরের জানুয়ারিতে বিএসইসির এনফোর্সমেন্ট বিভাগ থেকে সতর্ক করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

কমিশন সভা সূত্রে জানা গেছে, লিবরা ইনফিউশন ২০১৪-১৫ অর্থবছরের নিরীক্ষিত আর্থিক হিসাবে বাংলাদেশ হিসাবমান (বিএএস) লঙ্ঘন করায় প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ (স্বতন্ত্র পরিচালক ব্যতীত) প্রত্যেক পরিচালককে দুই লাখ টাকা জরিমানা করার সিদ্ধান্ত নেয় বিএসইসি। বিএএস’র ১, ২৪ ও ৩৭ ধারা অনুযায়ী আর্থিক হিসাব তৈরি করেনি লিবরা ইনফিউশন। এছাড়া কমিশনের চাহিদা অনুযায়ী তথ্যও সরবরাহ করেনি। এতে সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ অধ্যাদেশ, ১৯৬৯-এর সেকশন ১১(২) ধারা লঙ্ঘন হয়েছে।

এছাড়া ২০১৫-১৬ অর্থবছরের প্রথম অর্ধবার্ষিকের আর্থিক হিসাবে বিএএস ১, ৩৭, বিএফআরএস’র ৩.২৭, ৩.২৯-৩.৩৩ এবং কিউসি ১২ ও ১৩ ধারা পরিপালন না করার মাধ্যমে সিকিউরিটিজ আইন লঙ্ঘন করা হয়েছে। যে কারণে প্রতিষ্ঠানটির পরিচালকদের জরিমানা করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবারের কমিশন সভায় ডিএসইর স্টেকহোল্ডার মিরর ফাইন্যান্সিয়াল ম্যানেজমেন্টকে দুই লাখ টাকা জরিমানা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএসইসি। বিভিন্ন অনিয়মের কারণে এ জরিমানা করা হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটি ডিপি রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট যথাসময়ে নবায়ন না করার মাধ্যমে ডিপোজিটরি (ব্যবহারিক) প্রবিধানমালা, ২০০৩-এর প্রবিধান ৩০(৭) লঙ্ঘন করেছে। এছাড়া শাখা ব্যবস্থাপক ও কমপ্লায়েন্স অফিসার না রেখে কমিশনের ডিরেকটিভ এসইসি/সিএমআরআরসিডি/২০০২-৯০/৩৪ লঙ্ঘন, নন-মার্জিনেবল ‘জেড’ ক্যাটাগরির শেয়ারে মার্জিন ঋণ দেওয়ার মাধ্যমে এসইসি/সিএমআরআরসিডি/২০০১-৪৩/১৬৯ লঙ্ঘন, হিসাব বিবরণীতে মার্জিন সুদ যথাযথভাবে প্রদর্শন না করার মাধ্যমে সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ রুলস, ১৯৮৭-এর রুলস (৮) এবং ৫(১) লঙ্ঘন, পাঁচ লাখ টাকার ওপরে নগদ লেনদেনের মাধ্যমে সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ রুলস, ১৯৮৭-এর রুলস ৮(১) (ইই)(১) লঙ্ঘন এবং মাসিক নিট ক্যাপিটাল ব্যালেন্স যথাযথভাবে প্রস্তুত না করার মাধ্যমে সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ অধ্যাদেশ, ১৯৬৯-এর সেকশন ১৮ লঙ্ঘন করেছে।

বিএসইসি সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছরের জানুয়ারিতে বিএসইসির এনফোর্সমেন্ট বিভাগ রাইট শেয়ার ডকুমেন্টে ভুল তথ্য দেওয়ায় সাফকো স্পিনিং ও কোম্পানিটির নিরীক্ষক মালেক সিদ্দিকী ওয়ালিকে সতর্ক করেছে। পাশাপাশি ভবিষ্যতে এ ধরনের কাজ করবে না মর্মে তারা কমিশনের কাছে মুচলেকাও দিয়েছে। এদিকে ফ্যামিলিটেক্স বিডির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও কোম্পানি সচিবসহ সব পরিচালককে সতর্ক করেছে বিএসইসি।

এছাড়াও জানুয়ারিতে আট শেয়ার ব্যবসায়ীকে সতর্ক করে চিঠি দিয়েছে বিএসইসি। এসব ব্যবসায়ী হলেনÑলংকাবাংলা সিকিউরিটিজের গ্রাহক আনোয়ার হোসেন টিটু ও আনোয়ারা বেগম। এসসিএল সিকিউরিটিজের গ্রাহক মাহবুবুর রহমান ও সমালিহা ফাররুজ, এমটিবি সিকিউরিটিজের গ্রাহক বিশ্বজিৎ দাস, ওয়ান সিকিউরিটিজের গ্রাহক গোলাম মোস্তফা এবং এনবিএল সিকিউরিটিজের গ্রাহক মো. আবদুল হাই ও সৈয়দা রাবেয়া।

বিএসইসি সূত্রে জানা গেছে, জানুয়ারিতে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) স্টেকহোল্ডার সুপার শেয়ার সিকিউরিটিজকে দুই লাখ টাকা জরিমানা করেছে। এদিকে হলি সিটি সিকিউরিটিজের জরিমানার পরিমাণ সাত লাখ টাকা থেকে দুই লাখ কমিয়ে পাঁচ লাখ টাকা নির্ধারণ করেছে বিএসইসি। যা আগামী ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে পরিশোধ করার নির্দেশ দেয় সংস্থাটি।