বিশ্ব প্রযুক্তি

আইফোন ১১ উৎপাদন বাড়াচ্ছে অ্যাপল

শেয়ার বিজ ডেস্ক: সরবরাহকারীদের আইফোন ১১ মডেলের উৎপাদন প্রায় ৮০ লাখ ইউনিট বাড়িয়ে দিতে বলেছে মার্কিন টেক জায়ান্ট অ্যাপল। গত মাসে উম্মোচিত এ মডেলের আশাতীত চাহিদার কারণেই বর্তমান উৎপাদন আদেশের অন্তত ১০ শতাংশ বাড়াতে বলছে কোম্পানিটি। নিক্কেই এশিয়ান রিভিউ গতকাল সংশ্লিষ্ট সূত্রের বরাত দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে। খবর রয়টার্স।
একটি সূত্রের উদ্বৃতি দিয়ে নিক্কেই বলেছে, উৎপাদন আদেশ দেওয়ার ক্ষেত্রে শুরুর দিকে অ্যাপল বেশ রক্ষণশীল ছিল। ফলে গত বছরের নতুন আইফোনের তুলনায় এবার কমসংখ্যক আইফোন উৎপাদনের আদেশ দেওয়া হয়েছিল। সূত্রটি দাবি করছে, এখন উৎপাদন বাড়িয়ে দেওয়ার ফলে আইফোন ১১-এর মোট উৎপাদন গত বছরের তুলনায় অনেক বাড়বে।
তবে নতুন আইফোনের ক্রয়াদেশ বৃদ্ধি মূলত স্বল্পমূল্যের আইফোন ১১ ও আইফোন ১১ প্রো মডেলটি কেন্দ্র করেই। সবচেয়ে দামি আইফোন ১১ প্রো ম্যাক্স মডেলটির উৎপাদন আদেশ এরই মধ্যে সংশোধন করেছে অ্যাপল। এ ফোনের দাম শুরুই হয়েছে এক হাজার ৯৯ ডলার থেকে।
এদিকে ক্রয়াদেশ প্রবণতার ওপর ভিত্তি করে অ্যাপলের পক্ষ থেকে উৎপাদন আদেশ বাড়ানো হলেও এ নিয়ে এখনও সংশয়মুক্ত নন সরবরাহকারীরা। তাদের আশঙ্কা, এ চাহিদা বেশিদিন স্থায়ী হবে না। সরবরাহকারী একটি কোম্পানির নির্বাহী পর্যায়ের এক কর্মকর্তা নিক্কেইকে বলেন, এখন চাহিদা ভালো। তবে খুব আশাবাদী হওয়ার আগে আমাদের সতর্ক হতে হবে। তার পরও আমি আশা করব, এবারের বিক্রয় মৌসুম গত বছরের চেয়ে দীর্ঘ হবে। এ ব্যাপারে জানতে রয়টার্সের পক্ষ থেকে অ্যাপলের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে অফিস টাইমের বাইরে কথা বলতে অস্বীকৃতি জানানো হয়।
উল্লেখ্য, গত সেপ্টেম্বরে তিনটি নতুন আইফোন উম্মোচন করেছে অ্যাপল। এর মধ্যে একটি আইফোনের (আইফোন ১১) দাম ৬৯৯ ডলার রাখা হয়েছে। যদিও আপগ্রেডেড ডিভাইসটিতে অ্যাপলের সর্বশেষ সংস্করণের উন্নত ক্যামেরা ফিচার রয়েছে। যেখানে গত বছর অ্যাপলের সবচেয়ে কম দামি আইফোনটির (আইফোন এক্সআর) দাম ছিল ৭৪৯ ডলার।

সর্বশেষ..