দিনের খবর প্রচ্ছদ প্রথম পাতা

আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে সাড়ে ৬৩ হাজার

ডেঙ্গুতে ১৬৯ জনের মৃত্যুর তথ্য পেয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর

নিজস্ব প্রতিবেদক: ডেঙ্গুতে মৃত্যুর ১৬৯টি ঘটনার তথ্য পেয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর। এর মধ্যে ৮০টি মৃত্যুর ঘটনা পর্যালোচনা করেছে রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর)। পর্যালোচনার পর ৪৭টি মৃত্যু ডেঙ্গুতে হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে পর্যালোচনা কমিটি। এদিকে গতকাল সকাল ৮টা পর্যন্ত ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা সাড়ে ৬৩ হাজার ছাড়িয়ে গেছে।
গতকাল স্বাস্থ্য অধিদফতরে আয়োজিত সংবাদ ব্রিফিংয়ে এসব তথ্য জানান আইইডিসিআরের পরিচালক অধ্যাপক মীরজাদী সেব্রিনা। তিনি জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় ঢাকা ও ঢাকার বাইরের বিভিন্ন হাসপাতালে এক হাজার ২৯৯ জন নতুন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছেন।
এদিকে রোববার মাদারীপুরের শিবচরে ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে সুমি আক্তার (৩০) নামে এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে। শনিবার মধ্যরাতে উন্নত চিকিৎসার জন্য শিবচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ঢাকায় নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। সুমি আক্তার উপজেলার কাঁঠালবাড়ী ঘাট এলাকার স্পিডবোটচালক আনোয়ার ফকিরের স্ত্রী।
শিবচর উপজেলা পরিবার ও পরিকল্পনা কর্মকর্তা মো. আবদুল মোকাদ্দেস বলেন, ‘ডেঙ্গু আক্রান্ত সুমির শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে গতকাল রাতে তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। হাসপাতালে নেওয়ার পথেই তিনি প্রাণ হারান।’ বর্তমানে শিবচর হাসপাতালে ডেঙ্গু আক্রান্ত ২৪ জন রোগী ভর্তি আছেন বলে তিনি জানান।
এদিকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে ৫৫ বছর বয়সী ফজলুর রহমান নামে একজন মারা গেছেন। তার বাসা রাজধানীর দক্ষিণ বনশ্রী এলাকায়।
চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার রাত দেড়টার দিকে তার মৃত্যু হয় বলে হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল একেএম নাসির উদ্দিন জানান।
তিনি বলেন, ঢাকা মেডিক্যালে ‘ডেথ রিভিউ’ প্রক্রিয়া চালু হওয়ায় ফজলুর রহমান ডেঙ্গুতে মারা গেছেন কি না, তা এখনই বলতে চান না তারা।
অন্যদিকে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে নতুন রোগী ভর্তির হার সবচেয়ে কমে আসার পরদিনই আবার বেড়েছে। স্বাস্থ্য অধিদফতরের হেলথ ইমারজেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের তথ্য অনুযায়ী, শনিবার সকাল ৮টা থেকে রোববার সকাল ৮টা পর্যন্ত দেশের সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলোয় নতুন করে এক হাজার ২৯৯ জন রোগী ভর্তি হয়েছেন।
গত শনিবারের তুলনায় এই সংখ্যা ১২০ জন বেশি। গত শনিবার সারা দেশে নতুন রোগী ছিলেন এক হাজার ১৭৯। গত ২৪ ঘণ্টায় ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালগুলোয় ভর্তি হয়েছেন ৬০৭ জন, ঢাকার বাইরে ভর্তি হন ৬৯২ জন।
এর আগের ২৪ ঘণ্টায় ঢাকায় ৫৭০ জন এবং ঢাকার বাইরে ৬০৯ জন ডেঙ্গুজ্বর নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। বছরের শুরু থেকে এখন পর্যন্ত সারা দেশে ৬৩ হাজার ৫১৪ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের মধ্যে ৫৭ হাজার ৪০৫ জন রোগী ছাড়পত্র পেয়েছেন বলে স্বাস্থ্য অধিদফতর জানিয়েছে। হাসপাতালগুলোয় এখন ভর্তি রয়েছেন পাঁচ হাজার ৯৪০ জন ডেঙ্গু রোগী। এর মধ্যে ঢাকার হাসপাতালগুলোয় তিন হাজার ২৬৮ জন এবং সারা দেশে দুই হাজার ৬৭২ জন।
গণমাধ্যমে আসা মৃত্যুর তথ্যগুলোও আইইডিসিআর পর্যালোচনা করছে জানিয়ে ফ্লোরা বলেন, ‘সব হাসপাতাল থেকে তথ্য পেতে আমাদের দেরি হয়ে যায়। তারপর রোগীর রক্ত নমুনা পরীক্ষার পর আমরা নিশ্চিত হয়ে বলতে পারি, তিনি ডেঙ্গুতে মারা গেছেন কি না। সব হাসপাতাল তৎক্ষণাৎ তথ্য দেয় না। আইইডিসিআরও পরিবারের কাছ থেকে তথ্য নেয়। তবে আমাদের যে হটলাইন নাম্বার আছে একটা, তাতে মৃত্যুর কোনো তথ্য আসেনি।
ফ্লোরা জানান, সব বিভাগের মধ্যে বরিশালে ডেঙ্গু আক্রান্তের হার বেশি। আইইডিসিআর সেখানে এপিডেমিকাল ও এন্টোমোলোজিকাল সার্ভে করছে।
গত ২৪ ঘণ্টায় ঢাকায় ৬০৭ জন, ঢাকা শহর ব্যতীত ঢাকা বিভাগের অন্য জেলায় ১৭৪, চট্টগ্রাম বিভাগে ৮৪, খুলনা বিভাগে ১৬৬, রংপুর বিভাগে ২৮, রাজশাহী বিভাগে ৭৮, বরিশাল বিভাগে ১২৬, সিলেট বিভাগে ১০ ও ময়মনসিংহ বিভাগে ২৬ জন ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।
গত জুনে ঢাকায় ডেঙ্গুর প্রকোপ দেখা দেওয়ার পর ব্যাপকতা বাড়ে জুলাইয়ে; সরকারি হিসাবেই সে সময় রেকর্ড ১৬ হাজার ২৫৩ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হন।
আগস্টের প্রথম সপ্তাহে ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা আগের মাসের তুলনায় দ্বিগুণের বেশি বেড়ে যায়; ৭ আগস্ট একদিনে সর্বোচ্চ দুই হাজার ৪২৮ জন ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন।

 

সর্বশেষ..