বিশ্ব সংবাদ

আগুন লাগার পর রুশ উড়োজাহাজের জরুরি অবতরণ, নিহত ৪১

শেয়ার বিজ ডেস্ক: আকাশে উড্ডয়নের কিছুক্ষণের মধ্যেই আগুন লেগে যাওয়ায় মস্কোর বিমানবন্দরে যাত্রীবাহী একটি রুশ উড়োজাহাজ জরুরি অবতরণ করে। তবে আগুনে প্রাণ হারান ৪১ জন। উড়োজাহাজটির ৭৮ যাত্রীর মধ্যে ৩৭ জনকে জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে। গত রোববার স্থানীয় সময় মধ্যরাতে এ ঘটনা ঘটে। খবর: বিবিসি।
উড়োজাহাজটি শেরেমেতেভো বিমানবন্দর থেকে উড্ডয়নের কিছুক্ষণের মধ্যেই এ ঘটনা ঘটে। পাইলট জরুরি অবতরণের জন্য বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের কাছে বার্তাও পাঠিয়েছিলেন। বিমানটি মারমানস্ক যাওয়ার কথা ছিল। উড়োজাহটিতে আগুন লাগার কারণ তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি।
দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে গঠিত তদন্ত কমিটি বলছে, অগ্নিকাণ্ডে এরোফ্লোট এয়ারলাইনের উড়োজাহাজটি বিধ্বস্ত হওয়ার ঘটনায় একজন নারী কর্মীসহ মোট ৪১ জনের মৃত্যু হয়েছে। নিহতদের ৪১ জনের মধ্যে দুজন শিশু রয়েছে।
সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, আগুন লেগে যাওয়া একটি বিমান থেকে জরুরি সøাইড ব্যবহার করে যাত্রীরা বেরিয়ে আসছেন। প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রথমবার জরুরি অবতরণে ব্যর্থ হয়ে বিমানটি দ্বিতীয়বারের চেষ্টায় জরুরি অবতরণ করে।
উড্ডয়নের পরপরই সুখোই সুপারজেট-১০০ উড়োজাহটিতে যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা দেয়। এক বিবৃতিতে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ জানায়, জরুরি অবতরণের পর রানওয়েতে উড়োজাহটির ইঞ্জিনে আগুন ধরে যায়। উড়োজাহাজ ক্রুরা যাত্রীদের বাঁচাতে যথাসাধ্য চেষ্টা করেছেন। যাত্রীদের উদ্ধারে তারা মাত্র ৫৫ সেকেন্ড সময় পেয়েছিলেন।
দুর্ঘটনায় বেঁচে যাওয়া এক যাত্রী বলেন, ‘যারা বেঁচে গেছেন, তারা অলৌকিকভাবে বেঁচে ফিরেছেন।’
মিখাইল সাভেচেঙ্কো নামের ওই যাত্রী দাবি করেছেন, উড়োজাহাজটি যখন বিস্ফোরিত হয়ে আগুনের গোলায় পরিণত হয়, তখন তাতে ছিলেন তিনি। কিন্তু তিনি লাফ দিয়ে নামতে সক্ষম হয়েছেন। সামাজিক মাধ্যমে মিখাইল একটি ভিডিও পোস্ট করেছেন। এতে দেখা যায় জ্বলন্ত বিমানের যাত্রীরা আতঙ্কে ছোটাছুটি করছেন। তিনি লিখেছেন, বন্ধুরা, আমার কিছু হয়নি। আমি বেঁচে আছি এবং সশরীরে আছি।
বেঁচে যাওয়া আরেক যাত্রী দিমিত্রি লেবুশকিন জানান, তিনি ফ্লাইট অ্যাটেনডেন্টদের কাছে কৃতজ্ঞ। আমার বেঁচে যাওয়ার জন্য তাদেরই শুধু ধন্যবাদ প্রাপ্য।

সর্বশেষ..