দিনের খবর প্রচ্ছদ শেষ পাতা সুশিক্ষা

আধুনিক মেডিকেল সেন্টার স্থাপনে দীর্ঘসূত্রতা

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়

হারুনুর রশিদ, জবি: জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) শিক্ষার্থীদের উন্নত চিকিৎসাসেবা নিশ্চিতের লক্ষ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের রফিক ভবনের নিচতলায় তৈরি করা হচ্ছে আধুনিক মেডিকেল সেন্টার। তিন কক্ষবিশিষ্ট অত্যাধুনিক মেডিকেল সেন্টারের কার্যক্রমে তিন দফা মেয়াদ বাড়িয়ে আগামী ফেব্রুয়ারিতে শেষ হবে বলে জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান প্রকৌশলী ইঞ্জিনিয়ার হেলাল উদ্দিন পাটোয়ারী।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, তিনটি রুমের মধ্যে একটিমাত্র রুমের টাইলসের কাজ শেষ হয়েছে। প্রত্যেকটা রুমের রঙের কাজ এবং অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি আনার কাজ এখনও বাকি রয়েছে। মাত্র কয়েকজন শ্রমিক টাইলস ও রঙের কাজ করছেন। এখনও বাকি রয়েছে অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি বসানোর কাজও। গত ডিসেম্বরের মধ্যে মেডিকেল সেন্টারের কাজ শেষ হওয়ার কথা। কিন্তু ওই কাজের

দায়িত্ব পাওয়া ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের সøথ কাজের গতিতে জানুয়ারি মাসেও অর্ধেকের বেশি কাজ অসম্পূর্ণ রয়ে গেছে।

জানা যায়, ২০ হাজার শিক্ষার্থীর জন্য পুরোনো মেডিকেল সেন্টারটি অপ্রতুল ও অপর্যাপ্ত। গত বছরের জুলাই মাসে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী মেডিকেল সেন্টারকে সম্প্রসারণের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের রফিক ভবনের নিচতলা নির্ধারণ করা হয়। সেখানে ডাক্তারদের বসার জন্য আলাদা জায়গা, প্যাথলজিক্যাল ল্যাব এবং ছেলেমেয়েদের জন্য আলাদা ওয়ার্ড করা হচ্ছে। শিক্ষার্থীদের জন্য প্যাথলজিক্যাল সেবার মধ্যে ব্লাড টেস্টসহ বিভিন্ন পরীক্ষার যন্ত্রপাতি ও ব্যবস্থা থাকবে। এছাড়া আইসিইউয়ের আদলে একটি এসি কক্ষ স্থাপন করা হবে। তারই ধারাবাহিকতায় রফিক ভবনের নিচতলায় অত্যাধুনিক মেডিকেল সেন্টার স্থাপনের কাজ শুরু করা হয় গত অক্টোবরে।

মেডিকেল সেন্টার নির্মাণকাজের অগ্রগতি সম্পর্কে ঠিকাদার কর্মকর্তা হিমেলুর রহমান বলেন, নতুন মেডিকেল সেন্টার ও রেজিস্ট্রার দপ্তরের জন্য নির্ধারিত কক্ষগুলোয় দ্রুত কাজ চলছে। শ্রমিকরা তাদের কাজ নিয়মিত করে যাচ্ছেন। এরই মধ্যে প্রায় ৬০ শতাংশ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। খুব শিগগিরই মেডিকেল সেন্টারের যাবতীয় কাজ সম্পন্ন হবে বলে আশা করা যায়।

এ বিষয়ে প্রধান প্রকৌশলী মো. হেলাল উদ্দিন পাটোয়ারী শেয়ার বিজকে বলেন, ‘আমি দায়িত্ব নেয়ার আগেই এই কাজ শুরু হয়েছে। মেডিকেল সেন্টারের কাজ পাওয়া ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের মেয়াদ ছিল ২২ ডিসেম্বর। কিন্তু কাজ শেষ না হওয়ায় তাদের সময় জানুয়ারি পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হয়েছে। এখন টাইলস ও রঙের কাজ চলছে। আমরা আশা করছি ফেব্রুয়ারিতে কাজ শেষ হবে।’

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..