প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

আবারও নিলামে মোরশেদ মুরাদের ক্রিস্টাল স্টিল অ্যান্ড শিপব্রেকিং

সাইফুল আলম, চট্টগ্রাম: পাওনা আদায়ে চট্টগ্রামের ব্যবসায় মোরশেদ মুরাদ ইব্রাহিমের মালিকানাধীন মেসার্স ক্রিস্টাল স্টিল অ্যান্ড শিপব্রেকিং লিমিটেডের বন্ধকি সম্পত্তি আবারও নিলামে তুলছে রাষ্ট্রায়ত্ত বেসিক ব্যাংকের আগ্রাবাদ শাখা। প্রথম দফায় কোনো আগ্রহী ক্রেতা না-পাওয়ায় দ্বিতীয় দফা নিলামে তোলা হচ্ছে। ইতোমধ্যে ব্যাংকের পক্ষ থেকে নিলামের বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে। ৭ আগস্ট এ নিলাম অনুষ্ঠিত হবে। নিলামে চট্টগ্রামের সীতাকুন্ড উপজেলার আওতাধীন দুই দশমিক ২২ একর বন্ধকি সম্পত্তি বিক্রি করা হবে। এর আগে গত ২৮ মে এ সম্পত্তি নিলামে তোলা হয়েছিল।

বেসিক ব্যাংক সূত্রে জানা যায়, ক্রিস্টাল গ্রুপের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান মেসার্স ক্রিস্টাল স্টিল অ্যান্ড শিপব্রেকিং লিমিটেডের কাছে চলতি বছরের এপ্রিল পর্যন্ত পাওনা (সুদসহ) দাঁড়িয়েছে প্রায় ১৩০ কোটি ৯৪ লাখ টাকা। পাওনা আদায়ে বিভিন্ন সময় জানানো হলেও প্রতিষ্ঠানটির মালিকপক্ষ বারবার ‘সময় বৃদ্ধির’ নামে কালক্ষেপণ করেছে।

বেসিক ব্যাংক লিমিটেড আগ্রাবাদ শাখার জিএম মো. আবুল কালাম আজাদ শেয়ার বিজকে বলেন, ‘আমাদের ঋণগ্রহীতা প্রতিষ্ঠান মেসার্স ক্রিস্টাল স্টিল অ্যান্ড শিপব্রেকিং লিমিটেডের মালিক মোরশেদ মুরাদ ইব্রাহিমের বন্ধকি সম্পত্তি গত মে মাসে প্রথম নিলামে তুলেছিলাম। কিন্তু কোনো বন্ধকি সম্পত্তির ক্রয়ে আগ্রহী ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান না পাওয়ায় দ্বিতীয় দফায় আবারও নিলামে তোলা হচ্ছে এ সম্পত্তি।’

ঋণ গ্রহণ ও নিলামের ব্যাপারে গ্রুপটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোরশেদ মুরাদ ইব্রাহিমের সঙ্গে বেশ কয়েকবার যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি। তার ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানে গিয়ে সাক্ষাৎ পাওয়া যায়নি। ফলে তার মন্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

বাংলাদেশ ব্যাংকের হিসাব অনুযায়ী, প্রতিবছর সব ধরনের ব্যাংক খাতে বাড়ছে খেলাপি ঋণের পরিমাণ। ২০১৫-১৬ অর্থবছরের শেষে ব্যাংকগুলোর মোট খেলাপি ঋণ ছিল ৫২ হাজার ৫১৯ কোটি টাকা। আর ২০১৬-১৭ অর্থবছরের শেষে খেলাপি ঋণ দাঁড়িয়েছে ৬৩ হাজার ৩৬৫ কোটি টাকা। এ হিসাবে এক বছরের ব্যবধানে খেলাপি ঋণ বেড়েছে ১০ হাজার ৮৪৬ কোটি টাকা। যা মোট বিতরণকৃত ঋণের ১০ দশমিক ছয় শতাংশ। এ খেলাপি ঋণের বাইরে অবলোপন করা (যে ঋণ আদায়ের আশা ছেড়ে দিয়ে আর্থিক হিসাব থেকে বাদ দেওয়া হয়) ঋণের পরিমাণ ৪২ হাজার কোটি টাকা। সেই হিসেবে মোট খেলাপি ঋণের পরিমাণ এক লাখ কোটি টাকার বেশি হয়। আর গত অর্থবছরের জুন পর্যন্ত ব্যাংকগুলোর বিতরণ করা মোট ঋণের পরিমাণ ছয় লাখ ৩০ হাজার ১৯ কোটি ২৫ লাখ টাকা।

উল্লেখ্য, চট্টগ্রামের ব্যবসায়ী মুরশেদ মুরাদ ইব্রাহিমের মালিকাধীন বাণিজ্যিকভাবে জাহাজ পরিচালনা ব্যবসা, মাছ ধরার ট্রলার, প্লাস্ট্রিক পণ্যের রি-সাইকেলিং, ট্রেডিং ব্যবসা, জাহাজ ভাঙ্গার শীপ ইর্য়াড ব্যবসাসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সমন্বয়ে গড়েছেন ক্রিস্টাল গ্রুপ। এ গ্রুপের ক্রিস্টাল নেভিগেশন লিমিটেড, বে নেভেগেশন লিমিটেড, আইজি নেভেগেশন লিমিটেড, ক্রিস্টাল ল্যান্ডমার্ক লিমিটেড, ইব্রাহিম ফার্মস লিমিটেড, ম্যাক ট্রেড লিমিটেড, ক্রিস্টাল ফিশারিজ লিমিটেড, এমআরএফ ফিশারিজ, ফারুক অ্যান্ড সন্স লিমিটেড ইত্যাদি নামে একাধিক বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান আছে।