প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

আবারও হতাশ করলেন বোলাররা 

ক্রীড়া প্রতিবেদক: কোথায় লেন্থ, আর কোথায় লাইন? সব কিছুতেই যেন দিশাহারা বাংলাদেশের বোলাররা। যেন বল ছুড়তেই ভুলে গেছেন মাশরাফি বিন মুর্তজা-তাসকিন আহমেদরা। যার সুযোগটা আগের দুই ম্যাচের মতো গতকালও নিলেন দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটসম্যানরা। সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ম্যাচে কুইন্টন ডি কক, ফাফ ডু-প্লেসি ও অভিষিক্ত এইডেন মার্করাম চড়াও হন টাইগার বোলারদের ওপর। তাদের হাফসেঞ্চুরি-ঊর্ধ্ব ইনিংসে ভর করে সফরকারীদের বিপক্ষে ৬ উইকেটে ৩৬৯ রানের বিশাল সংগ্রহ দাঁড় করায় প্রোটিয়ারা। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ব্যাটিংয়েও সুবিধা করতে পারেননি ইমরুল-লিটনরা। ১৪.৪ ওভারে ৬১ রান তুলতেই ৫ উইকেট হারিয়েছে হাথুরুসিংহের শিষ্যরা।

ইস্ট লন্ডনের বাফেলো পার্কে গতকাল শুরু থেকেই ছন্নছাড়া বোলিং প্রদর্শন করে বাংলাদেশ। বলা যায় টাইগারদের বোলিংয়ে ছিল না কোনো পরিকল্পনার ছাপ। এর সঙ্গে ছিল বাজে ফিল্ডিংও, যা ভুগিয়েছে টাইগারদের। অবশ্য এর মাশুলটাও বেশ চড়া দামেই দিতে হয়েছে সফরকারীদের।

টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে কুইন্টন ডি কক ও টেম্বা বাভুমা ১১৯ রানে দারুণ শুরু এনে দেয় দক্ষিণ আফ্রিকাকে। তাদের উদ্বোধনী জুটি একবারের জন্য হলেও বুঝতে দেয়নি হাশিম আমলার অভাব। দলীয় ১৮ আর নিজের পঞ্চম ওভারে প্রথম সাফল্য পান মেহেদি হাসান মিরাজ। লং অনে লিটন দাসের ক্যাচ বানিয়ে ফিরিয়েছেন টেম্বা বাভুমাকে (৬৬)। দুই ওভার পর আরেক ওপেনার ডি কককেও (৭৩) ফিরিয়েছেন এ অফ স্পিনার। এরপর অভিষিক্ত এডেন মার্করাম ও অধিনায়ক ফাফ ডু-প্লেসি ঝড় তোলেন টাইগার বোলারদের ওপর। তাদের অসাধারণ ১৫২ রানের জুটিতে স্বাগতিকরা এগিয়ে যায় বিশাল স্কোরের দিকে। শেষ পর্যন্ত হ্যামস্ট্রিংয়ের চোটে পড়ে ব্যক্তিগত ৯৩ রানে মাঠ ছাড়তে বাধ্য হন ডু-প্লেসি। এর কিছুক্ষণ পর রান আউটে কাটা পড়েন মার্করাম (৬৬)। যে কারণে কিছুটা রান তোলার গতি কমে আসে প্রোটিয়াদের।

দ্বিতীয় ওয়ানডেতে বাংলাদেশি বোলারদের ওপর তাণ্ডব চালিয়েছিলেন এবি ডি ভিলিয়ার্স। কিন্তু গতকাল রুবেল হোসেনের বলে মাত্র ২০ রানে মাশরাফিকে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন। তারপরও স্বাগতিকরা বিশাল স্কোরের দেখা পেয়েছে ফারহান বেহারদিন ২৪ বলে ৩৩ ও কাগিসো রাবাদার ১১ বলে ২৩ রানের ওপর ভর করে।

বাংলাদেশের সেরা বোলার মেহেদী হাসান মিরাজ। গতকাল প্রথমবারের মতো দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ওয়ানডেতে মাঠে নেমে এ ডানহাতি নেন ৫৯ রানে ২ উইকেট।

দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের শুরু থেকেই বোলিংয়ে হতাশা চলছে বাংলাদেশের, যা থেকে কিছুতেই নিজেদের বের করতে পারছে না টাইগাররা। সামনে টি-টোয়েন্টি সিরিজ। এমনটা চললে ওই ফরম্যাটেও সফরকারীরা যে বেশ ভুগবেন, তা নির্দ্বিধায় বলা যায়।