প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

আব্দুন নূর তুষারের বিরুদ্ধে উকিল নোটিস

নিজস্ব প্রতিবেদক: কর্মকর্তাদের পদের নাম পরিবর্তনে ফেসবুক স্ট্যাটাসের জন্য আব্দুন নূর তুষারকে উকিল নোটিস পাঠিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক অফিসার্স কাউন্সিল। গত ২৬ মে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। নতুন নির্দেশনা অনুযায়ী মহাব্যবস্থাপকদের পদবি পরিবর্তন করে ‘পরিচালক’ এবং উপ-মহাব্যবস্থাপকরা ‘অতিরিক্ত পরিচালক’ নামে বিবেচিত হবেন।

বিষয়টি নিয়ে একটি ইংরেজি পত্রিকার নিউজ শেয়ার করেন আব্দুন নূর তুষার। ক্যাপশনে লিখেন ‘এ শিপ ইজ এ শিপ, হুয়াটএভার নেমস ইউ কল দেম। এ থিফ ইজ এ থিফ হুয়াটএভার প্রফেশন দে আর ইন’। ঘটনাটিকে কেন্দ্র করে ১ জুন আব্দুন নূরকে উকিল নোটিস পাঠানো হয়।

সংশ্লিষ্টরা জানান, স্বাধীনতার শুরুতে বাংলাদেশ ব্যাংকের বিদ্যমান অন্য সব পদের সঙ্গে এই পদ দুটিও সামঞ্জস্যপূর্ণ ছিল। বর্তমানে বাংলাদেশ ব্যাংকের অ্যান্ট্রি বা শুরুর পদ সহকারী পরিচালক। সেখান থেকে পদোন্নতি পেয়ে উপপরিচালক, পরের পদ যুগ্ম-পরিচালক। কিন্তু মাঝের দুটি পদ উপমহাব্যবস্থাপক ও মহাব্যবস্থাপক করা হয়। পদোন্নতি পর্যায়ে সর্বোচ্চ পদ আবার নির্বাহী পরিচালক। মাঝের পদ দুটি অন্য পদের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ না হওয়ায় দীর্ঘদিন তা পরিবর্তনের দাবি ছিল।

বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ও ডেপুটি গভর্নর পদ দুটি সরকারের চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ। বাংলাদেশ ব্যাংকে যোগদান করে পদোন্নতি পেয়ে একজন সর্বোচ্চ নির্বাহী পরিচালক হন।

বাংলাদেশ ব্যাংকের বৃহস্পতিবারের আদেশে ১৯৮৫ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি ও ১১ আগস্টের দুটি প্রশাসনিক পরিপত্রের প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়েছে। ওই পরিপত্রের মাধ্যমে পদ দুটির নাম পরিবর্তন করা হয়। এতে বলা হয়েছে, ২০২১ সালের ২১ নভেম্বর অনুষ্ঠিত পরিচালনা পর্ষদের সভার সিদ্ধান্তে বাংলাদেশ ব্যাংকের মহাব্যবস্থাপক এবং উপমহাব্যবস্থাপক পদের নাম পরিবর্তন করা হলো। পদের নাম পরিবর্তন করে অতিরিক্ত পরিচালক ও পরিচালক করা হলেও বেতনের গ্রেড আগেরটাই প্রযোজ্য হবে। আর অন্য কোনো প্রতিষ্ঠানের পদের নাম একই হলেও তাদের সঙ্গে বেতন কাঠামো সামঞ্জস্যপূর্ণ করা যাবে না। এছাড়া অন্যান্য পদের নাম অপরিবর্তিত থাকবে।