প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

আমরা নেটওয়ার্কস’র আইপিও অনুমোদন

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে পুঁজিবাজার থেকে অর্থ উত্তোলনের অনুমোদন পেয়েছে তথ্যপ্রযুক্তি খাতের কোম্পানি আমরা নেটওয়ার্কস লিমিটেড। কোম্পানিটিকে বুক বিল্ডিং পদ্ধতিতে ইলেকট্রনিক বিডিংয়ের মাধ্যমে কাট-অফ প্রাইস নির্ধারণের অনুমোদন দিয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

গতকাল বুধবার কমিশনের ৫৯৪তম সভায় এ অনুমোদন দেওয়া হয় বলে সংস্থাটির এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

আইপিও আবেদনের মাধ্যমে কোম্পানিটি ৫৬ কোটি ২৫ লাখ টাকা উত্তোলন করবে। এ টাকা দিয়ে কোম্পানির বিএমআরই, ডেটা সেন্টার প্রতিষ্ঠা, দেশের বিভিন্ন স্থানে ওয়াই-ফাই হটস্পট প্রতিষ্ঠা করা, আইপিওর কাজ ও ঋণ পরিশোধ করবে।

কোম্পানিটির ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৫ সমাপ্ত বছরের নিরীক্ষিত বিররণী অনুযায়ী শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে দুই টাকা ৫২ পয়সা। কোম্পানির শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য ২১ টাকা ৯৮ পয়সা।

এর আগে আমরা নেটওয়ার্কসের আইপিও আবেদনে সুপারিশ করবে না বলে সিদ্ধান্ত নেয় ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই)। করপোরেট গভর্ন্যান্স গাইডলাইন ও সর্বজনীন হিসাববছর পরিপালনে কোম্পানির ব্যর্থতার কারণেই এ অবস্থান নেয় ডিএসই। সম্প্র্রতি এক চিঠির মাধ্যমে বিএসইসিকে বিষয়টি জানিয়েছে ডিএসইর পরিচালনা পর্ষদ। এরপরে কোম্পানি এসব বিষয়ে সংশোধন আনলে ডিএসই সুপারিশ করে বলে জানা গেছে।

উল্লেখ্য, ২০০১ সালের ১০ জানুয়ারিতে কার্যক্রম শুরু করে আমরা নেটওয়ার্কস লিমিটেড। গত পাঁচ বছরে কোম্পানিটির টার্নওভার ও মুনাফা দ্বিগুণ বেড়েছে। খসড়া প্রসপেক্টাস পর্যালোচনায় দেখা যায়, ২০১১ সালে কোম্পানিটির টার্নওভার ছিল ৩৩ কোটি ৬৫ লাখ টাকা, যা ২০১৫ সালে এসে ৬৬ কোটি ২৯ লাখ টাকায় উন্নীত হয়েছে।

এ সময় মোট মুনাফা ১৩ কোটি ২৫ লাখ টাকা থেকে ২৬ কোটি ৪২ লাখ টাকায় দাঁড়িয়েছে। আর কর-পরবর্তী মুনাফা পাঁচ কোটি ৮০ লাখ টাকা থেকে ১২ কোটি টাকায় উন্নীত হয়েছে। ২০১১ সালে ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের এ কোম্পানির ইপিএস ছিল এক টাকা ৫৩ পয়সা, যা ২০১৫ সাল শেষে দুই টাকা ৫২ পয়সায় দাঁড়িয়েছে। ২০১১ সালে কোম্পানির নিট সম্পদমূল্য ছিল ২৩ কোটি ৪৩ লাখ টাকা, ২০১৫ সালে ৯৪ কোটি ৩১ লাখ টাকায় দঁাঁড়িয়েছে।

বুক বিল্ডিং পদ্ধতিতে টাকা সংগ্রহ করতে আমরা নেটওয়ার্কস চলতি বছরের ১০ এপ্রিল রাজধানীতে রোড শো করে। আমরা নেটওয়ার্কস লিমিটেড কর্তৃপক্ষ রোড শোতে জানায়, ১২ কোটি ৩৮ লাখ ৬১ হাজার ৫৮৫ টাকা ব্যয় হবে ঋণ পরিশোধে। কোম্পানির অবকাঠামোগত উন্নয়নে (বিএমআরই) ব্যয় হবে ১৫ কোটি ৫২ লাখ দুই হাজার ৫০০ টাকা। কোম্পানিটি ১৩ কোটি ৮০ লাখ ৮৭ হাজার ৬৪৪ টাকা দিয়ে ডেটা সেন্টার স্থাপন এবং ওয়াইফাই হটস্পট স্থাপনের জন্য ১৪ কোটি ৫৩ লাখ ৪৮ হাজার ২৭১ টাকা ব্যবহার করা হবে।

আমরা নেটওয়ার্কস লিমিটেড মূলত ব্রডব্যান্ড তথা উচ্চগতির ইন্টারনেট সেবা দিয়ে থাকে। এক দশক ধরে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে ইন্টারনেট সেবা দিয়ে আসছে প্রতিষ্ঠানটি। শুরুতে এর নাম ছিল গ্লোবাল অনলাইন সার্ভিসেস লিমিটেড। ইন্টারনেট সেবার পাশাপাশি ভিডিও সার্ভিল্যান্স, ভিডিও কনফারেন্স, কল সেন্টার, ওয়েবসাইট হোস্টিংসহ বিভিন্ন ধরনের সেবা দিয়ে থাকে।

কোম্পানির মূলধন ১০০ কোটি টাকা। আর পরিশোধিত মূলধন ৩৮ কোটি টাকা। আমরা নেটওয়ার্ক আইপিওতে আনতে ইস্যু ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করছে লংকাবাংলা ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড। ইস্যুটির রেজিস্ট্রারের দায়িত্বে রয়েছে আইসিবি ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড।

আমরা নেটওয়ার্কস তালিকাভুক্ত হলে পুঁজিবাজারে এটি হবে আমরা গ্রুপের দ্বিতীয় প্রতিষ্ঠান। ২০১২ সালে এ গ্রুপের প্রথম কোম্পানি হিসেবে বাজারে আসে আমরা টেকনোলজিস লিমিটেড। তখন ১৪ টাকা প্রিমিয়ামসহ ২৪ টাকা দরে কোম্পানিটি আইপিওতে বিনিয়োগকারীদের কাছে শেয়ার বিক্রি করে। এর মাধ্যমে বাজার থেকে ৫১ কোটি ৭৭ লাখ টাকা সংগ্রহ করে।

আইপিওতে আসার আগের বছর আমরা টেকনোলজিসের ইপিএস ছিল দুই টাকা ৬৩ পয়সা। ২০১৫ সালে এটি কমে হয় এক টাকা ৬৫ পয়সা। মুনাফা কমে যাওয়ায় বাজারে শেয়ারের দামও কমে যায়। এ গ্রুপের ১১টি প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এর মধ্যে পাঁচটি প্রতিষ্ঠান তথ্যপ্রযুক্তি খাতের বিভিন্ন ব্যবসায় যুক্ত। অন্য প্রতিষ্ঠানগুলো তৈরি পোশাক খাতসংশ্লিষ্ট।