সারা বাংলা

আমাদের অর্থনৈতিক উন্নয়নের কারণে মর্যাদা বেড়েছে

জাতীয় ভ্যাট দিবসে চট্টগ্রামের মেয়র

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম: বন্দরনগরী চট্টগ্রামে পালিত হয়েছে ‘জাতীয় ভ্যাট দিবস ও ভ্যাট সপ্তাহ ২০১৯’। এ উপলক্ষে গতকাল মঙ্গলবার সকালে শোভাযাত্রা ও নগরীর ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের বঙ্গবন্ধু কনফারেন্স হলে সেমিনারের আয়োজন করা হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন ও বিশেষ অতিথি ছিলেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য মারগুব আহমেদ। এ সময় সর্বোচ্চ ভ্যাট প্রধানকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে জাতীয় ও স্থানীয় পর্যায়ের ১৩ প্রতিষ্ঠানকে পুরস্কার দেওয়া হয়। এবারের ভ্যাট দিবসের প্রতিপাদ্য হলো ‘ভ্যাট দিচ্ছে জনগণ, দেশের হচ্ছে উন্নয়ন।’

সেমিনারে সভাপতিত্ব করের ভ্যাট কমিশনার মোহাম্মদ এনামুল হক। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন চট্টগ্রাম কাস্টমস কমিশনার মোহাম্মদ ফখরুল আলম। বক্তব্য দেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য মারগুব আহমেদ, চট্টগ্রামের কর কমিশনার ইকবাল হোসেন, আবুল কালাম কায়কোবাদ, মুনতাসির বিল্লাহ, সৈয়দ মোহাম্মদ আবু দাউদ, বন্ড কমিশনার মাহবুবুজ্জামান, চট্টগ্রাম উইম্যান চেম্বারের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আবিদা মোস্তফা, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন চেম্বারের সহসভাপতি এএম মাহবুব চৌধুরী।

প্রধান  অতিথির বক্তব্যে মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেছেন, দেশকে এগিয়ে নিতে হলে ভ্যাট প্রদানের বিকল্প নেই। সবাই ভ্যাট দিতে আগ্রহী। আমাদের মানসিকতায় পরিবর্তন নিয়ে আসা উচিত। রাষ্ট্র ব্যবসা করে না। তাই জনগণকে ভ্যাট, ট্যাক্স দিতে এগিয়ে আসতে হবে। বাংলাদেশে ৩০ ধরনের সামাজিক নিরাপত্তা ভাতা দেওয়া হয়। বড় বড় প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। জনগণ সুফল পাচ্ছেন। ১০ বছর আগের সঙ্গে এখনকার ইমিগ্রেশনে পার্থক্য উপলব্ধি করছেন আপনারা। এখন হেনস্তা করা হয় না। আমাদের অর্থনৈতিক উন্নয়নের কারণে মর্যাদা বেড়েছে। আমাদের ওপর নির্ভর করবে কত দ্রুত দেশ এগিয়ে যাবে। উন্নত বিশ্বে আইনের প্রয়োগ আছে, সবাই আইন মেনে চলে। আমাদেরও আইন মানতে হবে। ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। সংকীর্ণতা পরিহার করে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে দেশ বিনির্মাণে ভূমিকা রাখতে হবে।

অন্য বক্তারা বলেন, ভ্যাট আইন জনবান্ধব করা হয়েছে। ভ্যাট ব্যবসায়ীর আয় ব্যয়ের অংশ নয়। পণ্য কেনার সময় ভোক্তারা ভ্যাট দেন সরকারকে। এ ভ্যাট সংগ্রহ করেন ব্যবসায়ীরা। সরকারের মেগা প্রকল্প বাস্তবায়নে এ অর্থ ব্যয় হচ্ছে। ভ্যাট দান নয়, অবদান। স্বাধীনতার আগের প্রজš§ জানে, বটমলেস বাস্কেট বলা হয়েছিল আমাদের দেশকে। ৪০ বছর পর সেই দেশ সামাজিক নিরাপত্তার নজির হয়েছে। এর নায়ক করদাতারা।

জাতীয় পর্যায়ে সর্বোচ্চ ভ্যাট প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান কক্সবাজারের ওশান প্যারাডাইস, খাগড়াছড়ির ফোর স্টার এন্টারপ্রাইজ ও অরণ্য বিলাস, পটিয়ার বনফুল অ্যান্ড কোম্পানি, ষোলশহরের ব্র্যাক আড়ং, সীতাকুণ্ডের চৌধুরী টি ওয়্যার হাউস ও বান্দরবান সদরের হোটেল হিলভিউ রেসিডেন্সিয়ালকে পুরস্কার দেওয়া হয়। আর স্থানীয় পর্যায়ে আবুল খায়ের স্টিল মেল্টিং লিমিটেড, কর্ণফুলীর সুপার পেট্রো কেমিক্যাল লিমিটেড, চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ, এনঅ্যান্ডএন টি ওয়্যার হাউস, এমএম ইস্পাহানি লিমিটেড ও উত্তরা মোটরস লিমিটেডকে পুরস্কৃত করা হয়। বিশেষ সম্মাননা দেওয়া হয় বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনকে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..