মত-বিশ্লেষণ

আমার কেনা মেগাবাইট কি ভূতে ব্যবহার করে?

আমার এক সহকর্মী সমীরণ বিশ্বাস। সকালে অফিসে আসার পর দেখলাম, তিনি খুবই বিরক্ত। কারণ জিজ্ঞেস করতেই বললেন, মেজাজ খুব খারাপ। আমি পুণরায় জানতে চাইলাম, কি হয়েছে? সমীরণ দাদা বললেন, গত ১১-০১-২০২১ তারিখ দুপুরের সময় ২৯৯ টাকা দিয়ে ৫ জিবি ডেটা কিনেছিলাম, মেয়াদ ৩০ দিন অর্থাৎ ফেব্রুয়ারির ১০-০২-২০২১ তারিখ পর্যন্ত। অথচ পরের দিন ১২-০১-২০২১ তারিখ বিকালে ইন্টারনেট কানেকশন পাচ্ছিলাম না।

ভাবলাম, অনেক সময় নেটওয়ার্কে সমস্যা হয়। পরে হয়তো ঠিক হয়ে যাবে। কিন্তু প্রায় দুই ঘণ্টা চেষ্টা করার পরেও মোবাইলে কোন ইন্টারনেট পাচ্ছিলাম না। পরে মেগাবাইট চেক করতে যেয়ে মেসেজটা পেলাম- You are enjoying 5GB 299TK 30D Internet.Available Internet Balance 0MB Valid till 10/02/2021. এই এসএমএস পেয়ে আমিতো অবাক। শুন্য মেগাবাইট হয় কিভাবে? অথচ এই একদিনে এক থেকে দেড় মিনিট ইমোতে কথা বলেছি, যেহেতু পরিবার খুলনা থাকে এবং কিছু সময় নিউজ ব্রাউজ করেছিলাম।

চরম বিরক্তি নিয়ে আবার গতকাল অর্থাৎ ১২-০১-২০২১ তারিখ সন্ধ্যায় তিন দিন মেয়াদি ১ জিবি ডেটা প্যাকেজ ৩৮ টাকা দিয়ে কিনলাম। আজ সকালে অর্থাৎ ১৩-০১-২০২১ তারিখ অফিসে আসার আগে খুলনায় মেসেঞ্জারে কল দিলাম। কিন্তু সেই একই সমস্যা। ইন্টারনেট কানেকশন পাচ্ছি না। পরে মেগাবাইট চেক করে দেখি, আবার শুন্য মেগাবাইট দেখাচ্ছে। সমীরণ দাদা বলে চললেন, এর চেয়ে আর বিরক্তিকর কি হতে পারে? আমার কেনা মেগাবাইট কি ভূতে ব্যবহার করে? সমীরণ দাদার কথা শুনে আসলেই হতাশ লাগছিল।

আমরা অনেকেই কিন্তু এখন মোবাইলের ব্যালেন্স চেক করিনা কিংবা মেগাবাইট কিভাবে খরচ হচ্ছে সেটাও খেয়াল করি না। কিছু পরিচিত মানুষের কাছ থেকে অভিযোগ শুনেছি, অনেক সময় মোবাইল অপারেটর কিছু প্যাকেজ নিজেরাই চালু করে দেন। এরপর সেই প্যাকেজের ভিত্তিতেই টাকা কেটে রাখেন। এভাবে কোন মোবাইল অপারেটর যদি টাকা কেটে রাখে, তাহলে সেটা অবশ্যই হতাশাজনক। কারণ এগুলো ব্যবসায়িক নীতিমালার মধ্যে পড়ে না। এগুলো বন্ধ হওয়া উচিত।

লেখক-রিয়াজুল হক, অর্থনৈতিক বিশ্লেষক এবং যুগ্ম পরিচালক, বাংলাদেশ ব্যাংক

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..