বিশ্ব সংবাদ

আর্মেনিয়া-আজারবাইজানে সংঘাত অব্যাহত, নিহত বেড়ে ৯৫

শেয়ার বিজ ডেস্ক : টানা তৃতীয় দিনের মতো নাগোরনা-কারাবাখ অঞ্চলে আজারবাইজান ও আর্মেনিয়ার সামরিক বাহিনীর মধ্যে পাল্টাপাল্টি হামলা চলেছে। রোববার অঞ্চলটিতে দুই দেশের সামরিক বাহিনী ভারী গোলাবর্ষণের মাধ্যমে সংঘাতে জড়িয়ে পড়ে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ দ্রুত এ সংঘাত অবসানের আহ্বান জানালেও কোনো পক্ষই সংযম দেখাচ্ছে না। সংঘর্ষের ঘটনায় দু’দেশের সেনাসদস্যসহ এখন পর্যন্ত ৯৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। খবর: বিবিসি ও রয়টার্স।

মুসলিম দেশগুলোর সবচেয়ে বড় জোট অরগানাইজেশন অব ইসলামিক কো-অপারেশন (ওআইসি) আজারবাইজানে আর্মেনিয়ার আগ্রাসনের কড়া নিন্দা জানিয়েছে। দুই দেশের সংঘাতের রাজনৈতিক সমাধানের আহ্বান জানিয়েছে ওআইসি। আজারবাইজানের প্রতি সংহতি পুনর্ব্যক্ত করে ওআইসি বলছে, এটা গভীর উদ্বেগের এবং পূর্বাঞ্চলীয় প্রতিবেশী আজারবাইজানের ওপর আর্মেনিয়ার দফায় দফায় হামলা গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। এ সংঘাতে আর্মেনিয়ার যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন এবং বেসামরিক হতাহতের ঘটনা ঘটছে।

এক বিবৃতিতে মুসলিম বিশ্বের এ জোট বলছে, দখলকৃত আজারি ভূখণ্ড থেকে আর্মেনীয় সৈন্যদের পুরোপুরি এবং শর্তহীন প্রত্যাহারের আহ্বান জানায় ওআইসি। একই সঙ্গে আজারবাইজানের সার্বভৌমত্বের প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন করে দুই দেশের সামরিক সংঘাতের রাজনৈতিক সমাধানে পৌঁছাতে আলোচনায় বসার আহ্বান জানানো হয়েছে।

আজারবাইনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, নতুন করে তাদের আরও কমপক্ষে ২৬ সেনা নিহত হয়েছে। ফলে দু’পক্ষের এ সংঘাতে দেশটিতে এখন পর্যন্ত সামরিক বাহিনীর ৮৪ সদস্য নিহত হয়েছেন। এদিকে মঙ্গলবার পর্যন্ত আজারবাইজানে ৯ বেসামরিক নাগরিক এবং আর্মেনিয়ার দুই বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছেন। ফলে সামরিক বাহিনী ও বেসামরিক নাগরিক মিলে মোট ৯৫ জনের প্রাণহানি ঘটেছে।

দু’দেশের সংঘাতের বিষয়ে নাগোরনো-কারাবাখের নেতা আরায়িক হারুতিয়ানইয়ান বলেন, এটি জীবন-মরণের যুদ্ধ। বাকু ও ইয়েরেভানের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, গত সোমবার প্রায় সারা দিন ধরেই সংঘাত চলেছে। আর্মেনিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আর্টসরান হোভহানিসিয়ান জানিয়েছেন, গত সোমবার সন্ধ্যায় কারাবাখ ফ্রন্ট লাইনের দক্ষিণ ও উত্তর-পূর্বাঞ্চলে বড় ধরনের হামলা চালিয়েছে আজারবাইজান বাহিনী। দু’পক্ষকেই এ সংঘাত থেকে বেরিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন বিশ্বনেতারা। কিন্তু সব আহ্বান উপেক্ষা করে প্রতিবেশী এই দু’দেশ সংঘাত ও যুদ্ধেই মেতে আছে।

গত শতকের আশির দশকের শেষদিকে কারাবাখ অঞ্চলে আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের মধ্যে যুদ্ধ শুরু হয়। ১৯৯১ সালে সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের মুহূর্তে সংঘর্ষ চূড়ান্ত আকার ধারণ করে। ১৯৯৪ সালে দু’পক্ষের মধ্যে যুদ্ধবিরতি প্রতিষ্ঠার আগ পর্যন্ত এ সংঘর্ষে ৩০ হাজার মানুষ প্রাণ হারায়।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..