প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

আলহাজ্ব টেক্সটাইলের লেনদেন চালু আজ

নিজস্ব প্রতিবেদক: আলহাজ্ব টেক্সটাইল মিলস লিমিটেডের শেয়ার লেনদেন চালু হচ্ছে আজ। গতকাল রেকর্ড ডেটের কারণে কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন বন্ধ ছিল। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, আলহাজ্ব টেক্সটাইলের বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) সংক্রান্ত রেকর্ড ডেট নির্ধারণ ছিল গতকাল। আর এ রেকর্ড ডেটের কারণে শেয়ার লেনদেন বন্ধ ছিল। রেকর্ড ডেট শেষ হওয়ায় আজ থেকে শেয়ার লেনদেন স্বাভাবিক নিয়মেই চলবে।

উল্লেখ্য, ১৯৮৩ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয় ‘এ’ ক্যাটাগরির এ কোম্পানি। অনুমোদিত মূলধন ৫০ কোটি এবং পরিশোধিত মূলধন ১৬ কোটি ৭৩ লাখ ৩০ হাজার টাকা। রিজার্ভের পরিমাণ চার কোটি ৪৬ লাখ টাকা।

গত এক বছরে শেয়ারদর ৭৭ টাকা ৫০ পয়সা থেকে ১১৮ টাকার মধ্যে ওঠানামা করে। ৩০ জুন ২০১৬ পর্যন্ত সমাপ্ত হিসাববছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে কোম্পানিটি  পাঁচ শতাংশ নগদ ও ১০ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। এ সময় কোম্পানির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে এক টাকা ৫৩ পয়সা এবং শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ১৩ টাকা ৫৪ পয়সা। এটি আগের বছর একই সময়ে ছিল যথাক্রমে এক টাকা ১৫ পয়সা ও ১৩ টাকা ৭১ পয়সা। ঘোষিত লভ্যাংশ বিনিয়োগকারীদের সম্মতিক্রমে অনুমোদনের জন্য আগামী ১৮ ডিসেম্বর ঢাকায় বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) অনুষ্ঠিত হবে ২০১৫ সালে কোম্পানিটি পাঁচ শতাংশ নগদ ও ১০ শতাংশ বোনান লভ্যাংশ দিয়েছিল, যা আগের বছর ছিল ২০ শতাংশ বোনাস। ওই বছর কর-পরবর্তী মুনাফা করেছিল দুই কোটি সাত লাখ ৭০ হাজার টাকা, যা আগের বছর ছিল দুই কোটি ১৩ লাখ ৬০ হাজার টাকা।

প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) ইপিএস হয়েছে ২৩ পয়সা। এটি আগের বছর একই সময়ে ছিল ২৬ পয়সা। অর্থাৎ ইপিএস কমেছে তিন পয়সা। ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৬ পর্যন্ত এনএভি দাঁড়িয়েছে ১৩ টাকা ৭৭ পয়সা, যা একই বছরের ৩০ জুন পর্যন্ত সময়ে ছিল ১৩ টাকা ৫৪ পয়সা।

ওই সময় কর-পরবর্তী মুনাফা করেছে ৩৯ লাখ ৩০ হাজার টাকা। ২০১৪ সালে কোম্পানিটি ২০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছিল। ওই সময়ে ইপিএস হয়েছিল এক টাকা ৬৮ পয়সা এবং এনএভি দাঁড়িয়েছিল ১৪ টাকা ৮৮ পয়সা।

কোম্পানিটির মোট এক কোটি ৬৭ লাখ ৫৩ হাজার ২৩১টি শেয়ার রয়েছে। ডিএসইর সর্বশেষ তথ্যানুযায়ী কোম্পানির মোট শেয়ারের মধ্যে উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের কাছে রয়েছে ৩০ দশমিক ৮২ শতাংশ শেয়ার, সরকারের কাছে শূন্য দশমিক শূন্য তিন শতাংশ, প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে পাঁচ দশমিক ৫৬ শতাংশ ও সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে ৬৩ দশমিক ৫৯ শতাংশ শেয়ার রয়েছে।