এসএমই

আসমানের ছাদবাগান

কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা উপজেলার বাসিন্দা আসমান আলী। বাড়ির ছাদে বাগান করে সফলতা পেয়েছেন তিনি।
চাকরিজীবী আসমান আলী শখের এ ছাদবাগানে গাছ রোপণ থেকে শুরু করে পরিচর্যা সব একাই সামলান। ভেড়ামারা উপজেলা জাতীয় মহিলা সংস্থার সমন্বয়কারী হিসেবে কর্মরত তিনি। তালতলা এলাকায় তার বাড়ি।
একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলে ছাদবাগান দেখে উদ্বুদ্ধ হয়ে গড়ে তুলেছেন নিজস্ব ছাদবাগান। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, দোতলা বাড়ির ছাদে মাটির টব, প্লাস্টিকের বস্তা ও ছোট-বড় ড্রামের ভেতরে মাটি দিয়ে তাতে বিভিন্ন ধরনের গাছ লাগিয়েছেন। শাকসবজি, ফলজ ও ঔষধিসহ বিভিন্ন প্রজাতির গাছ রোপণ করেছেন। তার লাগানো এসব গাছে ইতোমধ্যে কমলা, চায়নিজ কমলা, পেয়ারা, লেবু, করমচা, মরিচ, বেগুন প্রভৃতি ধরেছে।
আসমান আলী বলেন, গত বছরের শুরু থেকে এ ছাদবাগানে গাছ লাগানো শুরু করি। বর্তমানে আম, পেয়ারা, দেশি কমলা, চায়নিজ কমলা, করমচা, মিষ্টি তেঁতুল, ডালিম, চেরি, লেবু, নাগা মরিচ, লাল জাম্বুরা, বেল, আতা, বেগুন, পেঁপে, শজনে, পুদিনা, পুঁই ও কলমি শাকসহ তেজপাতা ও এলাচের গাছও রয়েছে। অ্যালোভেরা, গোলাপ, মর্নিংগ্লোরীসহ নজরকাড়া কিছু ফুলের গাছও শোভা পাচ্ছে।
আসমান আলী আরও বলেন, ২০১৮ সালের শুরুর দিকে কুষ্টিয়ায় অনুষ্ঠিত বৃক্ষমেলা থেকে কমলা, পেয়ারা, আম ও লেবুর কয়েকটি গাছ কিনে ছাদের ওপর ড্রামে মাটি ভর্তি করে রোপণ করি। এরপর বিভিন্ন নার্সারিতে গিয়ে নানা ধরনের নতুন গাছের চারা কিনে এনে ছাদ বাগানে রোপণ করেছি। গাছগুলোতে ফল আসা শুরু করেছে, আমার উৎসাহও বেড়েছে। প্রতিদিন ফজরের নামাজের পর বাগানে গেলেই মনপ্রাণ জুড়িয়ে যায়। রোজ সকাল ও বিকালে অফিস থেকে ফিরে গাছগুলোর পরিচর্যা করি। নিজের হাতে লাগানো গাছের টাটকা ফল, সবজি খেতে যেমন সুস্বাদু তেমন দেখে মন জুড়িয়ে যায়।
ছাদ বাগানে চাষ করা বিষমুক্ত ফল পরিবারের নিজেদের জন্য রেখে আত্মীয়স্বজন ও প্রতিবেশীদের উপহার দেন তিনি। আসমান বলেন, খালবিলে কলমিলতা জš§ালেও আমি ছাদে কলমি চাষ করে সফল হয়েছি। এছাড়া বেগুন থেকে বীজ উৎপাদন করে পুনরায় চারা রোপণ করেছি।

কুদরতে খোদা সবুজ, কুষ্টিয়া

সর্বশেষ..