সুশিক্ষা

ইন্টার্নশিপ রঁদেভু

চাকরির সাক্ষাৎকারে স্বতঃস্ফূর্ত থাকতে হবে গ্র্যাজুয়েশন শেষে ক্যারিয়ার নিয়ে চিন্তিত থাকেন না, এমন কাউকে হয়ত খুঁজে পাওয়া যাবে না। নানা দুশ্চিন্তা ও ভয় দানা বাঁধে অনেক শিক্ষার্থীর মনে। তাই ভয় কাটানোর জন্য শিক্ষাজীবনেই নিজেকে প্রস্তুত করে তুলতে হয়। এ লক্ষ্যে ইন্টার্নশিপের আবেদন করা শিক্ষার্থীদের জন্য ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটি (ইডিইউ) আয়োজন করে ‘ইন্টার্নশিপ রঁদেভু’ শীর্ষক একটি কর্মশালা।
গত ৫ সেপ্টেম্বর বেলা ১১টায় ইডিইউ’র স্থায়ী ক্যাম্পাসের সেমিনার কক্ষে এ কর্মশালার আয়োজন করা হয়। এতে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন একটি বহুজাতিক প্রতিষ্ঠানের বিপণন কর্মকর্তা শান ফারাবি ও রিজেন্সি গার্মেন্ট লিমিটেডের মানবসম্পদ বিভাগের প্রধান মিজানুর রহমান।
প্রতিযোগিতাপূর্ণ চাকরির বাজারে প্রবেশের জন্য শিক্ষার্থীরা কীভাবে নিজেকে প্রস্তুত করবেন, সে সম্পর্কে বিস্তারিত এ কর্মশালায় আলোচনা করা হয়। সিভি ও কাভার লেটার লেখা থেকে শুরু করে জব ইন্টারভিউ’র খুঁটিনাটি বিষয় এ আলোচনায় উঠে আসে। বক্তারা বলেন, শিক্ষা জীবনেই নিজেকে গড়ে তুলতে হবে। প্রস্তুতি নিতে হবে ভবিষ্যৎ প্রতিযোগিতার জন্য। পড়ালেখায় ভালো ফল অর্জনের পাশাপাশি নানা সামাজিক-সাংগঠনিক কাজে নিজেকে সম্পৃক্ত করতে হবে।
চাকরির সাক্ষাৎকারে ঘাবড়ে না গিয়ে স্বতঃস্ফূর্ত থাকার পরামর্শ দেন আলোচকরা। তারা বলেন, চাকরিতে প্রবেশের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ধাপ হলো ইন্টারভিউ। এ ধাপে ইতিবাচক থেকে চাকরিদাতাদের কাছে নিজেকে গ্রহণযোগ্য করে তুলতে হবে। চাকরির ধরন বুঝে প্রস্তুতি নিতে হবে।
কর্মশালায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন ইডিইউ’র প্ল্যানিং অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট ডিরেক্টর শাফায়েত কবির চৌধুরী। তিনি বলেন, চাকরির আগেই অভিজ্ঞতা নেওয়া জরুরি। এক্ষেত্রে ইন্টার্নশিপ একটি সুবর্ণ সুযোগ করে দেয়। এর মাধ্যমে কর্মপরিবেশ ও কর্মক্ষেত্র কেমন হবে, সে সম্পর্কে বাস্তব ধারণা পাওয়া যায়। এছাড়া নিজের অপূর্ণতা ও সক্ষমতা সম্পর্কেও জানা যায় ইন্টার্নশিপে।
ইডিইউর প্রতিষ্ঠাতা ভাইস চেয়ারম্যান সাঈদ আল নোমান বলেন, চাকরির বাজার সম্পর্কে পূর্ণাঙ্গ ধারণা থাকা চাকরিপ্রার্থীর জন্য অত্যন্ত জরুরি। নানা ধরনের কর্মশালা-সেমিনার আয়োজনের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের মধ্যে এ বিষয়ে সচেতনতা তৈরি করছে ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটি। একইসঙ্গে ইন্টারন্যাশনাল গ্র্যাজুয়েট লিডারশিপ এক্সপেরিয়েন্স প্রোগ্রামের অধীনে শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন উন্নত দেশে নিয়ে যাচ্ছি। এতে বড় প্রতিষ্ঠানগুলো পরিদর্শনের মাধ্যমে তারা বাস্তব অভিজ্ঞতা নিতে পারেন। ফলে পরবর্তী সময়ে কর্মক্ষেত্রে নেতৃত্বদানে ইডিইউ গ্র্যাজুয়েটরা সক্ষম হবেন।
কর্মশালায় আরও উপস্থিত ছিলেন ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটির নেটওয়ার্কিং অ্যান্ড প্লেসমেন্ট সেলের কর্মকর্তারা। তারা গ্র্যাজুয়েটদের ইন্টার্নশিপ ও চাকরিপ্রাপ্তি নিশ্চিত করতে কাজ করেন। উল্লেখ্য, রাজধানীসহ চট্টগ্রামের অনেক বড় প্রতিষ্ঠানে ইডিইউর গ্র্যাজুয়েটরা কর্মরত রয়েছেন।

সর্বশেষ..