স্পোর্টস

ইমরুল-সাব্বিরদের পারফরম্যান্সে বিব্রত বাশার

ক্রীড়া প্রতিবেদক: বিস্ময়কর। ঠিক তা-ই। দলে তারকা ক্রিকেটারের অভাব নেই। দলে ছিলেন ইমরুল কায়েস, এনামুল হক বিজয়, মোহাম্মদ মিঠুন, সাব্বির রহমান, ফরহাদ রেজা, আবু জায়েদ রাহি, শফিউল ইসলাম ও আবু হায়দার রনি। তারপরও আফগানিস্তান ‘এ’ দলের বিপক্ষে বাংলাদেশ ‘এ’ দল হারল টানা দুই ম্যাচে!
এমন পারফরম্যান্স হতাশ করেছে দেশের ক্রিকেটপ্রেমীদের। আফগানদের বিপক্ষে প্রথম দুই ম্যাচের দুটিতেই হেরে সিরিজে ২-০ ব্যবধানে পিছিয়ে আছে স্বাগতিক দল। দলের যখন এমন অবস্থা, তখন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) নির্বাচকদের কপালেও পড়েছে চিন্তার ভাঁজ।
বাংলাদেশ ‘এ’ দলের কাছ থেকে যতটুকু প্রত্যাশা ছিল, প্রাপ্তির খাতায় তার ধারেকাছেও ছিল না। বিপরীতে আফগানদের ব্যাপারে যা ভেবেছেন, তার চেয়েও ভালো ক্রিকেট খেলেছে তারা। এ পারফরম্যান্সের পর দেশের ক্রিকেটের অভিভাবক সংস্থা রয়েছে চিন্তায়। এমন খেলার পর ঘুম হারামের উপক্রম নির্বাচকমণ্ডলীর। তবে দলের এমন পারফরম্যান্সের ব্যাখ্যা দেওয়ার কোনো ভাষাও জানা নেই বলে মন্তব্য করেছেন হাবিবুল বাশার, ‘এটি অবশ্যই বিব্রতকর। তবে দুশ্চিন্তা বেশি। ওরা কিন্তু ভালো দল। তারা ভালো ক্রিকেট খেলছে। ভালোভাবে প্রয়োগও করেছে। আফগানিস্তানের এই গ্রুপটি আশার চেয়েও বেশি ভালো খেলেছে। আমাদের দলে যারা আছে, তারাও ভালো ক্রিকেট খেলে আসছিল। এর ব্যাখ্যা দেওয়া মুশকিল।’
চিন্তার জায়গাটা আরেকটু প্রশস্ত হবে এ তথ্য জেনে এই ‘এ’ দলের চারজন ক্রিকেটার শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজে খেলবেন।
আফগান দলটির বিপক্ষে ঘরোয়া কন্ডিশনে যদি তাদের এই হাল হয়, তাহলে লঙ্কার মাটিতে কি করবে তারা? প্রশ্নটি স্বাভাবিকভাবেই উঠতে পারে।
এমন একটি দলের বিপক্ষে হতাশাজনক পারফরম্যান্স বাংলাদেশের ক্রিকেটের জন্য অশনিসংকেত হিসেবে দেখছেন বাশার। সিরিজের শুরু থেকে এখন পর্যন্ত বাংলাদেশ ‘এ’ দল নিজেদের সামর্থ্য অনুযায়ী একটি ম্যাচেও খেলতে পারেনি। প্রথম চার দিনের ম্যাচটিতে ৭ উইকেটের ব্যবধানে হারে বাংলাদেশ ‘এ’ দল। দ্বিতীয় ম্যাচে ড্র করতে সক্ষম হলেও সিরিজ হারতে হয়েছে তাদের। ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচে আফগানদের বিপক্ষে মোহাম্মদ মিঠুনের দল হেরে যায় ১০ উইকেটের বিশাল ব্যবধানে। দ্বিতীয় ম্যাচে ৪ উইকেটের হারে পাঁচ ম্যাচ সিরিজে ২-০ ব্যবধানে পিছিয়ে পড়েছে বাংলাদেশ ‘এ’ দল। ঘরোয়া ক্রিকেটে এই ক্রিকেটাররা দুর্দান্ত পারফরম্যান্স করলেও ‘এ’ দলে নিজেদের পরীক্ষাটা ভালোভাবে দিতে পারেনি বলে মনে করেন বাশার। তারা নিজেদের প্রমাণ না করতে পারায় হতাশ বিসিবির এই নির্বাচক, ‘দ্বিতীয় সারিব একটি দল হিসেবেই ‘এ’ দলকে বিবেচনা করা হয়। ঘরোয়া ক্রিকেটে অনেক সময় আমরা অনেক কিছু বিচার করতে পারি না। ঘরোয়া ক্রিকেটে অনেকেই ভালো খেলে। ‘এ’ টিমে আসলে তাদের পরীক্ষাটা ভালো হয়। দুর্ভাগ্যবশত এ পরীক্ষাটা কেউ ভালো দিতে পারেনি।’
আফগানিস্তান ‘এ’ দলের বিপক্ষে এমন হতশ্রী পারফরম্যান্স দেখে অনেকের মনে উঁকি দিচ্ছে দুশ্চিন্তা। সাকিব, তামিম, মাশরাফি, রিয়াদ, মুশফিক-পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশ দলকে আশা দেখাবেন কারা? নাকি দীর্ঘদিন ধরে তাদের বিকল্পের অভাবে আবার একটি সাদামাটা দলে পরিণত হবে বাংলাদেশ? এমন প্রশ্ন এখন ক্রিকেটপ্রেমীদের মুখে মুখে!

 

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..