বিশ্ব সংবাদ

ইরাকে দূতাবাস বন্ধের হুমকি যুক্তরাষ্ট্রের

শেয়ার বিজ ডেস্ক : দূতাবাসে হামলা আটকাতে না পারলে ইরাক থেকে কূটনীতিক প্রত্যাহারের হুমকি দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। এক সপ্তাহ আগেই ইরাকের প্রেসিডেন্ট বারহাম সালিহকে ফোন করে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও দূতাবাস বন্ধের এ হুমকি দেন বলে জানিয়েছেন দুই ইরাকি কর্মকর্তা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এই দুই কর্মকর্তা এবং পশ্চিমা দুই কূটনীতিকও জানিয়েছেন, ওয়াশিংটন এরই মধ্যে কূটনীতিকদের দেশে ফিরিয়ে নেওয়ার প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে। যদি তাই হয়, তবে ইরাক আবারও যুদ্ধক্ষেত্র হয়ে উঠতে পারে বলে শঙ্কিত ইরাকিরা।

ইরাকের রাজধানী বাগদাদের সুরক্ষিত ‘গ্রিন জোনে’ যুক্তরাষ্ট্রসহ আরও বেশ কয়েকটি দেশের দূতাবাস রয়েছে। ওই এলাকায় যুক্তরাষ্ট্রের কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ কার্যালয়ও আছে। সম্প্রতি বাগদাদের ‘গ্রিন জোনে’ রকেট ও বোমা হামলার ঘটনা বেড়ে গেছে। ওয়াশিংটনের দাবি, ইরান-সমর্থিত ইরাকি সশস্ত্র গোষ্ঠী ওই হামলা চালাচ্ছে।

ইরাকের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের হস্তক্ষেপ বন্ধ এবং ইরাক থেকে? যুক্তরাষ্ট্রের সেনা প্রত্যাহারে বাধ্য করতে এ হামলা চালানো হচ্ছে বলে ধারণা অনেকের। ইরাকে যুক্তরাষ্ট্রের পাঁচ হাজারের বেশি সেনা মোতায়েন আছে।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তর বলেছে, ‘ইরান-সমর্থিত গোষ্ঠীগুলো আমাদের দূতাবাসে রকেট হামলা করছে। এ হামলা শুধু আমাদের জন্যই নয়, ইরাক সরকারের জন্যও বিপদের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।’ গত জানুয়ারিতে ইরানের শীর্ষ সামরিক কমান্ডার কাসেম সোলেমানিকে বাগদাদ বিমানবন্দরের কাছে ড্রোন হামলা চালিয়ে হত্যা করে যুক্তরাষ্ট্র। সোলেমানি হত্যার প্রতিশোধ নিতে ইরাকে যুক্তরাষ্ট্রের সেনাঘাঁটিতে রকেট হামলা চালায় ইরান।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ক্ষমতায় আসার পর ইরানের সঙ্গে দেশটির সম্পর্কের চরম অবনতি হয়েছে। গত চার বছরে একাধিকবার দুই দেশের মধ্যে যুদ্ধপরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছিল। সব থেকে বড়া আশঙ্কা দেখা দিয়েছিল কাসেম সোলেমানি হত্যার পর।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..