প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

ইরানের ওপর নতুন নিষেধাজ্ঞা

শেয়ার বিজ ডেস্ক: ইরানের ওপর নতুন নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। সরকারবিরোধী বিক্ষোভে নিরাপত্তা বাহিনীর তীব্র দমনপীড়নের প্রতিক্রিয়ায় এ পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। খবর: আল জাজিরা।

ইরানের সঙ্গে পশ্চিমা দেশগুলোর সম্পর্ক এমনিতেই ভালো না, সেপ্টেম্বরে নীতি পুলিশ হেফাজতে কুর্দি নারী মাহসা আমিনির মৃত্যুকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট অস্থিরতা দমনে দেশটির সরকারি বাহিনীগুলো যে ভয়াবহ দমনপীড়ন চালিয়েছে, তার প্রতিক্রিয়ায় পশ্চিমাদের নিষেধাজ্ঞা সম্পর্কের ফাটল আরও চওড়া করেছে। 

আমিনির মৃত্যু কেন্দ্র করে ইরান যে সরকারবিরোধী বিক্ষোভ দেখছে, তাকে ১৯৭৯ সালে ইসলামে বিপ্লবের পর দেশটির শাসকগোষ্ঠীর জন্য সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ বলা হচ্ছে। তেহরান এ অস্থিরতা উসকে দেয়ার জন্য পশ্চিমা শাসকগোষ্ঠীকে দুষছে।

যুক্তরাষ্ট্রের এবারের নিষেধাজ্ঞার লক্ষ্য ইরানের প্রভাবশালী বিপ্লবী রক্ষীবাহিনী (আইআরজিসি) ও বিক্ষোভ দমনের দায়িত্বে থাকা শীর্ষ কর্মকর্তারা। তারা নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে আইআরজিসি

কো-অপারেটিভ ফাউন্ডেশন ও এর পরিচালনা পর্ষদের ৫ সদস্যের ওপর; ইরানের গোয়েন্দা ও নিরাপত্তা বিষয়ক উপমন্ত্রী নাসের রাশেদি। আইআরজিসির ৪ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাও তাদের কালো তালিকায় ঢুকেছে।

মার্কিন অর্থ মন্ত্রণালয় বলছে, ইরানের শাসকগোষ্ঠীর বর্বরতা চালানোর বেশিরভাগ অর্থ আসা আইআরজিসির একটি গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক স্তম্ভকে লক্ষ্য করে তারা এবারের নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। তালিকায় এর সঙ্গে জাতীয় ও প্রাদেশিক পর্যায়ে দমনপীড়নে সমন্বয় করা ঊর্ধ্বতন নিরাপত্তা কর্মকর্তারা রয়েছেন।

ওয়াশিংটনের অভিযোগ, আইআরজিসি শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ কর্মসূচিতে দমনপীড়ন চালিয়ে যাচ্ছে এবং এরা মানবাধিকারের বিস্তৃত লংঘনের মাধ্যমে বিক্ষোভ দমানোর ক্ষেত্রে নেতৃত্বের ভূমিকা পালন করছে।

আইআরজিসিতে এখন সেনা, নৌ ও বিমান ইউনিট মিলিয়ে আনুমানিক এক লাখ ২৫ হাজারের মতো সদস্য রয়েছে বলে মনে করা হয়।

আইআরজিসি ধর্মীয় মিলিশিয়া বাহিনী বাসিজেরও নেতৃত্বে রয়েছে, যে বাহিনীটিকে প্রায়ই দমনপীড়নের কাজে ব্যবহার করা হয়।

মার্কিন অর্থ মন্ত্রণালয়ের মতে, আইআরজিসির বিনিয়োগ ও ইরানের অর্থনীতির বিভিন্ন খাতে এর উপস্থিতি ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে থাকা কো-অপারেটিভ ফাউন্ডেশন আইআরজিসির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদেরই বানানো প্রতিষ্ঠান।