Print Date & Time : 10 July 2020 Friday 12:39 pm

ইরানের দুই মাসের সময়সীমা প্রত্যাখ্যান ইইউর

প্রকাশ: মে ১১, ২০১৯ সময়- ০২:১৪ পিএম

শেয়ার বিজ ডেস্ক: ২০১৫ সালে স্বাক্ষরিত পারমাণবিক চুক্তি রক্ষায় ইরানের দেওয়া দুই মাসের সময়সীমা প্রত্যাখ্যান করেছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। ইউরোপের তিনটি দেশকে গত বুধবার ৬০ দিনের সময় দিয়েছিলেন ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি। তিনি জানিয়েছিলেন, এ সময়ের মধ্যে ইরানের তেল ও ব্যাংকিং শিল্প নিয়ে কোনো ইতিবাচক সিদ্ধান্ত না নিলে দেশের উৎপাদিত অতিরিক্ত সমৃদ্ধ ইউরেনিয়াম বিদেশে রফতানি বন্ধ করে দেবেন তারা। এর জবাবে একটি যৌথ বিবৃতিতে ব্রিটেন, ফ্রান্স আর জার্মানি জানিয়েছে, ইরানের কোনো হুশিয়ারি তারা মানবে না। তবে চুক্তির মধ্যে থেকেই ইরানের ধুঁকতে থাকা অর্থনীতি চাঙা করতে চায় তারা। ইরান সরকারও গতকাল অবশ্য জানিয়েছে, চুক্তির শর্ত না ভেঙে নিজেদের অর্থনীতি ফের সমৃদ্ধ করতে আগ্রহী তারা। খবর: রয়টার্স।
যুক্তরাষ্ট্রের ভূমিকার কারণেই তেহরানের আচরণে এ পরিবর্তন এসেছে বলেও স্বীকার করেন ইইউ। ইরানকে দুর্বল করতে মার্কিন প্রচেষ্টাকে খর্ব করতে থাকা ইউরোপীয় নেতারা বলেছেন, তারা এখনও পারমাণবিক চুক্তির প্রতি প্রতিশ্রুতিশীল। আর তারা এ পর্যায়েও তেহরানের কাছ থেকে চুক্তি ভঙ্গের কোনো হুমকি আছে বলে মনে করছেন না।
জয়েন্ট কম্প্রিহেনসিভ অ্যাকশন প্লান (জেসিপিওএ) নামে ইরানের সঙ্গে এ চুক্তিতে স্বাক্ষর করে রাশিয়া, চীন, যুক্তরাষ্ট্র এবং তিনটি ইউরোপীয় দেশ ফ্রান্স, ব্রিটেন ও জার্মানি। গত বছর মার্কিন প্রেসিডেন্টে ডোনাল্ড ট্রাম্প ২০১৫ সালে ছয় বিশ্ব শক্তির সঙ্গে ইরানের স্বাক্ষরিত পারমাণবিক চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রের বের হয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন। ওই ঘোষণার বর্ষপূর্তির দিনে গত বুধবার ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি ওই চুক্তি থেকে আংশিকভাবে ইরানের সরে আসার ঘোষণা দেন। তেহরানে নিযুক্ত ফ্রান্স, ব্রিটেন, জার্মানি, রাশিয়া ও চীনের রাষ্ট্রদূতদের রুহানির স্বাক্ষরিত চিঠি দিয়ে বিষয়টি জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। পশ্চিমা দেশগুলোকে চুক্তি রক্ষায় ৬০ দিন সময় বেঁধে দেন তিনি।
ইরানের এ পদক্ষেপের প্রতিক্রিয়ায় ইইউ বলেছে, আমরা যে কোনো আলটিমেটাম প্রত্যাখ্যান করছি। আর পারমাণবিক চুক্তি ইরান কতটা মেনে চলছে তা পর্যালোচনা করে দেখা হচ্ছে জানানো হয় ওই বিবৃতিতে।
ইরানের ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা পুনর্বহালের নিন্দা জানিয়ে ইইউ-এর বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ইইউ এখনও চুক্তির প্রতি শ্রদ্ধাশীল। মার্কিন নিষেধাজ্ঞার কবল থেকে ইরানের জনগণকে রক্ষাতেও তারা সচেষ্ট বলে জানানো হয়।