সুশিক্ষা

উতারা মালয়েশিয়ার দুই শিক্ষক ইডিইউতে

ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটির (ইডিইউ) শিক্ষার্থীদের বিশ্বমানের উচ্চশিক্ষা নিশ্চিত করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। ইডিইউতে এখন নিয়মিত ক্লাস নেন বিশ্বের নামকরা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফ্যাকাল্টি মেম্বাররা।
এরই অংশ হিসেবে সম্প্রতি ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটির ইংরেজি বিভাগ ও বিবিএ শিক্ষার্থীদের পৃথক ক্লাস নিয়েছেন বিশ্বের প্রথম সারির বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর একটি ইউনিভার্সিটি উতারা মালয়েশিয়ার (ইউইউএম) দুই ফ্যাকাল্টি মেম্বার অধ্যাপক ড. আজিলাহ বিনতে কাসিম ও সহযোগী অধ্যাপক ড. হিশাম বিন জাকিরিয়া।
‘একাডেমিক রাইটিং ফর রিসার্চ পারপাস’ বিষয়ে বিবিএ’র বিআরএম কোর্সের শিক্ষার্থীদের ক্লাস নেন ড. আজিলাহ। তিনি ইউইউএম’র ইন্টারন্যাশনাল ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি রিসার্চ সেন্টার ও স্কুল অব ট্যুরিজম, হসপিটালিটি অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল ম্যানেজমেন্টের ডিরেক্টর। তিনি পিএইচডি গবেষণা করেছেন যুক্তরাজ্যের ইউনিভার্সিটি অব ইস্ট অ্যাংলিয়া থেকে। বিশ্বজুড়ে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিজিটিং প্রফেসর হিসেবে পড়িয়ে থাকেন তিনি। তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে শিক্ষার্থীদের গড়ে তোলা হয় গবেষণার জন্য। তাই এ সময়টায় একাডেমিক রাইটিংয়ের প্রতি মনোযোগী হওয়া প্রয়োজন। ফিকশন বা সংবাদ লেখনীর চেয়ে একাডেমিক রাইটিং ভিন্ন। তাই এর কৌশল শিক্ষার্থীদের জানতে হবে।
ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থীদের ল্যাঙ্গুয়েজ ও লিঙ্গুইস্টিকস বিষয়ে ক্লাস নেন ড. হিশাম। তিনি ইউইউএম’র স্কুল অব অ্যাডুকেশন অ্যান্ড মডার্ন ল্যাঙ্গুয়েজের সহযোগী অধ্যাপক। তিনিও যুক্তরাজ্যের ইউনিভার্সিটি অব ইস্ট অ্যাংলিয়া থেকে পিএইচডি করেছেন, প্রফেশনাল ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড লাইফ লং লার্নিং বিষয়ে। তিনি বলেন, ভাষার নিয়ত পরিবর্তনশীল। যে কোনো ভাষার ক্ষেত্রে এ পরিবর্তন, উৎপত্তি, ইতিহাস ও গতিপ্রকৃতি বুঝতে হলে লিঙ্গুইস্টিক সম্পর্কে জানতে হবে। এছাড়া ভাষার মাধ্যমে একে অন্যের সঙ্গে যে যোগাযোগ স্থাপন হয়, তার কৌশল ও ভাষা কীভাবে কাজ করেÑতা জানতে প্রয়োজন জ্ঞানের এ নতুন শাখাটিতে দক্ষতা অর্জন।
বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ভাইস চেয়ারম্যান সাঈদ আল নোমান বলেন, ইডিইউ’র শিক্ষার্থীদের মৌলিক গবেষণায় পারদর্শী করে তুলতে আমরা সব ধরনের সহযোগিতা করছি। ইউনিভার্সিটি উতারা মালয়েশিয়ার অভিজ্ঞ দুই গবেষক ও প্রশিক্ষকের ক্লাসের আয়োজন করেছি তাদের অভিজ্ঞতা ও জ্ঞান আমাদের শিক্ষার্থীদের মাঝে ছড়িয়ে দিতে। এতে শিক্ষার্থীদের সক্ষমতা ও আত্মবিশ্বাস বৃদ্ধি পাবে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..