প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

উত্তাল আটলান্টিকে ভয়ংকর সমুদ্রযাত্রায় অসুস্থ হয়ে পড়েছেন বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা

শেয়ারবিজ ডেস্ক: ওয়েস্ট ইন্ডিজ এক ভয়াবহ দিন কাটিয়েছে বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। সমুদ্রযাত্রা নিয়ে বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের ভয় আগে থেকেই ছিল। কারোরই অভিজ্ঞতা ছিল না এত দীর্ঘ সমুদ্র পাড়ি দেয়ার! তার ওপর সম্প্রতি আঘাত হানা সাইক্লোনের কারণে সমুদ্রও স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি উত্তাল ছিল। ঢেউয়ের তোড়ে ফেরির বড় বড় দোলানোতে আতঙ্কিত হয়ে পড়েন ক্রিকেটাররা। সবচেয়ে বেশি খারাপ অবস্থা হয়েছে পেসার শরিফুলের। পলিথিনে মুখ ঢুকিয়ে একাধিকবার বমিও করেছে সে।

এ ছাড়া নুরুল হাসান এবং ম্যানেজার নাফিস ইকবালও বেশ ভুগেছেন। তাদের অবস্থা দেখে বাকিরাও আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। সব মিলিয়ে ভয়ংকর এক অভিজ্ঞতাই হয়েছে ক্রিকেটারদের।

সেন্ট লুসিয়া থেকে মার্টিনেক হয়ে ডোমিনিকা। সব মিলিয়ে দীর্ঘ ৫ ঘণ্টার ভ্রমণ। সমুদ্র পার হতে হবে ফেরি দিয়ে। শুরুতে বাংলাদেশের ক্রিকেটারা বেশ উপভোগ করছিলেন উত্তাল সমুদ্র। যত সময় গড়াতে থাকে, ততই ঢেউ আর ফেরির দুলোনিতে মনে ভয় ধরে যায় তাদের। বাঁহাতি পেসার শরিফুল ইসলাম, উইকেটরক্ষক নুরুল হাসান, টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, ম্যানেজার নাফিস ইকবাল এবং সাপোর্ট স্টাফের এক সদস্য ‘মোশন সিকনেসে’ আক্রান্ত হন।

তাদের কয়েকজন বমিও করেন এসময়। কয়েকজন ভীষণ অসুস্থ হয়ে শুয়ে পড়েন ফ্লোরেই। এমতাবস্থায় কিছুতেই তারা বাকি পথ ফেরিতে করে যেতে চাইছিলেন না। কিন্তু যাত্রার মাঝপথে আর বিরতি দিয়ে বিমান জোগাড় করা সম্ভব হয়নি। ফলে বাকি পথ এভাবেই পাড়ি দিয়েছেন ক্রিকেটাররা।

পরে সাগর কিছুটা শান্ত হয়ে উঠলে ক্রিকেটাররা পরিবেশের সঙ্গে মানিয়ে নেন অনেকটাই। শেষ পর্যন্ত ভয়ংকর এই যাত্রা শেষ করে সেন্ট লুসিয়া থেকে ডোমিনিকায় পৌঁছেছে দল।এই ভয়ংকর অভিজ্ঞতার পর টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ প্রকাশ্যেই ক্ষোভ প্রকাশ করেছে। ক্রিকেটাররাও ক্ষুব্ধ হয়েছেন বিসিবির এমন দায়িত্বজ্ঞানহীন সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে। ক্রিকেটাররা এখন বিশ্রামে আছেন। বিভীষিকাময় এক ভ্রমণের পর ডোমিনিকায় তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ শুরু হবে টাইগারদের। ২ জুলাই প্রথম টি-টোয়েন্টি।

ফেরি যাত্রায় দলের সঙ্গে ছিলেন না ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবাল। সমুদ্রভীতির কারণে তিনি আগেই জানিয়ে দেন ফেরিতে ডমিনিকা যাবেন না। অবশ্য টি–টোয়েনটি দলে নেই বলে তামিমের ডমিনিকা আসাটাও জরুরি ছিল না। ওয়ানডে সিরিজের আগে গায়ানায় তাঁর আবার দলের সঙ্গে যোগ দেওয়ার কথা।