শেষ পাতা

উন্নয়নের জন্য সেবা সংস্থাগুলোর মধ্যে সমন্বয় প্রয়োজন

চট্টগ্রামে এলজিআরডিমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম: এলজিআরডিমন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম বলেছেন, চট্টগ্রামের উন্নয়ন হলে বাংলাদেশের উন্নয়ন হবে। একই সঙ্গে সারা দেশে বিভিন্ন অঞ্চলে যেসব সম্ভাবনা রয়েছে তারও উন্নতি হবে। দেশের উন্নয়নের স্বার্থেই চট্টগ্রামের উন্নয়নকে অগ্রাধিকার দিতে হবে। এক্ষেত্রে যোগাযোগ ব্যবস্থা, লজিস্টিক ও অন্য সুবিধাগুলো কাজে লাগাতে হবে। পরিবেশের ভারসাম্য বিবেচনা করতে হবে এবং একই সঙ্গে উন্নয়ন যাতে বাধাগ্রস্ত না হয় সেদিকেও লক্ষ্য রাখতে হবে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

গতকাল সকালে ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারস্থ বঙ্গবন্ধু কনফারেন্স হলে দি চিটাগাং চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি’র উদ্যোগে আয়োজিত ‘চট্টগ্রামের উন্নয়ন, শিল্পায়ন ও ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা’ শীর্ষক আলোচনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

এলজিআরডিমন্ত্রী বলেন, মীরসরাই শিল্পনগরে প্রায় ৩০ লাখ লোকের ভাগ্যের পরিবর্তন হবে। কক্সবাজার থেকে কর্ণফুলী টানেল হয়ে মীরসরাই পর্যন্ত মেরিন ড্রাইভ নির্মাণ করা হলে তা পর্যটনসহ লাখ লাখ মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে। এ সময় তিনি সভার প্রস্তাবনাগুলো সম্মিলিতভাবে প্রধানমন্ত্রীর কাছে উপস্থাপন করা হবে বলে জানান।

মন্ত্রী বলেন, বিভিন্ন সমীক্ষা থেকে জানা গেছে, হালদা নদী থেকে পানি নিয়ে মীরসরাই অঞ্চলে সরবরাহ করা হলে প্রাকৃতিক মৎস্য প্রজননের ক্ষেত্রে কোনোরূপ নেতিবাচক প্রভাব পড়বে না। বৃষ্টি ও কাপ্তাই হ্রদ হতে নেমে আসা পানি সরাসরি সাগরে চলে যায়। এ পানি সংগ্রহ করে শিল্পায়নে ব্যবহার করা হলে তা মীরসরাই বঙ্গবন্ধু শিল্পনগরে ১২০ কোটি লিটার পানির চাহিদা পূরণে সহায়ক হবে। এক্ষেত্রে বিভিন্ন বিকল্প উৎস হতে পর্যাপ্ত পানি সংরক্ষণের জন্য ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট করা হবে বলে অবহিত করেন। তিনি বলেন, আগামী ২০৪১ সালের মধ্যে ৮৫ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনে সরকারি পরিকল্পনা রয়েছে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..