কোম্পানি সংবাদ পুঁজিবাজার

উভয় বাজারে সূচক বাড়লেও লেনদেন কমেছে

নিজস্ব প্রতিবেদক: গতকাল মঙ্গলবার সপ্তাহের তৃতীয় কার্যদিবসে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূচকের উত্থান হলেও লেনদেন সাড়ে ১১ কোটি টাকা কমেছে। এদিন বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ারদর অপরিবর্তিত ছিল। বাকি শেয়ারের মধ্যে বেশিরভাগ শেয়ারের দর বাড়ায় সূচক বেড়েছে। গতকাল বাজারে লেনদেন শুরু হওয়ার পর থেকে বাজারে উত্থান-পতনের চিত্র দেখা যায়, তবে বেলা সাড়ে ১১টা থেকে সাড়ে ১২টা পর্যন্ত সূচকের গতি অনেকটা নিন্মে চলে গেলেও শেষ আধাঘণ্টার লেনদেন বাজারেরর গতি ঊর্ধ্বমুখী করে দেয়। অন্যদিকে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) একই চিত্র লক্ষ্য করা গেছে।

বাজার পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, গতকাল ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স সাত দশমিক ১৫ পয়েন্ট বা শূন্য দশমিক ১৭ শতাংশ বেড়ে চার হাজার এক দশমিক ৮১ পয়েন্টে পৌঁছায়। ডিএসইএস বা শরিয়াহ সূচক এক দশমিক ৮৮ পয়েন্ট বা শূন্য দশমিক ২০ শতাংশ বেড়ে ৯২৩ দশমিক ৮৪ পয়েন্টে অবস্থান করে। অন্যদিকে ডিএস৩০ সূচক তিন দশমিক ৭৫ পয়েন্ট বা শূন্য দশমিক ২৭ শতাংশ বেড়ে এক হাজার ৩৪৬ দশমিক ৪৭ পয়েন্টে স্থির হয়।

গতকাল ডিএসইতে লেনদেন হয় ১৩৮ কোটি ৫৬ লাখ ৫৫ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ১৫০ কোটি ছয় লাখ ২০ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ হিসাবে লেনদেন কমেছে ১১ কোটি ৪৯ লাখ ৬৫ হাজার টাকার। এদিন পাঁচ কোটি এক লাখ ৬৪ হাজার ২০টি শেয়ার ২৯ হাজার ৬৯ বার হাতবদল হয়।

এদিন মোট ৩১২টি কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়। দর বেড়েছে ৪৭টির এবং কমেছে ৩৬টির। বাকি ২২৯টি কোম্পানির শেয়ারদর অপরিবর্তিত ছিল। গতকাল ডিএসইর বাজার মূলধন ২৬০ কোটি ৮৬ লাখ ৯১ হাজার টাকা বেড়ে দাঁড়িয়েছে তিন লাখ ১২ হাজার ২৯৪ কোটি ৩০ লাখ ৩৩ হাজার টাকায়।

গতকাল টাকার অঙ্কে লেনদেনের শীর্ষে উঠে আসে বীকন ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড। কোম্পানিটির ১২ কোটি ৭৪ লাখ ১৬ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। শেয়ারটির দর এক টাকা ৬০ পয়সা বেড়েছে। দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেডের আট কোটি ৭৯ লাখ ৫৭ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। দর এক টাকা ৯০ পয়সা বেড়েছে। এক্সপোর্ট-ইমপোর্ট (এক্সিম) ব্যাংক অব বাংলাদেশ লিমিটেডের সাত কোটি ৯৫ লাখ ৮১ হাজার টাকার লেনদেন হয়েছে। কোম্পানিটির শেয়ারদর অপরিবর্তিত ছিল।

এরপরের অবস্থানগুলোতে থাকা ওরিয়ন ফার্মা লিমিটেডের সাত কোটি ৩০ লাখ টাকার, প্রগেসিভ লাইফ ইন্স্যুরেন্সের তিন কোটি ৯৯ লাখ ৬৬ হাজার টাকার, ওয়াটা কেমিক্যালসের তিন কোটি ৫৮ লাখ ৩০ হাজার টাকার, বাংলাদেশ সাবমেরিন কেব্ল কোম্পানির তিন কোটি ৩৩ লাখ ৭৫ হাজার টাকার, রূপালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের তিন কোটি ৩২ লাখ ২৮ হাজার টাকার, ইন্দো বাংলা ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেডের তিন কোটি ১০ লাখ ৮২ হাজার টাকার এবং ওরিয়ন ইনফিউশনসের দুই কোটি ২৪ লাখ ৭৪ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।

৯ দশমিক ৯৮ শতাংশ বেড়ে দর বৃদ্ধির শীর্ষে ছিল প্যারামাউন্ট ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড। ইউনাইটেড ইন্স্যুরেন্সের ৯ দশমিক ৪৮ শতাংশ, রূপালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের চার দশমিক ৩৪ শতাংশ, অগ্রণী ইন্স্যুরেন্সের তিন দশমিক ৬২ শতাংশ, ইস্টার্ন ইন্স্যুরেন্সের দুই দশমিক ৮৩ শতাংশ, বেক্সিমকো ফার্মার দুই দশমিক ৭১ শতাংশ, বাংলাদেশ সাবমেরিন কেব্লের দুই দশমিক ৪৪ শতাংশ, এসিআইয়ের দুই দশমিক ২৭ শতাংশ, জনতা ইন্স্যুরেন্সের দুই দশমিক শূন্য চার শতাংশ এবং ইন্দো বাংলা ফার্মার দুই শতাংশ শেয়ারদর বেড়েছে।

অন্যদিকে তিন দশমিক ৫৫ শতাংশ দর কমে পতনের শীর্ষে উঠে আসে ঢাকা ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড। সোনারবাংলা ইন্স্যুরেন্সের দর তিন দশমিক ৩৮ শতাংশ, ফিনিক্স ইন্স্যুরেন্সের দর তিন দশমিক ১৫ শতাংশ, ফাইন ফুডসের দুই দশমিক ৭৩ শতাংশ, পূবালী ব্যাংকের দুই দশমিক ৪৭ শতাংশ, সাভার রিফ্রাক্টরিজের দুই দশমিক ১৮ শতাংশ, ঢাকা ডায়িংয়ের এক দশমিক ৯৬ শতাংশ, ফার্মা এইডসের এক দশমিক ৭৪ শতাংশ, গ্ল্যাক্সোস্মিথক্লাইন (জিএসকে) বাংলাদেশ লিমিটেডের এক দশমিক ৬৭ শতাংশ এবং এমবি ফার্মার শেযারদর এক দশমিক ৬৫ শতাংশ কমেছে।

অন্যদিকে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) প্রধান সূচক সিএসসিএক্স ১৫ দশমিক ৮৪ পয়েন্ট বা শূন্য দশমিক ২৩ শতাংশ বেড়ে ছয় হাজার ৮৮২ দশমিক ৩১ পয়েন্টে এবং সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ২৬ দশমিক শূন্য ৯ পয়েন্ট বা শূন্য দশমিক ২৩ শতাংশ বেড়ে ১১ হাজার ৩৬৪ দশমিক ৬৩ পয়েন্টে অবস্থান করে। সিএসইতে ১২০টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হয়েছে। দর বেড়েছে ২৭টির, কমেছে ১৪টির এবং ৭৯টির দর অপরিবর্তিত ছিল। সিএসইতে লেনদেন হয়েছে তিন কোটি ৫৮ লাখ ১১ হাজার ৪২৫ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ৮৯ কোটি ১৭ লাখ ৪৫ হাজার ৪৬৯ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ হিসাবে লেনদেন কমেছে ৮৫ কোটি ৫৯ লাখ ৩৪ হাজার টাকার।

সিএসইতে লেনদেনের শীর্ষে ছিল উত্তরা ব্যাংক লিমিটেড। কোম্পানিটির এক কোটি ২৬ লাখ ৪০ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালসের ২০ লাখ ৯০ হাজার টাকার এবং এরপরের অবস্থানে থাকা বীকন ফার্মার ১৯ লাখ ৮০ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..