কোম্পানি সংবাদ পুঁজিবাজার

উভয় বাজারে সূচক শেয়ারদর ও লেনদেনে ইতিবাচক গতি

নিজস্ব প্রতিবেদক: টানা চার কার্যদিবস উত্থানের পর গত মঙ্গলবার সংশোধন হয় পুঁজিবাজার। গতকাল ফের উভয় বাজারে ইতিবাচক গতি দেখা গেছে। ৫১ শতাংশ কোম্পানির দর বৃদ্ধিতে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ৩২ পয়েন্ট ঊর্ধ্বমুখী হয়। সে সঙ্গে লেনদেন আগের কার্যদিবসের তুলনায় কিছুটা বেড়েছে। গতকাল ডিএসইতে লেনদেনের শুরুর আধঘণ্টার মধ্যে বিক্রির চাপে সূচক নেমে যায়। এরপর ধীরে ধীরে ঊর্ধ্বমুখী হলেও মাঝে মাঝে বিক্রির চাপে সূচক নেমে গিয়েছিল। তবে শেষ সময়ে ইতিবাচক অবস্থানে থাকতে পেরেছে। চিটাগং স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সূচক, শেয়ারদর ও লেনদেনে একই চিত্র লক্ষ করা যায়।

বাজার পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, গতকাল ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৩২ দশমিক ১৮ পয়েন্ট বা দশমিক ৭৩ শতাংশ বেড়ে চার হাজার ৪৪০ দশমিক ২৯ পয়েন্টে অবস্থান করে।

ডিএসইএস বা শরিয়াহ্ সূচক ১০ দশমিক ৯৮ পয়েন্ট বা এক দশমিক শূন্য আট শতাংশ বেড়ে এক হাজার ১৮ দশমিক ৬২ পয়েন্টে এবং ডিএস৩০ সূচক ১২ দশমিক ৭০ পয়েন্ট বা দশমিক ৮৪ শতাংশ বেড়ে এক হাজার ৫১৯ দশমিক ৮৪ পয়েন্টে অবস্থান করে। গতকাল ডিএসইর বাজার মূলধন দুই হাজার ৪৪৪ কোটি ৭২ লাখ টাকা বেড়ে দাঁড়িয়েছে তিন লাখ ৪০ হাজার ১৮০ কোটি ১৮ লাখ ৩০ হাজার টাকায়। ডিএসইতে লেনদেন হয় ৪৩৮ কোটি ৪২ লাখ ৪১ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ৪০৬ কোটি ৮০ লাখ ৫৩ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ হিসেবে লেনদেন বেড়েছে ৩১ কোটি ৬২ লাখ টাকা। এদিন ১৫ কোটি ৭২ লাখ ৭৭ হাজার ১০ শেয়ার এক লাখ ৩১ হাজার ২২৪ বার হাতবদল হয়। লেনদেন হওয়া ৩৫৬ কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১৮৩টির, কমেছে ১২৬টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ৪৭টির দর।

গতকাল টাকার অঙ্কে লেনদেনের শীর্ষে উঠে আসে লাফার্জহোলসিম বাংলাদেশ। কোম্পানিটির ৩৭ কোটি ৭১ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। দর বেড়েছে আড়াই টাকা। এরপর খুলনা পাওয়ারের ১৫ কোটি ৮৫ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে এক টাকা। স্কয়ার ফার্মার ১৫ কোটি ৫০ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে চার টাকা ৩০ পয়সা। প্যারামাউন্ট টেক্সটাইলের ১৩ কোটি ৮২ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। দর বেড়েছে এক টাকা ৪০ পয়সা। সুহƒদ ইন্ডাস্ট্রিজের ১২ কোটি ৯৭ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দরপতন হয় ৭০ পয়সা। এছাড়া কাসেম ইন্ডাস্ট্রিজের ১০ কোটি ১১ লাখ টাকা, এসকে ট্রিমসের ৯ কোটি ৭৪ লাখ, এসএস স্টিলের ৯ কোটি ৬২ লাখ, এডিএন টেলিকমের ৯ কোটি ৫৮ লাখ ও পাইওনিয়ার ইন্স্যুরেন্সের সাড়ে আট কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।

১০ শতাংশ বেড়ে এসইএমএল আইবিবিএল শরিয়াহ্ ফান্ড দর বৃদ্ধির শীর্ষে উঠে আসে। এরপর ইস্টার্ন কেব্লসের দর ৯ দশমিক ৯৬ শতাংশ, কাসেম ইন্ডাস্ট্রিজের ৯ দশমিক ৯৪ শতাংশ, এসইএমএল এফবিএসএল গ্রোথ ফান্ডের ৯ দশমিক ৬৩ শতাংশ, সি পার্ল রিসোর্টের সাড়ে ৯ শতাংশ, সিএপিএম বিডিবিএল মিউচুয়াল ফান্ডের ৯ দশমিক ৪৫ শতাংশ, গোল্ডেন হার্ভেস্ট এগ্রোর ৯ দশমিক ৩৯ শতাংশ, আইসিবির ৯ দশমিক ১৬ শতাংশ, প্রাইম ফাইন্যান্স ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ডের আট দশমিক ৯২ শতাংশ, ইন্টারন্যাশনাল লিজিং ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেসের দর আট দশমিক ৮৮ শতাংশ বেড়েছে।

আট দশমিক ৫৮ শতাংশ কমে দরপতনের শীর্ষে উঠে আসে নর্দার্ণ জুট। সিলকো ফার্মার দর ছয় দশমিক ৩৬ শতাংশ, তসরিফা ইন্ডাস্ট্রিজের পাঁচ দশমিক ৬০ শতাংশ, এ্যাপোলো ইস্পাতের পাঁচ দশমিক ৫৫ শতাংশ, স্ট্যান্ডার্ড ইন্স্যুরেন্সের পাঁচ দশমিক ২৪ শতাংশ, ন্যাশনাল ফিড মিলের চার দশমিক ৫৪ শতাংশ, গোল্ডেন সনের চার দশমিক ৪৭ শতাংশ, মোজাফফর হোসেন স্পিনিংয়ের তিন দশমিক ৯৬ শতাংশ, এডিএন টেলিকমের তিন দশমিক ৬৪ শতাংশ ও মেঘনা কনডেন্সড মিল্কের দর তিন দশমিক ৬৪ শতাংশ কমেছে।

অন্যদিকে সিএসইতে গতকাল সিএসসিএক্স মূল্যসূচক ৬৯ দশমিক ৫১ পয়েন্ট বা দশমিক ৮৫ শতাংশ বেড়ে আট হাজার ২০৮ দশমিক ৯৯ পয়েন্টে এবং সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ১০৯ দশমিক ৮৯ পয়েন্ট বা দশমিক ৮১ শতাংশ বেড়ে ১৩ হাজার ৫৩৪ দশমিক শূন্য তিন পয়েন্টে অবস্থান করে। গতকাল সর্বমোট ২৪২ কোম্পানি এবং মিউচুয়াল ফান্ডের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১৩৩টির, কমেছে ৮৩টির, অপরিবর্তিত ছিল ২৬টির।

সিএসইতে এদিন ১৭ কোটি ৭১ লাখ ৪৫ হাজার ৮৬৩ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হয়। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয় ১৩ কোটি ৪০ লাখ ৪১ হাজার ৯০৭ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ হিসেবে লেনদেন বেড়েছে চার কোটি ৩১ লাখ টাকা।

সিএসইতে লেনদেনের শীর্ষে অবস্থান করে লাফার্জহোলসিম বাংলাদেশ। কোম্পানিটির এক কোটি ৭১ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। এর পরের অবস্থানগুলোয় থাকা প্যারামাউন্ট টেক্সের এক কোটি দুই লাখ, জেনেক্স ইনফোসিসের ৯৩ লাখ, মার্কেন্টাইল ইন্স্যুরেন্সের ৮৯ লাখ, এসএস স্টিলের ৮১ লাখ, আরডি ফুডের ৭১ লাখ, ড্যাফোডিল কম্পিউটার্সের ৬৭ লাখ, এডিএন টেলিকমের ৫৪ লাখ, এসকে ট্রিমসের ৫২ লাখ ও খুলনা পাওয়ারের ৪১ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..