প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

উভয় বাজারে সূচক ঊর্ধ্বমুখী: লেনদেন বেড়েছে ২৭৪ কোটি টাকা

 

নিজস্ব প্রতিবেদক: সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবসে উভয় পুঁজিবাজারে সূচক ও লেনদেন ঊর্ধ্বমুখী অবস্থানে রয়েছে। দুই শেয়ারবাজার মিলে লেনদেন বেড়েছে ২৭৪ কোটি টাকা। এর মধ্যে ঢাকার বাজারে বেড়েছে ২৫৪ কোটি এবং চিটাগাংয়ের বাজারে বেড়েছে প্রায় ২০ কোটি টাকা। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে সবগুলো সূচক বাড়লেও চিটাগাং স্টক এক্সচেঞ্জ সিএসই ৫০ ছাড়া বাকি সব সূচক বেড়েছে। গতকালও বাজার মূলধন, ডিএসইএক্স ও ডিএসই শরিয়াহ্ সূচকের নতুন উচ্চতায় ওঠার রেকর্ড হয়। বেশিরভাগ শেয়ারের দর ছিল ঊর্ধ্বমুখী। গতকাল ডিএসইতে লেনদেনের শুরুতে কেনার চাপ বেশি থাকায় সূচক বাড়তে থাকে কিন্তু বেলা ১২টার সময় বিক্রির চাপ শুরু হলে সূচক কমতে থাকে। শেষ পর্যন্ত ৯ পয়েন্ট সূচক বৃদ্ধি দিয়ে লেনদেন শেষ হয়।

বাজার পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, ডিএসইতে এক হাজার ২৬৩ কোটি ৪৬ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হয়। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ১০০৯ কোটি ৩২ লাখ টাকার শেয়ার। লেনদেন বেড়েছে ২৫৪ কোটি ১৪ লাখ টাকা। গতকাল ডিএসইর বাজার মূলধন ছিল তিন লাখ ৯৩ হাজার ১৪ কোটি ৯৬ লাখ ২৮ হাজার ৮৩৯ টাকা। ৩৮ কোটি ৮৯ লাখ ৪৪ হাজার ৮৪৩টি শেয়ার এক লাখ ৬৯ হাজার ৪৯৪ বার হাতবদল হয়। লেনদেন হওয়া ৩৩০টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৫৬টির, কমেছে ১৪২টির, অপরিবর্তিত ছিল ৩২টির দর।

ডিএসইর প্রধান মূল্যসূচক ডিএসইএক্স ৯ দশমিক ৮৫ পয়েন্ট বা  দশমিক ১৬ শতাংশ বেড়ে পাঁচ হাজার ৮৪৪ দশমিক ৭২ পয়েন্টে অবস্থান করছে। ডিএসইএস বা শরিয়াহ্ সূচক দশমিক ৪১ পয়েন্ট বা দশমিক শূন্য তিন শতাংশ বেড়ে এক হাজার ৩২৭ দশমিক ৪০ পয়েন্টে আর ডিএস ৩০ সূচক দুই দশমিক ২০ পয়েন্ট বা দশমিক ১০ শতাংশ বেড়ে দুই হাজার ১৩৩ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

সবচেয়ে বেশি মূল্যের শেয়ার লেনদেন হয় ইফাদ অটোসের। ৭৩ কোটি ৪৩ লাখ টাকায় ৫১ লাখ ১২ হাজার ৪৫টি শেয়ার লেনদেন হয়। শেয়ারটির দর চার টাকা ৭০ পয়সা বেড়ে ১৪৩ টাকা ৬০ পয়সায় স্থির হয়। লেনদেনে পরের অবস্থানগুলোয় ছিল কনফিডেন্স সিমেন্ট, কেয়া কসমেটিকস, ডরিন পাওয়ার, ইউনাইটেড পাওয়ার, জেনারেশন নেক্সট, ফু-ওয়াং ফুড, আফতাব অটো, ড্রাগন সোয়েটার, লংকাবাংলা ফাইন্যান্স। সবচেয়ে বেশিসংখ্যক শেয়ার লেনদেন হয় জেনারেশন নেক্সটের। তিন কোটি ১৬ লাখ ৫৪ হাজার ৮৬৬টি শেয়ার ৩৮ কোটি তিন লাখ টাকায় লেনদেন হয়। এর পরের অবস্থানগুলোয় ছিল জেনারেশন নেক্সট, কেয়া কসমেটিকস, ফু-ওয়াং ফুড, ড্রাগন সোয়েটার, সিঅ্যান্ডএ টেক্স, মার্কেন্টাইল ব্যাংক, তুং হাই, ইউনাইটেড এয়ার, প্রিমিয়ার লিজিং, ওয়ান ব্যাংক লিমিটেড। ছয় দশমিক ৬৬ শতাংশ দর বেড়ে বৃদ্ধির শীর্ষে উঠে আসে কনফিডেন্স সিমেন্ট। শেয়ারটির সর্বশেষ দর হয় ১৫৩ টাকা ৭০ পয়সা। এরপর ছয় দশমিক ২২ শতাংশ বেড়েছে ড্রাগন সোয়েটারের। আফতাব অটো ছয় দশমিক ১৪ শতাংশ, এপেক্স ফুড চার দশমিক ৬৪ শতাংশ, ভ্যানগার্ড এএমএল বিডি মিউচুয়াল ফান্ডের দর চার দশমিক ২৫ শতাংশ বেড়েছে। অন্যদিকে পাঁচ দশমিক ২৬ শতাংশ দর কমেছে নূরানী ডায়িংয়ের। ফু-ওয়াং ফুড চার দশমিক ৮৩ শতাংশ, ইস্টার্ন ইন্স্যুরেন্স তিন দশমিক ৬৪ শতাংশ, কেয়া কসমেটিকসের দর তিন দশমিক ২৯ শতাংশ, পূরবী জেনারেলের দর তিন দশমিক ১৭ শতাংশ কমেছে।

চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) গতকাল সিএসসিএক্স মূল্যসূচক ১৩ দশমিক ২০ পয়েন্ট বেড়ে ১০ হাজার ৯৫২ পয়েন্টে, সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ৩৫ পয়েন্ট বেড়ে ১৮ হাজার ১২৬ পয়েন্টে অবস্থান করছে। ২৬৮টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের শেয়ার এবং ইউনিট লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে ১২১টির দর বেড়েছে। কমেছে ১১৪টির। অপরিবর্তিত ছিল ৩৩টির দর। এদিন ৭৪ কোটি ১৪ লাখ ৯৪ হাজার ৫১ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ৫৪ কোটি ৩৪ লাখ তিন হাজার টাকার শেয়ার। সে হিসেবে সিএসইতে লেনদেন বেড়েছে ১৯ কোটি ৮০ লাখ টাকা। গতকাল সিএসইতে লেনদেনের শীর্ষে ছিল গ্রামীণফোন। কোম্পানিটির পাঁচ কোটি ৫৬ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। ফু-ওয়াং ফুড চার কোটি ২১ লাখ টাকার, কেয়া কসমেটিকস তিন কোটি ৪৫ লাখ টাকার, জেনারেশন নেক্সট তিন কোটি টাকার, আফতাব অটো দুই কোটি ৯১ লাখ টাকার, নাভানা সিএনজি দুই কোটি ৬৬ লাখ টাকার, ইফাদ অটোস দুই কোটি ২৯ লাখ টাকার, কনফিডেন্স সিমেন্ট এক কোটি ৬৭ লাখ টাকার, বেক্সিমকো এক কোটি ৫৯ লাখ টাকার ও ড্রাগন অটোসের এক কোটি ৫১ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।