পুঁজিবাজার

উভয় বাজারে সূচক শেয়ারদর ও লেনদেনে ইতিবাচক গতি

নিজস্ব প্রতিবেদক: সপ্তাহের দ্বিতীয় দিনে গতকাল ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) বেশিরভাগ শেয়ারের দর বৃদ্ধির পাশাপাশি সবগুলো সূচক ইতিবাচক ছিল। সে সঙ্গে লেনদেনও বেড়েছে। তবে লেনদেন ৩০০ কোটি টাকার ঘরেই রয়ে গেছে। ডিএসইতে ৪৬ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। কমেছে ৩৮ শতাংশের। গতকাল লেনদেনের শুরুতে কেনার চাপে সূচক ঊর্ধ্বমুখী হয়। বেলা সাড়ে ১১টার পর বিক্রির চাপ বাড়লে সূচকের নিন্মমুখী পতন হয়। তবে খুব বেশি পতন হয়নি। মোটামুটি স্থিতিশীল অবস্থানে থেকে লেনদেন শেষ হয়। লেনদেন শেষে প্রধান সূচক ১৭ পয়েন্ট ইতিবাচক ছিল। বাকি দুই সূচকও ইতিবাচক ছিল। অন্যদিকে চিটাগং স্টক এক্সচেঞ্জেও (সিএসই) একই চিত্র দেখা গেছে।
বাজার পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, গতকাল ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ১৭ দশমিক ৪৯ পয়েন্ট বা দশমিক ৩৫ শতাংশ বেড়ে চার হাজার ৯৫৯ দশমিক ৭৩ পয়েন্টে অবস্থান করে।
ডিএসইএস বা শরিয়াহ্ সূচক এক দশমিক ৩৬ পয়েন্ট বা দশমিক ১১ শতাংশ বেড়ে এক হাজার ১৫৫ দশমিক ৬১ পয়েন্টে অবস্থান করে। আর ডিএস৩০ সূচক ১৬ দশমিক ৮১ পয়েন্ট বা দশমিক ৯৬ শতাংশ বেড়ে এক হাজার ৭৫৫ দশমিক ৭৪ পয়েন্টে অবস্থান করে। গতকাল ডিএসইর বাজার মূলধন বেড়ে তিন লাখ ৭১ হাজার ৪৩১ কোটি ২১ লাখ ৯৪ হাজার ৪৩৭ টাকা হয়। ডিএসইতে লেনদেন হয় ৩৮৮ কোটি ৮০ লাখ ৫৭ হাজার ৭৯৭ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ৩১৭ কোটি আট লাখ ৪২ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ হিসেবে লেনদেন বেড়েছে ৭১ কোটি ৭২ লাখ টাকা। এদিন ৯ কোটি পাঁচ লাখ ১৫ হাজার ৫২৬টি শেয়ার এক লাখ ১৮ হাজার ৪৬৩ বার হাতবদল হয়। লেনদেন হওয়া ৩৫৩ কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১৬১টির, কমেছে ১৩৬টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ৫৬টির দর।
গতকাল টাকার অঙ্কে লেনদেনের শীর্ষে উঠে আসে মুন্নু জুট স্টাফলার্স। কোম্পানিটির সাড়ে ৩৩ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। দর বেড়েছে ১১৫ টাকা ৩০ পয়সা। এর পর ন্যাশনাল টিউবসের সোয়া ২১ কোটি টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর কমেছে ১২ টাকা ২০ পয়সা। তৃতীয় অবস্থানে থাকা স্টাইল ক্রাফটের ১৩ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। দর বেড়েছে ৬১ টাকা। মুন্নু সিরামিকের ১২ কোটি ৬৮ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। দর বেড়েছে ছয় টাকা ১০ পয়সা। বীকন ফার্মার সাড়ে ১০ কোটি টাকা লেনদেন হয়। দর কমেছে ৯০ পয়সা। এছাড়া বাংলাদেশ সাবমেরিন কেব্লসের ১০ কোটি ৫১ লাখ টাকা, জেএমআই সিরিঞ্জের ১০ কোটি, বিএটিবিসির সাড়ে ৯ কোটি, লিগ্যাসি ফুটওয়্যারের পৌনে ৯ কোটি, ভিএফএস থ্রেডের সোয়া আট কোটি টাকা লেনদেন হয়।
প্রায় ১০ শতাংশ বেড়ে দর বৃদ্ধির শীর্ষে উঠে আসে জিকিউ বলপেন। কাসেম ইন্ডাস্ট্রিজের দর ৯ দশমিক ৬৮ শতাংশ, ভিএফএস থ্রেডের ৯ দশমিক ৬২ শতাংশ, জেমিনি সি ফুডের ছয় দশমিক ৬৪ শতাংশ, স্টাইল ক্রাফটের সাড়ে ছয় শতাংশ, পপুলার লাইফের পাঁচ দশমিক ৮৭ শতাংশ, বিএটিবিসির পাঁচ দশমিক ৮৩ শতাংশ, স্ট্যান্ডার্ড সিরামিকের পাঁচ দশমিক ৬৯ শতাংশ, মুন্নু স্টাফলার্সের সাড়ে পাঁচ শতাংশ ও এমএল ডায়িংয়ের দর পৌনে পাঁচ শতাংশ বেড়েছে।
৯ দশমিক ৩০ শতাংশ কমে দরপতনের শীর্ষে উঠে আসে এসইএমএল এফবিএসএল গ্রোথ ফান্ড। এসইএমএল আইবিবিএল শরিয়াহ্ ফান্ডের দর আট দশমিক ৪১ শতাংশ, উসমানিয়া গ্লাসের ছয় দশমিক ৯০ শতাংশ, ঢাকা ইন্স্যুরেন্সের সাড়ে পাঁচ শতাংশ, ন্যাশনাল টিউবসের পাঁচ দশমিক ৪০ শতাংশ, কন্টিনেন্টাল ইন্স্যুরেন্সের পাঁচ দশমিক ১০ শতাংশ, প্রাইম ফাইন্যান্স ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ডের পাঁচ শতাংশ, এটলাস বাংলাদেশের চার দশমিক ৭২ শতাংশ ও প্রাইম ইন্স্যুরন্সের দর সাড়ে চার শতাংশ কমেছে।
সিএসইতে গতকাল সিএসসিএক্স মূল্যসূচক ৫৪ দশমিক ৩৮ পয়েন্ট বা দশমিক ৫৯ শতাংশ বেড়ে ৯ হাজার ১৪৬ দশমিক শূন্য দুই পয়েন্টে এবং সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ৮৯ পয়েন্ট বা দশমিক ৫৯ শতাংশ বেড়ে ১৫ হাজার ৬২ পয়েন্টে অবস্থান করে। গতকাল সর্বমোট ২৪৭ কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১২৫টির, কমেছে ৮৬টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ৩৬টির দর।
সিএসইতে এদিন ৩৩ কোটি ৫২ লাখ ৫৫ হাজার ৪৩৫ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হয়। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ৩২ কোটি ২১ লাখ ৪৯ হাজার ৯১৪ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ হিসাবে লেনদেন বেড়েছে এক কোটি ৩১ লাখ টাকা। সিএসইতে গতকাল লেনদেনের শীর্ষে অবস্থান করে বিএটিবিসি। কোম্পানিটির ১১ কোটি ২৫ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। লিন্ডে বিডির ছয় কোটি ৫৩ লাখ টাকার, ডরিন পাওয়ারের তিন কোটি ৩০ লাখ টাকার, ট্রাস্ট ব্যাংকের দুই কোটি ৫৭ লাখ টাকার, মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের ৭৯ লাখ টাকার, মুন্নু সিরামিকের ৫৮ লাখ টাকার, লংকাবাংলা ফাইন্যান্সের ৫০ লাখ টাকার, বাংলাদেশ সাবমেরিন কেব্লসের প্রায় ৫০ লাখ টাকার, ভিএফএস থ্রেডের ৪১ লাখ টাকার ও বেক্সিমকোর ৩০ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।

সর্বশেষ..