দিনের খবর

এই মুহূর্তে সংঘাতে যেতে চায় না বিএনপি : ফখরুল

সরকার চায় না খালেদা জিয়া মুক্তি পাক: ফখরুল

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, এই মুহূর্তে বিএনপি কোনো সংঘাতে যেতে চায় না। এ কারণে ঢাকায় পূর্ব নির্ধারিত র‌্যালি করেনি বিএনপি। আজ মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর নয়াপল্টন বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের অনির্ধারিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।মির্জা ফখরুল বলেন, ‘জাতিসংঘ ঘোষিত মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে আমরা একটি র‌্যালি করার ঘোষণা দিয়েছিলাম। আমরা সেভাবে প্রস্তুতি নিয়েছিলাম। আমাদের বলা হয়েছে নিচে নামলেই ব্যবস্থা নেবে। আমরা এই মুহূর্তে কোনো সংঘাতে জড়াতে চাই না। তাই র‌্যালি করিনি। আমরা আমাদের অধিকারের কথাগুলো বলার চেষ্টা করছি। জনসভা করতে গেলে অনুমতি নিতে হয়। সভা করতে দেওয়া হয় না। এমনকি সাংগঠনিক কার্যক্রমগুলোও করতে দেওয়া হয় না। ’ 

অবশ্য গত ২৪ নভেম্বর বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে এক সমাবেশে বি​এনপি মহাসচিব বলেছিলেন এখন থেকে সমাবেশ করার জন্য তারা আর অনুমতি নেবেন না। এর দুদিন পর ২৬ নভেম্বর জাতীয়তাবাদী মুক্তিযুদ্ধের প্রজন্ম দলের নেতৃত্বে খালেদার মুক্তির দাবিতে হাইকোর্টের সামনে অঘোষিত বিক্ষোভ ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করে। সেদিন পুলিশের সঙ্গে বিএনপি কর্মীদের পাল্টাপাল্টি ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। বেশ কিছু গাড়িও ভাঙচুর করা হয়।

বিএনপির আমলে সংখ্যালঘুদের কোনো নির্যাতন করা হয়নি দাবি করেছেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ভারতে নাগরিকত্ব আইন পাসের সময়ে বলা হয়েছে, বিএনপির সরকারের আমলে বাংলাদেশে সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতন করা হয়েছে এবং অনুপ্রবেশ ঘটেছে। তিনি এর প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, বিএনপির আমলে সংখ্যালঘুর স্বার্থ রক্ষা করা হয়েছে। সংখ্যালঘুদের ওপর আওয়ামী লীগের আমলে যতটা হয়েছে, তা আর কখনো হয়নি।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, বাংলাদেশের এখন প্রতি মুহূর্তে মানবাধিকার লঙ্ঘন হচ্ছে। আইন ও সালিস কেন্দ্রের তথ্য তুলে ধরে বলেন, গত ১০ বছরে দেড় হাজারের বেশি বিচারবহির্ভূত হত্যা করা হয়েছে। বিএনপির হিসাবে তা ২ হাজারের বেশি। এক লাখের ওপর রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে মামলা দেওয়া হয়েছে। এখন দেশে মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিষয়টি সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাড়িয়েছে উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, এখানে যে ব্যক্তি ভিন্ন মত পোষণ করেন তাকে হয় গ্রেপ্তার করা হয়, না হয় গুম করা হয়। অনেক নেতা, মানবাধিকার কর্মী ও সাংবাদিক গুম হয়েছে। তিনি দাবি করে বলেন, পাকিস্তান আমলের চেয়েও গত ১০ বছরে বাংলাদেশের সবচেয়ে বেশি মানবাধিকার লঙ্ঘন হয়েছে। জাতিসংঘকে থেকে বারবার বাংলাদেশকে ডাকা হয়েছে। চার বছর আগে মানবাধিকার রক্ষায় বাংলাদেশ যে অঙ্গীকার করেছিল, তার একটিও রক্ষা করেনি।

আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য সব ধরনের মানবাধিকার লঙ্ঘন প্রক্রিয়া গ্রহণ করছে বলে উল্লেখ মির্জা ফখরুল বলেন, গার্মেন্টস শ্রমিক, বিদেশে নারী শ্রমিকদের মানবাধিকার লঙ্ঘন হচ্ছে, কিন্তু সরকার কোনও উদ্যোগ নিচ্ছে না। এ ছাড়া রোহিঙ্গাদের মানবাধিকার লঙ্ঘন নিয়েও অন্য দেশ সোচ্চার হলেও বাংলাদেশ সরকার কোনো ভূমিকা নেয়নি।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, মানবাধিকার বিষয়ক সম্পাদক আসাদুজ্জামান প্রমুখ।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..