দিনের খবর প্রচ্ছদ প্রথম পাতা

এক দিনে পেঁয়াজের দাম বাড়ল ৫০ টাকা

নিজস্ব প্রতিবেদক : পেঁয়াজ যেন অপ্রতিরোধ্য। কেউ থামাতে পারবে না এর মূল্যের গতি। ভারত থেকে পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ হওয়ায় গত কয়েক মাস ধরে বাংলাদেশের বাজারে অস্থিরতা বিরাজ করছে। সপ্তাহের ব্যবধানে তিন দফায় প্রতি কেজি পেঁয়াজের দাম বেড়ে ২৫০ টাকায় দাঁড়িয়েছে। শুধু গতকাল এক দিনেই কেজি প্রতি দাম বেড়েছে ৫০ টাকা। পেঁয়াজের এমন দামে ক্রেতাদের পাশাপাশি খুচরা বিক্রেতারাও রিতিমতো অবাক।

গতকাল রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, প্রতি কেজি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ২৪০-২৭০ টাকা দরে। কারওয়ান বাজার ও শ্যামবাজারে প্রতি পাল্লা (৫ কেজি) পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে এক হাজার ২০০ থেকে এক হাজার ৩০০ টাকা দরে। আর মিসর থেকে আসা প্রতি কেজি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ২১০-২২০ টাকা কেজি।

ব্যবসায়ীরা জানান, বুধবার পেঁয়াজের দাম ছিল ১৪০-১৫০ টাকা। সেখান থেকে পরের দিন এক লাফে বেড়ে যায় ১৭০-১৮০ টাকা। বৃহস্পতিবার সেই পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ২০০-২১০ টাকায়। শুক্রবার তা বিক্রি হচ্ছে ২৫০-২৬০ টাকা দরে। শনিবার (১৬ নভেম্বর) পেঁয়াজের দাম আরও বাড়তে পারে বলে শঙ্কা তাদের।

এর আগে কখনও দেশের বাজারে এত দামে পেঁয়াজ বিক্রি হয়নি জানিয়ে শ্যামবাজারের ব্যবসায়ী আরিফ মোল্লা বলেন, ‘মূলত পেঁয়াজের আমদানি না কম থাকায় পেঁয়াজের বাজার চড়া। তবে এভাবে চলতে থাকলে পেঁয়াজের দাম আরও বাড়বে।’

পপুলার বাণিজ্যালয়ের বিক্রয়কর্মী মিরাজ বলেন, ‘পাইকারি বাজারে পেঁয়াজ নাই। ঘাটতির কারণে দফায় দফায় পেঁয়াজের দাম বাড়ছে। এখন পর্যন্ত পেঁয়াজের দাম কেজিতে বেড়েছে ৫০ টাকার মতো। তবে দাম আরও বাড়বে বলে মনে হচ্ছে।’

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে দেশি পেঁয়াজের কেজি ১৪০ টাকায় উঠেছিল। সেটাই ছিল এ যাবৎকালের সর্বোচ্চ দর।

ভারত রফতানি বন্ধ করায় গত ২৯ সেপ্টেম্বর থেকেই দেশের পেঁয়াজের বাজার অস্থির। এরপর থেকে দফায় দফায় বাড়তে থাকে পেঁয়াজের দাম। পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করার সংবাদে ২৯ সেপ্টেম্বর প্রথমবারের মতো পেঁয়াজের দাম ১০০ টাকায় পৌঁছায়। খুচরা পর্যায়ে ভালো মানের দেশি পেঁয়াজ ১০০-১১০ টাকা কেজি বিক্রি হতে থাকে। এরপর বেশি কিছুদিন পেঁয়াজের দাম অনেকটাই স্থির ছিল। ৭০ থেকে ৮০ টাকা কেজিতে নেমে এসেছিল।

কিন্তু ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের পর আবারও পেঁয়াজের  দাম বেড়ে যায়। ঘূর্ণিঝড়রের কারণে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে এবং আমদানি করা পেঁয়াজ আসছে না এমন অজুহাতে ব্যবসায়ীরা পেঁয়াজের দাম বাড়িয়ে দেন, ফলে আবারও ১০০ টাকায় পৌঁছে যায় পেঁয়াজের কেজি।

এরপর বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি এক বক্তৃতায় বলেন, পেঁয়াজের কেজি ১০০ টাকার নিচে নামা সম্ভব নয়। মন্ত্রীর এ বক্তব্য পেঁয়াজের দাম বাড়ার বিষয়টিকে আরও উসকে দেয় বলে অভিযোগ রয়েছে। ১০০ টাকা থেকে পেঁয়াজের কেজি ১৩০ টাকায় পৌঁছে যায়।

তবে এখানেই থেমে থাকেনি পেঁয়াজের দাম বাড়ার প্রবণতা। বুধবার ১৫০ টাকা থেকে পেঁয়াজের দাম এক লাফে ১৭০ টাকা হয়। বৃহস্পতিবার সেই দাম আরও বেড়ে ২০০ টাকায় পৌঁছে যায়। আর সপ্তাহের শেষদিন শুক্রবার তা আরও বেড়ে দাঁড়ায় ২৫০ থেকে ২৬০ টাকায়।

পুরান ঢাকার ব্যবসায়ী আবদুল মালেক বলেন, বৃহস্পতিবার পেঁয়াজের কেজি ২০০ টাকা শুনে ফিরে আসি। ভেবেছিলাম দুই-একদিন পর কিনব। কিন্তু শুক্রবার বাজারে গিয়ে দেখি দাম বেড়ে ২৫০ টাকা। একদিনে ৫০ টাকা বেড়ে গেছে, এ তো পুরো ডাকাতি।

খিলগাঁওয়ের গৃহিণী শামীম আরা বলেন, সকালে পেঁয়াজ কিনতে বের হয়েছিলেন। দুই দোকান থেকে ফেরত আসতে হয়, পেঁয়াজ নেই। পরে একটি দোকানে গিয়ে পেঁয়াজ পান। ২৫০ টাকা কেজিতে এক কেজি পেঁয়াজ নেন তিনি।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন
ট্যাগ »

সর্বশেষ..