দিনের খবর প্রথম পাতা

এবার ইসলামী ব্যাংকের খেলাপির তালিকায় মেজর মান্নান

সাইফুল আলম, চট্টগ্রাম: বিকল্পধারার মহাসচিব ও ব্যবসায়ী মেজর (অব.) আব্দুল মান্নানের মালিকানাধীন বিভিন্ন শিল্পপ্রতিষ্ঠান একাধিক বাণিজ্যিক ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে খেলাপি। এবার খেলাপির ওই তালিকায় নতুন সংযোজন হয়েছে ক্যাপিটাল বোর্ড মিলস লিমিটেড এবং ক্যাপিটাল পেপার অ্যান্ড পাল্প ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড। এ দুই প্রতিষ্ঠান খেলাপি হলো ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড।

ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড সূত্রে জানা যায়, ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের গুলশান করপোরেট শাখায় গত ৯ সেপ্টেম্বর মোট ২৮৩ কোটি ৬৫ লাখ টাকা খেলাপি ঋণে পরিণত হয়। আর এ ঋণের বিপরীতে গুলশান করপোরেট শাখায় মোট এক হাজার ৭৭২ দশমিক ৭৫ শতাংশ জমিসহ সব যন্ত্রপাতি ও স্থাপনা বন্ধকিতে আছে। এর মধ্যে নরসিংদীর পলাশের সন্তানপাড়া শীতলক্ষ্যা নদীর পাড়ে ক্যাপিটাল বোর্ড মিলস লিমিটেড এবং ক্যাপিটাল পেপার অ্যান্ড পাল্প ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের কারখানার এক হাজার ৭১১ শতাংশ জমিসহ যাবতীয় স্থাপনা বন্ধকিতে আছে। এছাড়া সাভারের উত্তর কাউন্দিয়া মৌজায় ৬১ দশমিক ৫০ শতাংশ জমিসহ সব স্থাপনা।

জানা যায়, ঋণখেলাপি মেজর (অব.) আব্দুল মান্নানের ব্যবসায়িক শিল্প গ্রুপ সানম্যান গ্রুপ। এ গ্রুপের বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের বাণিজ্যিক কার্যক্রম বন্ধ। আর বিভিন্ন ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে খেলাপি হয়ে পড়েন। চলতি মাসের শুরুর দিকে খেলাপি ঋণের দায় সমন্বয়ে একটি বেসরকারি ব্যাংক মেজর মান্নানের হোল্ডিং থাকা ইস্টার্ন ইন্স্যুরেন্সের প্রায় ১০ লাখ শেয়ার বিক্রয় করে দেয়। আর জুনে বাংলাদেশ ইন্ডাস্ট্রিয়াল ফাইন্যান্স কোম্পানি (বিআইএফসি) থেকে নিয়মবহির্ভূতভাবে ৬৪০ কোটি টাকা লুটপাটের ঘটনায় গত সপ্তাহে প্রতিষ্ঠানটির সাবেক চেয়ারম্যান মেজর (অব.) আব্দুল মান্নান ও তার স্ত্রীকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে বাংলাদেশ ব্যাংকের তদন্ত কমিটি।

অভিযোগ রয়েছে, মেজর (অব.) আব্দুল মান্নানের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান বিআইএফসি থেকে ৬৪০ কোটি টাকা ঋণ নেন, যা মোট ঋণের ৭৬ দশমিক শূন্য এক শতাংশ। তবে বর্তমানে তা সুদে-আসলে প্রায় ৭৫০ কোটি টাকার বেশি। এসব ঋণ আদায়ের জন্য তার নামে ২৭টি মামলা করা হয়েছে। এছাড়া একাধিক ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের খেলাপি হওয়ার কারণে শতাধিক মামলা রয়েছে।

খেলাপি ঋণ ও ব্যবসায়িক পরিকল্পনা মেজর (অব.) আব্দুল মান্নান বলেন, ‘আমরা পুনঃতফসিলের জন্য চেষ্টা করছি। আশা করছি হয়ে যাবে। গত দুই বছর তো করোনার কারণে আমাদের ব্যবসা হয়নি। আর লোকাল মার্কেট হওয়ায় প্রায় ১০০ কোটি টাকার মতো স্টক জমে গিয়েছে। সব মিলিয়ে চাপে পড়ে গিয়েছি। তবে আমরা চেষ্টা করছি।’ তিনি আরও বলেন, ‘খেলাপি ঋণ থেকে বেরিয়ে আসার জন্য আমাদের পরিকল্পনা আছে। হয়তো সময় লাগছে।’

এদিকে খেলাপির বিষয়ে জানতে গতকাল দুপুর সাড়ে ১২টায় ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট ও গুলশান করপোরেট শাখাপ্রধান এটিএম শহিদুল হকের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘এ মূহূর্তে আমি একটি মিটিং আছি। পরে কথা বলব।’ পরে বিকাল ৫টায় একাধিকবার মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি কল রিসিভ করেনি। ফলে তার মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

যদিও শাখাটির নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা বলেন, ‘মেজর (অব.) আব্দুল মান্নানের মালিকানাধীন ক্যাপিটাল বোর্ড মিলস লিমিটেড এবং ক্যাপিটাল পেপার অ্যান্ড পাল্প ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড আমাদের খেলাপি গ্রাহক। গত ৯ সেপ্টেম্বর প্রতিষ্ঠান দুটি খেলাপি হয়ে পড়ে। এ পর্যন্ত খেলাপি পাওনা ২৮৩ কোটি ৬৫ লাখ ৯৫ হাজার ৯৩৪ টাকা। আর খেলাপি পাওনা আদায়ে ঋণের বিপরীতে বন্ধকিতে থাকা জমিসহ সব স্থাপনা ও যন্ত্রপাতি আইন অনুসারে নিলামে বিক্রয়ের সিদ্ধান্ত হয়েছে। আগামী ৭ অক্টোবর আমাদের গুলশান শাখায় নিলাম অনুষ্ঠিত হবে। যদিও তাদের বিরুদ্ধে চেক প্রত্যাখ্যানের মামলাও আছে। এরপর প্রয়োজন হলে অর্থঋণ আদালতে মামলা করা হবে। তবে তার পাওনা পরিশোধে আগ্রহ দেখা যাচ্ছে না।’ 

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..