বিশ্ব সংবাদ

এবার যুক্তরাষ্ট্রে মেধার ভিত্তিতে অভিবাসন!

শেয়ার বিজ ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসন আইন ঢেলে সাজানো হচ্ছে। এতে দেশটিতে অন্য দেশের নাগরিকদের অভিবাসন দেওয়ার ক্ষেত্রে মেধা, শিক্ষাগত যোগ্যতা ও প্রযুক্তিগত দক্ষতাকে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। এক সাক্ষাৎকারে এ আশ্বাস দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। পরে হোয়াইট হাউস এক বিবৃতিতেও জানিয়েছে, নতুন অভিবাসন ব্যবস্থা চালুর জন্য প্রশাসনিক নির্দেশ জারির প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। খবর: আনন্দবাজার। 

মার্কিন টেলিভিশন চ্যানেল ‘টেলিমুন্ডো’য় এক সাক্ষাৎকারে শুক্রবার প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেন, ‘এটা একটা খুব বড় বিল আসতে চলেছে। বিলটা খুব ভালো হতে চলেছে। এ বিলে যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসনের অধিকার  দেওয়ার ক্ষেত্রে অন্যান্য দেশের নাগরিকদের মেধা, শিক্ষাগত যোগ্যতা ও প্রযুক্তিগত দক্ষতাকেই অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। যে শিশুরা যুক্তরাষ্ট্রে এসেছে অন্যান্য দেশ থেকে তারাও যাতে পরে মার্কিন নাগরিকত্বের অধিকার পায় (‘ডেফার্ড অ্যাকশন চাইল্ডহুড অ্যারাইভাল’ বা ডিএসিএ), এ বিলে তারও ব্যবস্থা রাখা হবে। আমি মনে করি, এ বিল সবাকেই খুশি করবে।’

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জানিয়েছেন, বিলটি আনার জন্য প্রশাসনিক প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। পরে হোয়াইট হাউসের তরফে এক বিবৃতিতে বলা হয়, ‘প্রেসিডেন্ট যা ঘোষণা করেছেন, সে অনুযায়ী কাজ শুরু হয়ে গেছে। ট্রাম্প এ ব্যাপারে প্রশাসনিক নির্দেশ জারির প্রক্রিয়া শুরু করে দিয়েছেন। মার্কিন নাগরিকদের স্বার্থ রক্ষা করেই এবার অভিবাসনের অধিকার  দেওয়া হবে মেধা, শিক্ষাগত যোগ্যতা ও প্রযুক্তিগত দক্ষতার অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে।’

হোয়াইট হাউসের তরফে এও জানানো হয়েছে, ডিএসিএ-কেও নতুন অভিবাসন বিলে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য ট্রাম্প কংগ্রেসের প্রয়োজনীয় অনুমোদন আদায়ের চেষ্টা করছেন। তাতে সীমান্ত সুরক্ষার পাশাপাশি অভিবাসনকেও মেধা, শিক্ষাগত যোগ্যতা ও প্রযুক্তিগত দক্ষতাভিত্তিক করে তোলা সম্ভব হবে।

ট্রাম্প অবশ্য তার সাক্ষাৎকারে অভিযোগ করেন, ডিএসিএকে নতুন বিলে অন্তর্ভুক্ত করার বিষয়টি ডেমোক্র্যাটদের জন্যই ঝুলে রয়েছে। ট্রাম্প বলছেন, ‘আগে এ ব্যাপারে তাদের (ডেমোক্র্যাট) সঙ্গে চুক্তি হয়েছিল। কিন্তু পরে ওরাই সেই চুক্তি থেকে সরে আসেন।’ 

বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে সম্প্রতি এক লাখ ৭০ হাজার বিদেশি কর্মপ্রার্থীদের ভিসা এবং গ্রিন কার্ড স্থগিত করেছে যুক্তরাষ্ট্র। ২০২০ সালের শেষ পর্যন্ত এ সিদ্ধান্ত বহাল থাকবে বলে জানিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনি জানান, এ পদক্ষেপটি মহামারিজনিত কারণে অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত মার্কিনীদের কর্মসংস্থান সৃষ্টি করবে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..